রবিবার, ২৫ Jul ২০২১, ০২:২৩ পূর্বাহ্ন

বছরে একাধিকবার বিদ্যুৎ-জ্বালানির দাম পরিবর্তনের বিল সংসদে

বছরে একাধিকবার বিদ্যুৎ-জ্বালানির দাম পরিবর্তনের বিল সংসদে


শেয়ার বোতাম এখানে

সুমু মির্জা, ঢাকা
“শেখ হাসিনার উদ্যোগ ঘরে ঘরে বিদ্যৎ” এই স্লোগান নিয়ে দেশে বিদ্যুতের উৎপাদন ও গ্রাহক পর্যায়ে পৌঁছে দেওয়ার ক্ষেত্রে অতীতের যেকোন সরকারের তুলনায় অনেকাংশেই সফল হয়েছে এ সরকার।

উৎপাদন বৃদ্ধিতে খরচ বাড়বে এটাই স্বাভাবিক কিন্তু ব্যতিক্রম হলে অসন্তুষ বাড়ে গ্রাহক পর্যায়ে। বিতরণ সংস্থা গুলোর গ্রাহক পর্যায়ে বিল প্রণয়ন সংক্রান্ত সীমাহীন অনিয়ম সামনে এসেছে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে। এমতাবস্থায় বছরে একাধিকবার বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দাম পরিবর্তনের সুযোগ সৃষ্টি করতে জাতীয় সংসদে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন আইন সংশোধনে বিল উত্থাপন করা হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ ‘বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (সংশোধন) বিল-২০২০’ সংসদে উত্থাপন করেন। ৩০ দিনের মধ্যে বিলটি পরীক্ষা করে সংসদে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়। গত বছরের ডিসেম্বরে বিলটি মন্ত্রিসভার অনুমোদন পায়।

২০০৩ সালে প্রণীত বিদ্যমান আইনে বিধান ছিল, কমিশনের নির্ধারিত ট্যারিফ কোনও অর্থবছরে একবারের বেশি পরিবর্তন করা যাবে না। যদি না জ্বালানি মূল্যের পরিবর্তনসহ অন্য কোনও পরিবর্তন ঘটে। খসড়া আইনে এটা পরিবর্তন করে করা হয়েছে। বিলে বলা হয়েছে, কমিশন কর্তৃক নির্ধারিত ট্যারিফ কোনও অর্থবছরে কমিশনের একক বা পৃথক পৃথক আদেশ দ্বারা, প্রয়োজন অনুসারে এক বা একাধিকবার পরিবর্তন করতে পারবে।

নতুন আইন কার্যকর হলে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন বছরে এক বা একাধিকবার বিদ্যুৎ, গ্যাস, ডিজেল, পেট্রোলসহ জ্বালানির দাম পরিবর্তন করতে পারবে।

এদিকে সাম্প্রতিক সময়ে জুনের অর্থ বছরের হিসাব মিলাতে গ্রাহকদের উপর অতিরিক্ত বাড়তি বিলের বোঝা চাপানো হচ্ছে বলে গ্রাহকদের কাছ থেকে ব্যাপক অভিযোগ পাওয়া গেছে। মাসের পর মাস অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল এলেও ভোগান্তি নিরসনে কার্যকর কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরী কমিশন(বিইআরসি) অভিযোগ শুনে মৌখিকভাবে নিরসনের কথা বললেও লিখিত কোনো অভিযোগ দেয়নি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঢাকার এক আবাসিক বাসিন্দা বলেন চলতি জুন মাসের ১৬ তারিখ ডেসকোর প্রিপেইড মিটারে ১০০০ হাজার টাকা রিচার্জ করে গতকাল ২২ জুন ৬ দিনের মাথায় দেখেন বাসায় কারেন্ট নেই।পরে আবার তাকে বাধ্য হয়ে রিচার্জ করতে হয়। অন্য আরেকজন বলেন,গেল মাসে যেখানে তার ৮০০ টাকা বিল এসেছিল সেখানে এই মাসে ২৫০০ টাকা বিদ্যুৎ বিল এসেছে।

এমন অভিযোগ হাজার হাজার গ্রাহকের। এমন পরিস্থিতিতে আবারো সংসদে বছরে একাধিকবার বিদ্যুৎ ও জ্বালানির পরিবর্তনের সুযোগ রাখার বিষয়টি গ্রাহকদের কাছে নীরব ক্ষোভের সৃষ্টি করতে পারে বলে সাধারণ মানুষ মনে করেন।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin