শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:৩৪ অপরাহ্ন


বন্দরবাজার পাঠশালা হকারের দখলে: প্রধান শিক্ষিকা বললেন-‘আমি একজন বসিয়েছি’

বন্দরবাজার পাঠশালা হকারের দখলে: প্রধান শিক্ষিকা বললেন-‘আমি একজন বসিয়েছি’


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট:

সিলেটের বন্দরবাজারে দূর্গাকুমার পাঠশালা। এটি একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এই বিদ্যালয়ের খেলার মাঠ দখল করে নিয়েছে ফল ব্যবসায়ী হকারেরা। গতকাল রোববার সরেজমিনে এ অবস্থা দেখে কারণ জানতে চাইলে উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তার সম্মুখে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা বললেন- ‘আমি একজনকে ফল বিক্রি করার জন্য বসিয়েছি। তার নাম জাহাঙ্গীর। বাকিদের আপনারা তুলে দেন’।

তথ্য সংগ্রহকালে জানা যায়, ১৮৮৫ সালে স্থাপিত দূর্গাকুমার পাঠশালা। এই পাঠশালাতে সেগুফতা কানিছ আক্তার প্রধান শিক্ষিতা হিসেবে চাকরি করছেন দশ বছর ধরে। তার আমলে বিদ্যালয়ের খেলার মাঠ যেন ময়লার বাগাড় হয়ে আছে। বেড়েছে হকারের দৌরাত্ম। বিদ্যালয়ের উঠোন দেখলে এটাকে কোমালমতির শিক্ষাক্ষেত্র ভাবা কঠিন। হকারেরা পসরা সজিয়ে বসেছে বিদ্যালয় আঙ্গিনায়। তাদের টুকরি, কার্টুন, বস্তা, ফলের কেস (ফল রাখার প্লাস্টিক কৌটা) বিদ্যালয়ের দেয়ালের ভিতরে খেলার মাঠে রাখা। প্রধান শিক্ষিকা জানালেন- রাতে বন্দরবাজারের সব ময়লা এই বিদ্যালয়ে ফেলে রাখা হয়।

মৌখিক অভিযোগ রয়েছে, বন্দরবাজারে হকারেরা এক টুকরি নিয়ে বসলে প্রতিদিন ২০০ টাকা ও দুই টুকরি নিয়ে বসলে ৩০০ টাকা প্রধান করতে হয়। সম্প্রতি সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক) ফুটপাত থেকে হকার উচ্ছেদ করে। কিন্তু দূর্গাকুমার বিদ্যালয়ের ভিতরে বসা হকারেরা বিতাড়িত হয়নি। বরং তারা ঘাপটি মেরে বসে আছে।

গতকাল দেখা গেল- বিদ্যালয়ে উপস্থিত আছেন উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র চক্রবর্তী। বিদ্যালয়ে পুলিশও রয়েছে। পুলিশ, শিক্ষা কর্মকর্তা, প্রধান শিক্ষিকার উপস্থিতে বিদ্যালয় মাঠ ও গেট দখল করে হকারেরা ফল ব্যবসা করছে। উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র চক্রবর্তী বললেন, আমরা বিদ্যালয়ে হকার বসানোর পক্ষে নই।
বিদ্যালয়ে ভেতরে বারান্দায় অনেকগুলো নতুন বই গোছাচ্ছিল তিনজন শিক্ষার্থী। তাদের মুখে মাস্কও নেই। প্রধান শিক্ষিকা বললেন- বিদ্যালয় এখন বন্ধ। শিক্ষার্থীদের আসা নিষেধ। তিনজন শিক্ষার্থী কেন বা কিভাবে বিদ্যালয়ে আসল- জানতে চাইলে প্রধান শিক্ষিকা এ বিষয়ে কোনো উত্তর দেননি। বিদ্যালয়ের দপ্তরি থাকাকালে শিক্ষার্থীরা বই গোছাচ্ছে কেন- এ প্রশ্নেরও কোনো উত্তর দেননি প্রধান শিক্ষিকা।

বিদ্যালয়ের গেটজুড়ে অন্যদের সাথে ফলের পসরা সাজিয়ে ব্যবসা করতে দেখা যায় জাহাঙ্গীরকে। প্রধান শিক্ষিকা জানালেন সে বিদ্যালয়ের দপ্তরী। সরকার থেকে তার বেতন দেয়া হয় না বলে বিদ্যালয়ের ভিতরে ফল ব্যবসা করার অনুমতি দিয়েছি। এ বিষয়টি বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি অনুমোদিত কি না জানতে চাইলে, প্রধান শিক্ষিকা বললেন ‘না’। তবে তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন- বিদ্যালয়ের ভিতরে খেলার মাঠ দখল করে হাকারের ব্যবসা করার বিষয়ে তাঁর কোনো হাত বা সহযোগিতা নেই।

ফিরে আসার পথে প্রধান শিক্ষিকা বললেন- আপনি আমার একটি রিপোর্ট করে দিতে হবে। আর তা হল স্কুলের ভেতরে বন্দরবাজারের ময়লা ফেলার বিষয়টি। বিদ্যালয়ে অবস্থানকালীন সময়ে উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা এ প্রতিবেদকের সাথেই ছিলেন। আসার পথে বললেন- পারলে আপনারা এই হকারদের তুলে দেন।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin