শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ০৩:৫৮ অপরাহ্ন



বাবা ও ২ ভাইয়ের কাঁদে করে লাশ দাপন: খাটিয়া দিলেন না মসজিদ কমিটি

বাবা ও ২ ভাইয়ের কাঁদে করে লাশ দাপন: খাটিয়া দিলেন না মসজিদ কমিটি


আল আমিন, সুনামগঞ্জ :

বাবা ও দুই ভাইয়ের কাঁদে খাটিয়া ছাড়া (করার) লাশ। এটি সবচেয়ে হৃদয়বিদারক ঘটনা। আর এ ঘটনাটি ঘটেছে সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার বক্তারপুর গ্রামে।

খাটিয়া ছাড়াই বাবা-ছেলে মিলে শাদা কাফনে মোড়ানো হতভাগা ছালাম মিয়া (২২) কে মরদেহ কাধে তুলে দাপন করেছেন।

মুসলিম রীতি-নীতি অনুযায়ী লাশ গোরদাফন করতে যেয়ে। নিহতের বাবা জবুল মিয়া ও তার ভাই খালিক মিয়া এবং আলীনূর মিয়া দুই ভাই লাশ বহনের জন্য মসজিদের খাটিয়া চেয়েও পাননি।

মসজিদের ইমাম মোয়াজ্জিনসহ মসজিদ কমিটির নেতৃত্বসহ গ্রামের ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের অনুমতি না মিলায় গোপনে কবরস্থ করেছেন।

এমন একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার বেলা সাড়ে ১১ টায় দোয়ারাবাজার উপজেলার লক্ষীপুর ইউনিয়নের বক্তারপুর গ্রামে।

এই সংকটে মানুষের অনুভূতি লোপ পাওয়ায় বিষ্ময় প্রকাশ করেছেন মানবিক মানুষেরা। তবে দাফনের সময় থানা পুলিশ ও প্রশাসনসহ জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

স্থানীয়রা জানান, জ্বর ও সর্দি কাশি নিয়ে গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯ টায় মারা যান দোয়ারাবাজার উপজেলার বক্তারপুর গ্রামের এক ইট ভাটা শ্রমিক ছালাম মিয়া (২২)। স্থানীয়রা করোনা ভাইরাসের উপসর্গ দেখা দেওয়ায় পুলিশ ও প্রশাসনকে জানায়।

পরে এলাকা লকডাউন করে দেয় উপজেলা প্রশাসন। বুধবার সকালে তার নমুনা সংগ্রহ করে লাশ গোশল করিয়ে দেন উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। কিন্ত এই হতভাগার চিরকালেের শেষ বিদায়ের সময় কপালে জুটলোনা খাটিয়া। বিদায়কালে লাশ বহন করার জন্য খাটিয়া দিলেন না বক্তারপুর কান্দাপাড়া মসজিদ কমিটি।

প্রতিবেশিরা অভিযোগ করে বলেন, জনপ্রতিনিধিসহ প্রশাসনের লোক ছিলো কিন্তু কেউ কথা বলেনি। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে থেকে আসা ডাক্তাররা লাশ দোয়ে দিয়ে চলে যান কিন্তু লাশ খাটিয়া না পেয়ে বাবা-ছেলে মিলে কবরস্থানে নিয়ে কবর দিয়ে আসেন।

এদিকে মৃত্যুর পর পর ওই যুবকের পরিবারসহ তার পাড়া এবং তার লাশ দেখতে আসা দোয়ারাবাজার সদরের মাঝের গাঁওয়ের দুই স্বজন পরিবারকে লকডাউনে রেখেছে প্রশাসন।

নিহতের প্রতিবেশি কামরুল ইসলাম বলেন, মোসলমান হিসেবে এটা ঠিক হয়নি। একজন মোসলমান ভাই মারা গেছেন তাকে দাফন করতে অন্তত মসজিদ থেকে খাটিয়াটি দেওয়া উছিত ছিল। কিন্তু স্থানীয় মেম্বার দাফনের সময় উপস্থিত ছিলেন কিন্তু কোনো কথা বলেননি। ঘটনাটি দুঃখজনক।

লক্ষীপুর ইউনিয়নের ৯ নং সদস্য মোহাম্মদ শরিফুল্লাহ বলেন, করোনার ভাইরাসের ভয়ে পঞ্চায়েত (মসজিদ কমিটি) থেকে না করে দিয়েছেন যাতে তারা খাটিয়া না আনেন। তবে লাশ কবরস্থানে নেওয়ার জন্য ডাক্তাররা পলিথিন দিয়ে মুড়িয়ে দিয়েছিলেন যাতে কোনো জায়গা লিক না করে। পরে নিহতের বাবা ও দুই ভাই লাশ কাঁদে করে খবর দিয়ে আসেন।

এ ব্যাপারে দোয়ারাবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাশেম বলেন, লাশ বহন করার জন্য পরিবার খাটিয়া চায়নি। চাইলে অবশ্যই মসজিদ কমিটি দিতেন। মসজিদ কমিটি না দিলে পুলিশ প্রশানের পক্ষ থেকে আমরা ব্যবস্থা করতাম।

এদিকে বৃহষ্পতিবার ওই যুবকের করোনা নমুনা সংগ্রহের রিপোর্ট প্রকাশ করেছে সিলেট করোনাভাইরাস ল্যাব কর্তপক্ষ। সেখানে তার ফলাফল নেগেটিভ এসেছে।


সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin