শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৪:২৯ পূর্বাহ্ন



বাংলাদেশ উপকূলের ১০লাখ গ্রাহক বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন: রাজশাহীতে বিদ্যুৎহীন তাণ্ডব আম্পানের

বাংলাদেশ উপকূলের ১০লাখ গ্রাহক বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন: রাজশাহীতে বিদ্যুৎহীন তাণ্ডব আম্পানের


শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:
ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকার ১০ লাখের বেশি গ্রাহক বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। বুধবার সন্ধ্যা থেকে শুরু হওয়া ঝড়ো হাওয়ার প্রভাবে গাছ পড়ে, তার ছিঁড়ে পড়াসহ বিভিন্ন কারণে ঘণ্টা দেড়েকের মধ্যে উপকূলে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের অন্তত ১৭টি সমিতির এসব গ্রাহক বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েন বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

এদিকে, ঘূর্ণিঝড় প্রভাবে রাজশাহীতে পুরো শহরই প্রায় বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে। ঝড়-বৃষ্টির আগেই বিদ্যুৎ চলে গেলে শহরজুড়ে নেমে আসে অন্ধকার। বর্তমানে পুরো ভূতুড়ে নগরীতে পরিণত হয়েছে রাজশাহী। এর মধ্যেই চোখ রাঙাচ্ছে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় আম্পান। আন্ধাকারচ্ছন্ন নগরবাসী ভারী বর্ষণে হিমশিম খাচ্ছেন।

চলছে ভারী বর্ষণ। দিনভর গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হলেও বুধবার (২০ মে) রাত ১০টার পর থেকে শুরু হয় ভারী বর্ষণ। এরপর থেকে মুষলধারে বৃষ্টি চলছেই। সেইসঙ্গে বয়ে যাচ্ছে ঝড়ো হাওয়া।

এরইমধ্যে রাজশাহী মহানগরী ও আশপাশের এলাকায় থাকা টিনের ঘর ও উপজেলা পর্যায়ে থাকা কাঁচা ঘর-বাড়ির চালা উড়ে যাওয়া ও ধসে পড়া এবং গাছপালা উপড়ে যাওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে।

বিদ্যুৎ সরবরাহ লাইন মেরামতের প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি রয়েছে জানিয়ে বিতরণ সংস্থাগুলো বলছে, ঝড় থেমে গেলে বৃহস্পতিবার বিকালের মধ্যে মেরামত করে সংযোগগুলো চালু করতে পারবে তারা।

ওজোপাডিকোর প্রকৌশল শাখার নির্বাহী পরিচালক আবুল হাসান জানান, বিকাল নাগাদ আলমডাঙা, মেহেরপুর, বরগুনা, পায়রা, চর‌ফ্যাশনের প্রায় ৪০ হাজার গ্রাহকের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ঝড়ে খুলনা, মাগুরা, যশোর অঞ্চলে ক্ষয়ক্ষয়তি কম হলেও পায়রা, পটুয়াখালী, পিরোজপুর, বরগুনা এলাকায় বেশ ক্ষয়ক্ষতি হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

আমরা সেই অনুযায়ী প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। তবে মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়েছে, আগে জীবন রক্ষা করতে হবে। উদ্ধার তৎপরতা চালাতে গিয়ে কোনো প্রাণহানি কাম্য নয়।

বাংলাদেশের পশ্চিমের সাতক্ষীরা থেকে শুরু করে খুলনা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী ও চট্টগ্রাম অঞ্চলে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব বেশি পড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আরইবির চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল মঈন উদ্দিন বলেন, “আমরা আশা করছি ঘূর্ণিঝড় থেকে আল্লাহ পাক বাংলাদেশকে রক্ষা করবেন। এখন খুলনা ও পায়রা অঞ্চলে ১০ নম্বর এবং কুমিল্লা-চট্টগ্রাম অঞ্চলে ৯ নম্বর বিপদ সংকেত দেওয়া হয়েছে। কুমিল্লা, নোয়াখালী ও চট্টগ্রাম অঞ্চলে যদি আঘাত হানে তাহলে আরইবির ক্ষয়ক্ষতি হবে।

“উপকূলীয় অঞ্চলে আরইবির ২৩টি সমিতি রয়েছে যেগুলো গত ঘূর্ণিঝড় বুলবুলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। এবার আমরা আশা করছি, আল্লাহ রক্ষা করবেন। আমাদের সমুদয় প্রস্তুতি আছে। কিছুক্ষণ আগে আরইবির জিএম ও ডিজিএম মিলিয়ে প্রায় ৫০০ কর্মকর্তাদের নিয়ে ভিডিও কনফারেন্স করলাম। তাদেরকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়েছি।


সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin