সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৩৩ অপরাহ্ন

বিজেপি জিতেছে ৩০৩ ও কংগ্রেস ৫২টি আসনে

বিজেপি জিতেছে ৩০৩ ও কংগ্রেস ৫২টি আসনে


শেয়ার বোতাম এখানে

প্রতিদিন ডেস্ক
ভূমিধস বিজয়ের পর উচ্ছ্বসিত নরেন্দ্র মোদি তাঁর দলের জয়ের জন্য ভারতের জনগণকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। বলেছেন, এটা ‘গণতন্ত্রের’ বিজয়। বুথ ফেরত সমীক্ষার ফলকে সত্য প্রমাণ করে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রধানমন্ত্রীর পদে বহাল থাকা নিশ্চিত হওয়ার পর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এক আবেগঘন বক্তৃতা করেন।
লোকসভা নির্বাচনের ৫৪৩টি আসনের মধ্যে মোদির দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট ৩৫১টি আসনে জয় লাভ করেছে। এর মধ্যে একক ভাবে বিজেপি জিতেছে ৩০৩টি আসনে। এর আগে ২০১৪ সাল দলটি ২৮২টি আসনে জয় পেয়েছিল। এনডিএ জোট পেয়েছিল ৩৩৬টি আসন। তিন দশকে ভারতের জাতীয় নির্বাচনে গতবার প্রথম কোনো দল একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়। ভারতে কেন্দ্রীয় সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজন হয় ২৭২টি আসন। আর কংগ্রেস জোট ইউপিএ ৯২টি আসনে জয় লাভ করে। এর মধ্যে কংগ্রেস এককভাবে জিেিতছে ৫২টি আসনে। এছাড়া অন্যান্য দল ৯৯ আসনে জয় লাভ করেছে।
এবারের লোকসভা নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর দল বিজেপিকে হারাতে একাট্টা হয়েছিল বিভিন্ন আঞ্চলিক দল, কংগ্রেস তো ছিলই। বিশেষ করে ভোটের প্রচারে রাহুল গান্ধী, পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল কংগ্রেসের নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে মোদীর কথার লড়াই বেশ জমে উঠেছিল। কিন্তু সব বাক্যবাণকে পেছনে ফেলে শেষতক মোদী ম্যাজিকেই বাজিমাত করেছে বিজেপি।
কংগ্রেস গত বারের তুলনায় আটটি আসন বেশি পেলেও নির্বাচনে ভরাডুবি আটকাতে পারেনি। ভারতের শতাব্দী প্রাচীন এই দলটি এবার ৫২ আসনে জিতেছে, গতবার তারা ৪৪ আসন পেয়ছিল। যা ছিল ভারতীয় উপমহাদেশের সবচেয়ে পুরনো এ দলের ইতিহাসে সবচেয়ে বাজে পরাজয়। এছাড়া এবার পশ্চিমবঙ্গের দল অল ইন্ডিয়া তৃণমূল কংগ্রেস ২২টি আসনে জয়লাভ করেছে। এনডিএ জোটের দল শিবসেনা ১৮টি আসনে জিতেছে। গতবারও দলটির আসন সংখ্যা একই ছিল। এছাড়া, এবার এম করুণানিধি মুথুবেলের দল দ্রাভিদা মুন্নেত্রা কাঝাঘাম ২৩টি, যুবজন শ্রমিক রিথু কংগ্রেস পার্টি ২২টি, জনতা দল (ইউনাইটেড) ১৬টি, বিজু জনতা দল ১২টি, বহুজন সমাজ পার্টি ১০টি, তেলেঙ্গানা রাষ্ট্র সমিতি ৯টি এবং লোক জন শক্তি পার্টি ৬টি আসনে জয়লাভ করেছে।
অন্যান্য সেসব দল এবার লোকসভায় প্রতিনিধি পাঠাতে যাচ্ছে : আম আদমি পার্টি ১টি, এজেএসইউ পার্টি ১টি , অল ইন্ডিয়া আন্না দ্রাভিড়া মুন্নেত্রা কাঝাঘাম (এডিএমকে) ১টি, অল ইন্ডিয়া মজলিস ই-ইত্তেহাদুল মুসলিমিন ২টি, অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমক্রেটিক ফ্রন্ট ১টি, কমিউনিস্ট পার্টি ইন্ডিয়া (সিপিআই) ২টি, কমিউনিস্ট পার্টি ইন্ডিয়া (সিপিএম) ৩টি, ইন্ডিয়ান ইউনিয়ন মুসলিমলীগ ৩টি, জম্মু ও কাশ্মীর ন্যাশনাল কনফারেন্স ৩টি , জনতা দল (সেকুলার) ১টি, ঝাড়খণ্ড মুক্তি মার্চ ১টি, কেরালা কংগ্রেস (এম) ১টি, মিজো ন্যাশনাল ফ্রন্ট ১টি, নাগা পিপলস পার্টি ১টি, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি ১টি, ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টি ৫টি, ন্যাশনালিস্ট ডেমক্রেটিক প্রগ্রেসিভ পার্টি ১টি, রেভল্যুশনারি সোস্যালিস্ট পার্টি ১টি, সমাজবাদী পার্টি ৫টি, শিরোমনি আকালি দল ২টি, সিকিম ক্রান্তিকারি মোর্চ ১টি, তেলুগু দেসাম ৩টি এবং অন্যান্য ৮টি।
এনডিটিভি অনলাইনের খবরে বলা হয়েছে, জয়ের পর প্রতিক্রিয়ায় নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, এ জয় ‘গণতন্ত্রের’। এ সময় তিনি জনগণের উদ্দেশে তিনটি প্রতিশ্রুতি দেন, ‘অসুস্থ উদ্দেশে কখনো কিছু করব না’, ‘ব্যক্তিগত ভাগ্য উন্নয়নে কখনো কিছু করব না’ এবং ‘দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে আমার প্রতিটি রন্ধ্র, দেহের প্রতিটি কোষ বিরামহীন কাজ করে যাবে’।
এবারের নির্বাচনে বিজেপির জয় ২০১৪ সালের ফলকেও ছাড়িয়ে গেছে। গণনা শুরু করার মাত্র তিন ঘণ্টার মধ্যে জোটের আসন ৩০০ ছাড়িয়ে যায়। এখনো গণনা চলছে। বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট প্রায় সাড়ে তিন শ আসনে এগিয়ে রয়েছে। দলের বিজয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এটা নতুন উপাখ্যান রচনা করেছে। প্রতিটি দলের অন্তত দর্শন করা উচিত।
জাতিপ্রথাভিত্তিক রাজনীতির চর্চায় দেশটি বড় আকারে জড়িয়ে পড়েছে। মোদি বলেন, এখানে শুধু দুটি গোত্র অবশিষ্ট রয়েছে। এক, যারা দরিদ্র; দুই, যারা দারিদ্র্য নির্মূল করে।
উত্তর প্রদেশে দশকের পর দশক ধরে জাতিপ্রথা রাজনীতির মূল বিষয় হয়ে রয়েছে। সেখানের ভোটাররা বিজেপিকে দ্বিতীয়বারের মতো বড় ধরনের জয় এনে দিতে যাচ্ছে। ওই রাজ্যে ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিজেপি এবং এর জোট আপনা দল ৮০টি আসনের মধ্যে ৭৩টিতে জয় পেয়েছিল। এবার মায়াবতী এবং অখিলেশ যাদবের সমাজবাদী পার্টির বড় জোটের কাছে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে বিজেপি। এরপরও বিজেপি সেখানে ৬১ আসনে জয় লাভ করে। মায়াবতী-যাদবের জোট পিছিয়ে থাকা প্রান্তিক গোত্র ও মুসলিমদের ব্যাপক সমর্থন নিয়ে ২০টি বা এর কম আসনে জয় পেতে যাচ্ছে।
গত বৃহস্পতিবার দিল্লিত দলের সদর দপ্তরে শত শত কর্মী-সমর্থকের উদ্দেশে মোদি বলেন, ‘আমরা জনগণের সিদ্ধান্ত জানতে তাদের কাছে গিয়েছিলাম। আজ কোটি মানুষ এই “ফকির কি ঝোলি” (গরিবের থলে) ভরে দিয়েছে। এটা গণতন্ত্রের সবচেয়ে বড় ঘটনা।’
গরিবের থলের বিষয়টি তিনি উল্লেখ করেছেন কংগ্রেসকে খোঁচা দিতে। দলের নতুন সদস্য শত্রুঘ্ন সিনহা প্রধানমন্ত্রীকে ব্যঙ্গ করে সম্প্রতি বলেছিলেন, ‘এখন প্রধানমন্ত্রী মোদির সময় হয়েছে তাঁর থলে তুলে নেওয়া এবং চলে যাওয়া।’ অভিনেতা থেকে রাজনীতিক বনে যাওয়া শত্রুঘ্ন সিনহা মোদির একটি পুরোনো বক্তব্যকে তুলে এনে এ মন্তব্য করেছিলেন।
২০১৬ সালে রাতারাতি বড় নোট (পাঁচ শ ও এক হাজার রুপির) নিষিদ্ধ করে দেয় মোদি সরকার। ঘটনাটি নিয়ে বিরোধী দলগুলোর কঠোর সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি। ওই সময় এক সমাবেশে মোদি বলেছিলেন, ‘আমার বিরোধীরা আমার কী করতে পারে? আমি ফকির। আমি আমার ঝোলা তুলে নেব এবং চলে যাব।’



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin