বৃহস্পতিবার, ১৭ Jun ২০২১, ০২:৫৫ অপরাহ্ন

বদলে যাচ্ছে লোভাছড়া নদীর গতিপথ

বদলে যাচ্ছে লোভাছড়া নদীর গতিপথ


শেয়ার বোতাম এখানে

আলিম উদ্দিন, কানাইঘাট
কানাইঘাটের লোভাছড়া পাথর কোয়ারীতে প্রভাবশালী ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে যান্ত্রিক পদ্ধতিতে গভীর গর্ত করে চলছে ধ্বংসলীলা ও অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন। যে কারণে এলাকার পরিবেশ হয়ে উঠছে মারাত্মক হুমকির সম্মুখীন। এছাড়া স্থানীয় প্রভাবশালী পাথর ব্যবসায়ীদের তান্ডবে ও অবৈধভাবে পাথর স্টক করার কারণে বিলীন হতে চলেছে মুলাগুল বাজার, কান্দলা নয়াবাজার, কান্দলা কমিউনিটি ক্লিনিক, বাজেখেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, বড়গ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মুলাগুল-ডাউকেরগুল খেয়াঘাট, বাগান বাজার, চিন্তার বাজার, মুলাগুল উচ্চ বিদ্যালয়সহ কয়েকটি মসজিদ ও মোবাইল নেটওয়ার্কের টাওয়ার। প্রতিদিন সকাল থেকে গভির রাত পর্যন্ত স্ক্যাভেটর, ফেলোডার ও শ্যালো মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলন করার পর শত শত ট্রাক্টর দিয়ে বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে তা স্টক করে রাখা হচ্ছে।

এতে যন্ত্রপাতির সহযোগিতার পাথর উত্তোলনের কারণে শব্দ দূষণে এলাকার পরিবেশ বিনষ্ট হচ্ছে। পাশাপাশি রাস্তাঘাটে ধোলাবালির কারণে জনচলাচলে সৃষ্টি হচ্ছে দুর্ভোগ। প্রশাসন কোয়ারীতে অবৈধ কর্মকান্ড বন্ধে বিভিন্ন সময় অভিযান করে থাকলেও পাথর উত্তোলন বন্ধ হচ্ছে না। অভিযানের খবর পেয়ে পাথর ব্যবসায়ীরা তাদের যন্ত্রপাতি নিয়ে সটকে পড়ে। পরে প্রশাসনের কর্মকর্তারা চলে আসার পর ব্যবসায়ীরা যে যার মতো পাথর উত্তোলন শুরু করে। প্রতিদিন সন্ধ্যা নামার পর থেকে ভোর পর্যন্ত জেনারেটরের বাল্ব জালিয়ে যান্ত্রিক পদ্ধতিতে পাথর কোয়ারীতে চলে ধ্বংসলীলা। শতাধিক স্ক্যাভেটর, ফেলোডার দিয়ে পাথর উত্তোলনের নামে গভীর গর্ত করা হয়। স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, ইজারাকৃত ও ইজারা বর্হিভূত এসব জায়গা থেকে পাথর উত্তোলনে কোন ধরণের নিয়মনীতি মানা হচ্ছেনা। যার ফলে যে যার মত করে পাথর উত্তোলন করছে। শর্ত অনুযায়ী ইজারাদার তার ইজারাকৃত স্থানের সীমানা চিহ্নিত করে পাথর উত্তোলন করবেন। কিন্তু ইজারাদার তার ইজারাকৃত স্থানের সীমানা চিহ্নিত না করায় লোভানদীর বুক চিরে প্রায় ৪ কিলোমিটার জায়গা জুড়ে পাথর উত্তোলন হচ্ছে।

এছাড়া প্রভাবশালী কয়েকজন ব্যবসায়ীর মাধ্যমে কোয়ারীতে গভীর গর্ত করার নামে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে গর্ত প্রতি ২লক্ষ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু আদায়কৃত টাকাগুলো কোথায় যাচ্ছে বা কারা নিচ্ছেন এবিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানিয়েছেন অনেক ব্যবসায়ী। এছাড়া প্রতিদিন কোয়ারী এলাকায় পাথর উত্তোলনকে কেন্দ্র করে ঘটছে নানা ধরণের ঘটনা-দুর্ঘটনা। লোভা নদীর তীরবর্তী ফসলি জমি কেটে গর্ত করে চলছে পাথর উত্তোলন। ফলে লোভানদীর গতিপথ ভরাট করে দিয়েছে পাথর ব্যবসায়ীরা। লোভানদীর দুই তীর ভেঙ্গে গভীর গর্ত করে নদীর গতিপথ পরিবর্তন হলেও নিরব ভূমিকায় রয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তর। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় সচেতন মহল। এলাকাবাসী আরও জানান, লোভা নদীর তীরবর্তী বসতবাড়ি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ক্লিনিক, হাটবাজার ও মসজিদ এবং রাস্তাঘাট মারাত্মক হুমকির মুখে রয়েছে।
লোভাছড়া পাথর কোয়ারীতে ইজারাকৃত ও ইজারা বর্হিভূত জায়গায় প্রায় ৩৫০টি গর্ত রয়েছে। এদের মধ্যে প্রায় ২১০টি গর্ত ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। এছাড়া বাজেখেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আশপাশ এলাকায় অতিরিক্ত ঝুঁকিপূর্ণ থাকায় কয়েকটি গর্তে লাল পতাকা টানিয়ে গর্তগুলো বন্ধ করে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। কিন্তু এসবে কাজের কাজ কিছুই হচ্ছেনা। লোভা নদীর ভালুকমারার চর, সাউদগ্রাম, বাংলোটিলা, কান্দলা, তেরহালি, বাজেখেল, মেছারচর, কালীজুরির মুখ, বাগান বাজার ঘাট এলাকা হল পাথর উত্তোলনের মূল স্পট। কিন্তু এসব জায়গার ৭৫ ভাগই হলো লোভাছড়া পাথর কোয়ারীর ইজারা বহির্ভূত। এসব জায়গায় গভির গর্ত করে পাথর উত্তোলন চলছে। মাঝে মধ্যে স্থানীয় প্রশাসন অভিযান চালালেও আমলে নিচ্ছে না পাথর উত্তোলনকারীরা।

২০১৭ সালের ৭ নভেম্বর বাংলোটিলা এলাকা থেকে পাথর উত্তোলনের সময় টিলা ধ্বসে পাথরের নিচে চাপা পড়ে ৬ জনের মৃত্যু হয়েছিল। এছাড়াও কোয়ারী এলাকায় গত ৫ বছরে মাটি চাপা ও ট্রাক্টর থেকে পড়ে গিয়ে কয়েকজন পাথর শ্রমিক আহত ও নিহত হয়েছেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপি চেয়ারম্যান ডা. ফয়াজ আহমদ বলেন, লোভাছড়া এলাকার পর্যটন উপযোগী পরিবেশ প্রশাসনের পাশাপাশি পরিবেশ অধিদপ্তর ও পরিবেশবীদরা এগিয়ে আসতে হবে। তা না হলে যে ভাবে প্রাকৃতিক সৌর্ন্দযের লীলাভূমি লোভা নদীর বুক চিরে ও দুই পাড় ভেঙ্গে পাথর উত্তোলন হচ্ছে, তাতে অচিরেই এলাকায় মারাত্মক পরিবেশ বিপর্যয় নেমে আসবে। লোভাছড়া পাথর কোয়ারীর ইজারাদার সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপ- প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক মস্তাক আহমদ পলাশ বলেন, ইজারার শর্ত মেনে পাথর উত্তোলন করার জন্য আমি আমার পক্ষ থেকে সব ধরনের উদ্যোগ নিয়েছি। এছাড়া লোভা কোয়ারীতে কারিগরি কর্মকর্তা নিয়োগ দিয়েছি এবং পাথর ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে মুচলেকা নিয়েছি।

এরপরও ইজারার শর্ত অমান্য করে কেউ পাথর উত্তোলন করলে আমি তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে আদালতের স্মরণাপন্ন হবো। কানাইঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বারিউল করিম খান বলেন, যান্ত্রিক পদ্ধতিতে লোভাছড়া পাথর কোয়ারী থেকে পাথর উত্তোলন সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ রয়েছে। তিনি বলেন, ম্যানুয়েল পদ্ধতিতে পাথর উত্তোলন ছাড়া কেউ যান্ত্রিক পদ্ধতি ব্যবহার করলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি দাবি করেন- প্রশাসনের পক্ষ থেকে লোভা কোয়ারীতে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে এবং এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin