বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ০৩:৪৫ পূর্বাহ্ন


বাবা যেন কবর থেকে উঠে বলছেন, কাঁদছিস কেন বাবা: এই তো আমি!

বাবা যেন কবর থেকে উঠে বলছেন, কাঁদছিস কেন বাবা: এই তো আমি!


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট :
বাবার জন্য চোখের জল পড়া থামছেই না। সারাক্ষণ হয় নামাজে দাঁড়িয়ে, না হয় মোনাজাতে বসে, না হয় স্মৃতিচারণ করে চোখের জল ফেলছেন আরমান আহমদ শিপলু, আশা ও আদনান।

শিপলু  বারবার ছুটে যাচ্ছেন বাবার কবরে। কবরের পাশে দাঁড়িয়ে থাকছেন। ক্লান্ত হলে বসে পড়ছেন পাশে! লোহার বেস্টনিতে ভর দিয়ে আহাজারি করছেন। চোখের জল মুছছেন বারবার। পাশে এসে কেউ সান্ত্বনা দিচ্ছেন। কেউবা দূর থেকে পূত্রের এমন আহাজারি দেখে কান্নায় ভেঙে পড়ছেন নিজেও! ফুপিয়ে কেঁদে উঠছেন! তারাও যে হারিয়েছেন অভিভাবক!

আশা সব সময় আছেন মায়ের কাছে, বাসায়। খুব কম সময় কেটেছে বাবার জন্য মোনাজাতের বাইরে থেকে! ভাই শিপলু বাবার কবর থেকে যখন বাসায় ফিরছেন, দৌড়ে এসে জানতে চাইছেন, বাবার কাছ থেকে ফিরলে? অনেক মানুষ আসছে, তাই না? দোয়া করছে সবাই!

এরা যাইহোক কাছে ছিল। বাবাকে শেষ দেখাও দেখতে পেরেছে। বড় ভাই দৌড়ে ছুটে চলে যেতে পারছে কবরের পাশে! কিন্তু ছোটভাই? যে সবার ছোট, আদনান? সে তো চাইলেই মানিকপীরের টিলায় বাবার কবরের মাটি ছুঁয়ে দেখতে পারছে না। যেতেও পারছে না কবরের পাশে। বিদেশের মাটিতে থাকায় বাবাকে শেষ দেখাটাও হলো না তার! এখন আফসোস করে আর বাবার জন্য চোখের জল ফেলে সময় কাটছে তার!

বাবা বদর উদ্দিন আহমেদ কামরান। সিলেটের জননন্দিত রাজনীতিবিদ। প্রথম নগরপিতা! শিপলু, আশা আর আদনান তারই ৩ সন্তান।

বাবাকে হারিয়ে তারা এখন শোকে মূহ্যমান! পুরো সিলেটবাসীও তাদের প্রিয় নেতাকে হারিয়ে স্তব্ধ! শোকে কাতর! ‘কামরান নেই’— এই দুটি শব্দে যেন আকাশ ভেঙে পড়েছে! এখনও বিশ্বাস করতে পারছেন না অনেকে! কিন্তু এরা তার সন্তান। তাই সবার থেকে তাদের শোকটাও বেশি!

আরমান আহমদ শিপলু যখন বাবার কবরের পাশে গিয়ে বসেন। অনবরত তার চোখ থেকে পানি গড়িয়ে মাটিতে পড়তে থাকে। হাউমাউ করে কাঁদেন। বাচ্চা শিশুর মতে ‘আব্বা’, ‘আব্বা’ বলে গোঙাতে থাকেন। যেন তার এই ডাক শুনে কবরে ঘুমিয়ে থাকা বাবা জেগে উঠবেন। ছোট্টবেলার মত এসে মাথায় হাত বুলিয়ে দিয়ে বলবেন, কাঁদছিস কেন বাবা। দেখ্, এই তো আমি তোর পাশেই আছি। ভয় পাইস না! বলে আঙুল দিয়ে চোখ মুছে দেবেন!

না, তা হয় না। হবারও নয়। একসময় তার কণ্ঠস্বর বসে যায়। কিন্তু ভেতরে থেকে যায় রক্তক্ষরণ! এই রক্তক্ষরণ নিয়ে শিপলু ফিরে যান বাসায়। মায়ের কাছে! তার মমতাময়ী মাও যে সেই একই ভাইরাসে আক্রান্ত! ভয় আছে মাকে নিয়ে! তাই দুই ভাইবোন মিলে আইসোলেশনে থাকা মাকে দূর থেকে সময় দেন! মাকে জানতে চান, কি হয়ে গেল! আব্বা কেন এরকম চলে গেলো? কেন এখনই তাকে চলে যেতে হলো? মা, বলতে পারো? মা তখন নির্বাক!

বাবা বদর উদ্দিন আহমেদ কামরান মারা যান সোমবার। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে আর সেরে উঠতে পারেন নি। কোটি মানুষের আর্তনাদ আহাজারি কাজে আসেনি। করোনার সাথে লড়ে হারই মানতে হয় তাকে। আশায় থাকা সিলেটবাসীকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে কামরান চলে যান না ফেরার দেশে। তারপরই বোঝা যায়, কত বেশি ভালবাসতো সিলেটের মানুষ তাদের প্রিয় নেতা কামরানকে। হয়তো জীবিতকালে সেটি ধারণাও করে যেতে পারেন নি তিনি।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin