বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ০৪:২৫ পূর্বাহ্ন


বিএসএফের হাতে আবারো বাংলাদেশীর মৃত্যু

বিএসএফের হাতে আবারো বাংলাদেশীর মৃত্যু


শেয়ার বোতাম এখানে

শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:
নেপাল কিংবা চায়না সীমান্তে যখন ভারতীয় সৈন্য বাহিনীর উপর পাল্টা গুলি ছুঁড়ে দেওয়া হয় তখন বিপরীত চিত্র ভারতের সাথে বাংলাদেশ সীমান্তে। প্রতিদিনই কোনো না কোন সীমান্তে ভারতীয় বিএসএফ কর্তৃক বাংলাদেশীদের মৃর্ত্যু হচ্ছে।তবে প্রেক্ষাপট ভিন্ন,অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশ করার অপরাধেই বেশিরভাগ হত্যাকান্ডগুলো সংগঠিত হচ্ছে।

গতকাল নওগাঁর সাপাহার সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) নির্যাতনে আবদুল বারী (৪৫) নামে এক বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। আজ বুধবার সকাল ৮টার দিকে সাপাহার আদাতলা সীমান্ত থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহত আবদুল বারী উপজেলার দক্ষিণ পাতাড়ি গ্রামের আবু বক্করের ছেলে বলে জানা যায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায় যে, মঙ্গলবার রাতে আবদুল বারীসহ কয়েকজন পূর্ণভা নদীর আদাতলার সীমান্ত দিয়ে ভারতে প্রবেশের চেষ্টা করছিল। এ সময় বিএসএফের সদস্যরা বুঝতে পেরে তাদের তাড়া করে।

এ সময় অন্যরা পালিয়ে আসতে সক্ষম হলেও আবদুল বারীকে বিএসএফের হাতে আটক হয়।আটকের পর ভারতীয় সীমান্ত রক্ষীরা তাকে নির্মমভাবে নির্যাতন করে। পরে তাকে পূর্ণভা নদীর তীরে তারকাঁটার পাশে বাংলাদেশের সীমানায় ফেলে দেন বিএসএফরা। বুধবার ভোরে নিহতের মৃতদেহ তারকাঁটার পাশে পড়ে থাকতে দেখে থানা পুলিশে খবর দেন স্থানীয় লোকজন।

১৬ বিজিবি আদাতলা ক্যাম্পের সুবেদার আবদুল হান্নান বলেন, একদল চোরাকারবারি ভারতে প্রবেশের জন্য পূর্ণভা নদীর কিনারে অপেক্ষা করছিল। ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) সদস্যরা তাদের লক্ষ্য করে ককটেল ছুড়ে মারেন। এ সময় তারা গুরুতর অবস্থায় পালিয়ে আসেন।

তিনি জানান, তারা বিজিবির তালিকাভুক্ত চোরাকারবারি। দীর্ঘদিন তারা পালিয়ে থাকায় আটক করা সম্ভব হচ্ছিল না।

সাপাহার থানার ওসি আবদুল হাই জানান, বুধবার সকাল ৮টার দিকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এর আগে গত ১৫ জুন নওগাঁর পোরশা উপজেলার নীতপুর সীমান্তে আগ্রাবাদ ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যদের গুলিতে সুভাস রায় (৩৭) নামে এক বাংলাদেশি নিহত হন।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin