বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:২৫ পূর্বাহ্ন


বাদাঘাট বাজারে নেই গণশৌচাগার : ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের সীমাহীন দুর্ভোগ

বাদাঘাট বাজারে নেই গণশৌচাগার : ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের সীমাহীন দুর্ভোগ


শেয়ার বোতাম এখানে

কামাল হোসেন, তাহিরপুর:

সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর উপজেলার উত্তরাঞ্চল ও বাণিজ্যিক কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত বাদাঘাট বাজারে গণশৌচাগার না থাকায় বাজারের ব্যবসায়ী ও আগত ক্রেতা ও জনসাধারণের দীর্ঘদিন ধরেই সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। সুনামগঞ্জ জেলা সদরের পর ১১ উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে বড় বাজার তাহিরপুর উপজেলার উত্তর বাদাঘাট ইউনিয়নের এই বাদাঘাট বাজার। এ বাজার থেকে সরকার প্রতি বছর অর্ধকেটি কাটা রাজস্ব ফেলাও স্বাধীনতার ৪৯ বছরেরও এবাজারে নির্মাণ হয়নি কোন গণশৌচাগার। ছোট বড় মেইল-কারখানা সহ প্রায় ৩ হাজারেরও অধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সমৃদ্ধ তাহিরপুরের বাদাঘাট বাজার এ অঞ্চলের ব্যবসা-বাণিজ্যের অন্যতম প্রাণকেন্দ্র ।

এখানে বড় বড় বিপনি-বিতান, ছোট বড় মিলিয়ে ৩ হাজার খানেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও রয়েছে একটি কৃষি ব্যাংক, একটি ইসলামী ব্যাংক, একটি গ্রামীণ ব্যাংক, একটি ব্র‍্যাক ব্যাংক, একটি আশা ব্যাংক প্রায় সহ রয়েছে কয়েকটি বীমা কোম্পানির অফিস ও বেশ কয়েকটি এনজিও অফিস । নানা ধরনের কাজে জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে প্রতিদিন সকাল থেকে রাত অব্দি লক্ষাধিক লোকের পদ চারণায় মুখর থাকে এই বাদাঘাট বাজার । কিন্তু বিপুল পরিমাণ এই জনসংখ্যার জন্য নেই কোন শৌচাগারের ব্যবস্থা।

যাফলে বাজারের ব্যবসায়ী সহ বিভিন্ন গ্রাম থেকে বাজারে আসা ক্রেতা বিক্রেতারা চরম ভোগান্তির মধ্যে কাটাচ্ছেন যুগের পর যুগ। বিশেষ করে বাজারে ডাক্তার দেখানো সহ বিভিন্ন কাজে গ্রাম থেকে আসা মহিলাগন পড়েন চরম বিপাকে। বাদাঘাট বাজারে কোন গণশৌচাগর না থাকায় বাজারে আসার পর প্রাকৃতিক ডাক দিলে বাধ্য হয়েই তার বাজারের অাশপাশের কোন বাড়ি ঘরে গিয়ে কাকুতিমিনতি করে সেরে নিতে হয় তাদের কাজ। না হয় বাদাঘাট বাজার জামে মসজিদের শৌচাগারে পুরুষে সাথে লাইনে দাঁড়াতে হয় প্রাকৃতিক ডাক সারতে। না হয় শৌচাগারের অভাবে অনেকটা বাধ্য হয়েই বাজারের আশপাশের কোন ঝোপঝাড় বা কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পিছনের আড়ালে গিয়ে প্রাকৃতিক কাজ সারছেন অনেকেই। এর ফলে সৃষ্ট দুর্গন্ধে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সাধারণ। জানাজায়, বাদাঘাট বাজারে বিগত প্রায় ২০ কিং বা ২২ বছর আগে বাদাঘাট জামে মসজিদের পিছনে যাও একটা গণশৌচাগার ছিল কিন্তু তাও অাবার ৮/১০ বছর যাওয়ার পর বাদাঘাট বাজারের ব্যবসায়ী ও স্থানীয়দের আন্তরিকতার অভাবে তা বন্ধ হয়ে যায়। ওই গণশৌচাগর বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর থেকেই বাজারের ব্যবসায়ী সহ বাজারে অাগত জনসাধারণ বাদাঘাট জামে মসজিদের ২টি শৌচাগার ব্যবহার করে অাসছে দীর্ঘদিন ধরে। অনেক সময় মসজিদের শৌচাগারের ভীড় থাকার কারনে অনেকেই বাধ্য হয়েই মসজিদের পস্রাব খানয় টয়লেট সেরে নেন।

যার ফলে অনেক সময় নামজ পড়তে মসজিদ অাগত মুসলমানদের পরতে হয় অনেক বিড়ম্বনায়।
বাদাঘাট বাজারের ব্যবসায়ী শাহ অালম সহ অনেকেই জানান , সুনামগঞ্জের মাঝে আামাদের এই বাজার সবচেয়ে বড় বাজার। এই বাজার থেকে সরকার প্রতি বছর প্রায় কোটি টাকা রাজস্ব নিয়ে থাকলেও নেই কোন সরকারি পাবলিক টয়লেট। যার কারণে আমাদের প্রাকৃতিক ডাক দিলে বাধ্য হয়েই ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ফেলে রেখই বাড়িতে গিয়ে টয়লেট সারতে হয়।

না হয় আশপাশের করারও বাড়িতে যেতে হয়। আর এখন মসজিদের টয়লেট এই বাজারবাসী পাবলিক টয়লেট হিসেবেই ব্যবহার করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েন মহিলারা। আমার পুরুষ মানুষ যেকোনো কানে গিয়ে টয়লেট সারতে পারি। বাদাঘাট বাজারে গণশৌচাগার এখন গণ দাবিতে পরিণত হয়েছে। তাই বাজার ব্যবসায়ী-জনসাধারণ ও স্থানীয়দের জন্য অতি জরুরি হয়ে দাঁড়িয়েছে গণশৌচাগার।

বাদাঘাট বাজার বণিক সমিতির সভাপতি সেলিম হায়দার বলেন, বাজারে টয়লেট করার জন্য কিছুদিন আগে পাবলিক হেলথ্ থেকে ১৪ লাখ না ১৬ লাখ টাকার একটি বরাদ্দ আছিল। কুন্তু কেই জায়গা দিতে রাজি না থাকায় এবং জায়গা সংকুলনের কারণে তা করতে পারেনি। পরে আমার বাদাঘাট ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর পশ্চিম নদীর তীরে টয়লেটটি নির্মাণ করার জন্য কাজ শুরু করেছিলাম। পরে বাদাঘাট স্কুল কর্তিপক্ষ উক্ত কাজে বাধা দিল টয়লেট নির্মাণ কাজের বরাদ্দের টাকা গুলো অাবার ফিরত যায়।
সাধারণ সম্পাদক মাসুক মিয়া বলেন, কিছুদিন অাগে টয়লেট করার জন্য কিছু টাকা বরাদ্দ অাইছিল। কিন্তু জায়গা বা থাকার কারনে অামরা তা নির্মাণ করতে পারেনি।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin