সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৩৫ পূর্বাহ্ন


বাংলাদেশিদের জন্য ইউরোপের দুয়ার খুলতে চলছে দর কষাকষি

বাংলাদেশিদের জন্য ইউরোপের দুয়ার খুলতে চলছে দর কষাকষি


শেয়ার বোতাম এখানে

প্রতিদিন ডেস্ক:
ইউরোপ থেকে অনিয়মিত বাংলাদেশিদের ফেরত আনতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সঙ্গে চুক্তি সই করেছে বাংলাদেশ। দুই বছর আগে করা এই চুক্তির আওতায় এখন পর্যন্ত ১৫০ জনের মতো বাংলাদেশি ফেরত এসেছে।

এখন দক্ষ বাংলাদেশিদের ইউরোপে বৈধভাবে পাঠাতে এই চুক্তিকে ব্যবহার করতে চায় সরকার। এ বিষয়ে ব্রাসেলসসহ (ইইউর সদর দফতর) ইউরোপীয় অন্যান্য দেশের সঙ্গেও আলোচনা চলছে।

এ বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘এই চুক্তি করার জন্য ইউরোপের দেশগুলো আগ্রহী ছিল এবং আমরা সাড়া দিয়েছি। বৈধভাবে আরও দক্ষ বাংলাদেশিদের কীভাবে ইউরোপে পাঠানো যায়, তা নিয়ে এখন আমরা তাদের সঙ্গে দর কষাকষি করছি ।’

তিনি বলেন, ‘আমরা তাদের বিভিন্ন বৈঠকে বলে থাকি, আমরা অবৈধ বাংলাদেশিদের ফেরত নেবো। কারণ, আমরা চুক্তিবদ্ধ। কিন্তু ওই দেশগুলো যেন আমাদের ইউরোপে বৈধভাবে মানুষ পাঠাতে সহায়তা করে।’

ইউরোপের সঙ্গে প্রত্যাবাসন চুক্তিতে ফেরত আনাসহ পুনর্বাসন এবং সমাজে আত্মীকরণের বিষয়টি রয়েছে এবং এখন বাংলাদেশিদের দক্ষতা বৃদ্ধির বিষয়টিও তুলে ধরা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

সরকারের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘ইউরোপে দক্ষ লোকের ঘাটতি আছে। কারণ, ওখানে জনসংখ্যা কম এবং প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বাংলাদেশে দক্ষ জনগোষ্ঠী তৈরি করা সম্ভব।’

উদাহরণ হিসেবে তিনি বলেন, প্রতিবছর ইউরোপের দেশগুলো ছাড়া অন্য দেশের ৮ হাজার লোককে সুইজারল্যান্ড ওয়ার্ক পারমিট দিয়ে থাকে এবং সম্প্রতি তাদের সঙ্গে একটি বৈঠকে বাংলাদেশ থেকে লোক নেওয়ার কথা হয়। তখন তারা জানায়, এটি বাজার ব্যবস্থার ওপর নির্ভর করে দেওয়া হয়।

তিনি বলেন, ‘আমরা তখন তাদের বলেছি, তোমাদের বাজারে কাজ করতে পারার মতো করে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করে দিলে বাংলাদেশিরা সেখানে প্রতিযোগিতা করতে পারবে।’

এ ধরনের প্রস্তাব ইইউ-সহ অন্যান্য দেশগুলোকে দেওয়া হচ্ছে। যাতে করে বৈধপথে অধিকসংখ্যক বাংলাদেশি বিদেশে যেতে পারে বলে তিনি জানান।

এদিকে ইইউর সঙ্গে চুক্তির পর বাংলাদেশ এই জোটের বাইরের দেশ নরওয়ে ও সুইজারল্যান্ডের সঙ্গে একই রকম চুক্তি (স্ট্যান্ডার্ড অব প্রসিডিওর—এসওপি) করেছে।

ওই এসওপি অনুযায়ী একজন বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠানোর আগে তার বিরুদ্ধে সব ধরনের প্রশাসনিক ও আইনগত বিধিবিধান শেষ করতে হবে।

এছাড়া তাকে ফেরত পাঠানোর আগে তার বাংলাদেশি নাগরিকত্ব ইউরোপেই নিশ্চিত করতে হবে এবং এ চুক্তির অধীনে প্রতিমাসে ১০০ জনের বেশি তারা ফেরত পাঠাতে পারবে না।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই কর্মকর্তা জানান, ২০১৪ সালে ইইউভুক্ত দেশগুলো বাংলাদেশিদের জন্য প্রায় ২৬ হাজার, ২০১৫ সালে প্রায় ২১ হাজার এবং ২০১৬ সালে প্রায় ২৫ হাজার রেসিডেন্ট পারমিট ইস্যু করলেও ২০১৭ সালে জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত মাত্র ৪ হাজার ১০০ পারমিট ইস্যু করেছে।

ইইউর তথ্য অনুযায়ী, ২০১৬ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত যুক্তরাজ্য বাদে ইইউর বাকি ২৭ দেশে প্রায় ২ লাখ বৈধ ভিসাধারী বাংলাদেশি অবস্থান করছে। সেখানে তাদের থাকার ও কাজ করার অনুমতি আছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin