সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:১৫ পূর্বাহ্ন


বঙ্গবন্ধু ছিলেন বাঙালির সাহস ও প্রেরণার বাতিঘর : ড.সামছুল হক চৌধুরী

বঙ্গবন্ধু ছিলেন বাঙালির সাহস ও প্রেরণার বাতিঘর : ড.সামছুল হক চৌধুরী


শেয়ার বোতাম এখানে

মবরুর আহমদ সাজু:

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য যুক্তরাজ্য জাতীয় শ্রমিকলীগের কার্যকরী-সভাপতি ড.সামছুল হক চৌধুরী বলেছেন,

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শুধু একটি নাম নয়। একটি ইতিহাস। এই বাংলাদেশে দল-মত নির্বিশেষে তিনি সবার শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার এক প্রস্ফুটিত গোলাপ। প্রজ্বলিত এক নক্ষত্র।

বিশ্বের এই নন্দিত নেতার আদর্শ বাস্তবায়ন করতে হলে তরুণ প্রজন্মকে অগ্রনী ভূমিকায় থাকতে হবে।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এই প্রতিবেদক কে মুঠোফোনে এক সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন তিনি ।

ড.সামসুল হক চৈাধুরী বলেন, ইতিহাসের মহামানব, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকীতে—সেদিনের সেই কালরাতে জাতির পিতার পরিবারের সদস্যবৃন্দসহ যারা ঘাতকের নির্মম বুলেটে প্রাণ হারিয়েছিলেন তাদের সকলকে বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করি।

শোকাবহ এই দিনটি জাতীয় শোক দিবস রূপে দেশ-বিদেশে যথাযোগ্য মর্যাদায় ভাবগম্ভীর পরিবেশে প্রতি বছর পালিত হয়।

বাংলাদেশের লাল-সবুজের পাতাকায় চিরভাস্বর হয়ে আছেন বঙ্গবন্ধু জাতির জনক শেখ মজিবুর রহমান। বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস আমাদের স্বাক্ষ্য দেয় এই মহামানবের জন্ম না হলে দেশের স্বাধীনতা প্রাপ্তি নিশ্চিত ছিল না। বঙ্গবন্ধুর বজ্রকণ্ঠে পুরো জাতি যার যার কিছু আছে তা-ই নিয়ে শত্র“র বিরুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছে। ৭ মার্চ ১৯৭১ রেসকোর্স ময়দানে লাখো জনতার সামনে ঘোষণা করেছিলেন- ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’।

দেশে ও প্রবাসের রাজনীতি অঙ্গনের প্রিয়মুখ প্রবাসে ও সুনামগঞ্জ ২ তথা দিরাই শাল্লা আসনে  আওয়ামী লীগের  অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এ নেতা আরো বলেন, সারাদেশে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যত উন্নয়ন হয়েছে, উন্নয়ন সবার সামনে আজ দৃশ্যমান। তিনি জাতীয় চার নেতার দেখানো পথ অনুসর করে দেশের উন্নয়ন কাজে কাজ করার আহ্বান জানান, তিনি আরো বলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কাছে প্রত্যেক মন্ত্রী এবং এমপিদের কর্মকাণ্ডের আমলনামা ও তথ্য রয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর পথ পাড়ি দিয়ে সব সূচকে অগ্রগতি, সাফল্য আর উন্নয়নের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। এ সময়ে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুত্তি, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীসহ বিভিন্ন খাতের উন্নয়ন দেশের ভেতর-বাইরে প্রশংসিত হয়েছে। বিশ্বের বুকে বাংলাদেশ এখন শুধু উন্নয়নের রোল মডেলই নয়, একটি মানবিক রাষ্ট্র হিসেবেও প্রশংসিত।

ড.সামসুল হক চৈাধুরী বলেন, শোকের মাস আগস্টেও ১৫ তারিখে দুনিয়ার নির্যাতিত-নিপীড়িত মানুষের শ্রেষ্ঠ বন্ধু জাতির জনককে আমরা হারিয়েছি—যার জন্ম না হলে এই দেশ স্বাধীন হতো না, এবং আজও আমরা পাকিস্তানের দাসত্বের নিগড়ে আবদ্ধ থাকতাম।

তিনি বলেন, বছর ঘুরে এবারের শোক দিবস আমাদের জাতীয় জীবনে ফিরে এসেছে ভিন্নরূপে। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ তথা ‘মুজিববর্ষ’ উপলক্ষে গৃহীত পদক্ষেপের ফলে জাতির জনকের জীবন ও কর্মের গবেষণালব্ধ বহুবিধ দিক উন্মোচিত হওয়ায় তিনি আজ স্বমহিমায় প্রকাশিত।

১৯৭৫-এর ১৫ আগস্টের পর থেকে ’৯৬-এর আগে পর্যন্ত স্বৈরশাসকেরা দেশে সর্বব্যাপী ভয়ের সংস্কৃতি বলবৎ করে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচারের পথ রুদ্ধ করেছিল। সে-সব অন্যায় ইতিহাসের সত্যের স্রোতে ভেসে গেছে। স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার ইতিহাসে ‘আওয়ামী লীগ’, ‘বঙ্গবন্ধু’ ও ‘বাংলাদেশ’ যে গভীরভাবে সম্পর্কযুক্ত ও সমার্থক, আজ তা সকলের কাছে সুস্পষ্ট। বঙ্গবন্ধু রচিত দু’টি গ্রন্থ ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ ও ’কারাগারের রোজনামচা’ জাতীয় ইতিহাসের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দলিল। অমূল্য এই গ্রন্থদ্বয় প্রকাশ করায় বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট আমরা কৃতজ্ঞ। ইতিহাসের অনেক অজানা কথা এই বই দুটো থেকে আমরা জানতে পেরেছি।

তিনি বলেন,জাতির জনক, মুক্তিযুদ্ধের মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কেবল ইতিহাসের অংশই নন, বিশ্বসভ্যতার ইতিহাসেও তিনি কালের বরপুত্র। বঙ্গবন্ধুর জীবনের সঙ্গে বাঙালি জাতির উত্থান ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা যেমন অবিচ্ছেদ্য, তেমনি বিশ্বের নিপীড়িত, বঞ্চিত ও শোষিত মানুষেরও তিনি ছিলেন অনুপ্রেরণা। বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ছিলেন না, ছিলেন না প্রধানমন্ত্রীও, এমনকি তিনি পূর্ব পাকিস্তানের মুখ্যমন্ত্রীও ছিলেন না। তিনি ছিলেন বাংলার মুকুটবিহীন সম্রাট। বঙ্গবন্দু আজ নেই বড় কস্ট লাগছে তবে বঙ্গবন্ধু বাঙালি হৃদয়ে আদর্শিত হয়ে প্রেরণার বাতিঘর হয়ে থাকবেন।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin