শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৩৬ পূর্বাহ্ন

বিদেশিদের মুখে সশস্ত্র বাহিনীর প্রশংসা শুনে গর্বে বুক ভরে যায় : প্রধানমন্ত্রী

বিদেশিদের মুখে সশস্ত্র বাহিনীর প্রশংসা শুনে গর্বে বুক ভরে যায় : প্রধানমন্ত্রী


শেয়ার বোতাম এখানে

প্রতিদিন ডেস্ক: জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা বাহিনীর হয়ে বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠায় যে ভূমিকা রাখছেন, তার ভূয়সী প্রশংসা রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের কাছ থেকেই আসছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা যেন বিশ্বের যে কোনো দেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারেন, সেই সক্ষমতা তৈরিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার কথাও বলেছেন তিনি।

রোববার রাজধানীর মিরপুর সেনানিবাসে শেখ হাসিনা কমপ্লেক্সে ডিএসসিএসসি কোর্সে অংশ নেওয়া দেশি-বিদেশি সামরিক কর্মকর্তাদের সনদ প্রদান অনুষ্ঠানে একথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের সশস্ত্র বাহিনী এখন জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে অবদান রাখছে। তাদেরকে আমরা আধুনিকভাবে গড়ে তুলতে চাই, যে কোনো দেশের সঙ্গে যেন তাল মিলিয়ে চলতে পারে। সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের প্রশংসা করে তিনি বলেন, “আমাদের সবচেয়ে বড় একটা সৌভাগ্য হল, আমাদের সশস্ত্র বাহিনী যেখানেই কাজ করছে সেখানে তারা সুনাম অর্জন করছে। তাদের একটা ভালো জিনিস যেটা শুধু একজন সামরিক কর্মকর্তা হিসেবেই না, তাদের মধ্যে যে মানবিক গুণাবলী রয়েছে সেই মানবিক গুণাবলীর মাধ্যমে তারা জনগণের হৃদয়ে একটা স্থান করে নিয়েছে।

আমি যখন বিদেশে যাই বিভিন্ন রাষ্ট্রপ্রধান বা সরকার প্রধান তাদের সঙ্গে যখন দেখা হয়, যারা আপনাদের সঙ্গে কাজ করেছে, তারা যখন প্রশংসা করে গর্বে আমার বুক ভরে যায়।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের সশস্ত্র বাহিনী আমাদের প্রিয় মাতৃভূমির স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষার সুমহান দায়িত্ব যেমন পালন করছে, আমাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ক্ষেত্রেও যথেষ্ট অবদান রেখে যাচ্ছে। কিন্তু একটি বিষয় বিশেষভাবে দৃষ্টি দেওয়ার জন্য আমি অনুরোধ করব, সেটা হচ্ছে সমাজে যখন ‘ব্যাধি’ দেখা যায় সেটা নিয়ে।

মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতির হাত থেকে সমাজকে রক্ষার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন প্রধানমন্ত্রী। এগুলোর বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ ঘোষণার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, কাজেই দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান বা মাদক-সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে। আমরা চাই আমাদের প্রতিটি ছেলে-মেয়ের মেধা, শক্তি, মনন দেশের কাজে লাগবে, উন্নয়নের কাজে লাগবে। তারা বিপথে চলে যাক, নিজেদের জীবনটা ধ্বংস করুক- সেটা আমরা কখনও চাই না।

প্রধানমন্ত্রী রুটিন দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি বিদ্যমান কিছু সামাজিক অভিশাপের বিরুদ্ধে সতর্ক নজর রাখার জন্য সশস্ত্র বাহিনীর প্রতি আহŸান জানিয়ে বলেন, তাঁর সরকার এসব সামাজিক অভিশাপ নির্মূল করতে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি অনুসরণ করে যাবে। তিনি বলেন, ‘সমাজে মাদক, সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতির মতো কিছু সামাজিক অভিশাপ রয়েছে। আমি এসব বিষয়ে আপনাদের বিশেষ মনোযোগ আকর্ষণ করছি।’

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রণীত প্রতিরক্ষা নীতিমালার আলোকে ফোর্সেস গোল ২০৩০ প্রণয়নের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, এই ১১ বছর আমি মনে করি, আমাদের সশস্ত্র বাহিনীকে সর্বক্ষেত্রে আমরা আধুনিক সাজ সরঞ্জাম ও প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে যথেষ্ট উন্নতি সাধন করতে পেরেছি।

সশস্ত্র বাহিনীর কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণের ওপর গুরুত্ব আরোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমি সব সময় এটা মনে করি, আমাদের প্রশিক্ষণটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কিন্তু সবাই পারে আরও দক্ষতার সাথে কীভাবে দেশের স্বাধীনতা-সর্বভৌমত্ব রক্ষা। দেশের আর্থ-সামাজিক ও অবকাঠামোগত উন্নয়নে সশস্ত্র বাহিনীর ভূমিকারও প্রশংসা করেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, যার ফলে সারা বিশ্বব্যাপী আজকে আমাদের দেশের একটা সুনাম অর্জিত হয়েছে, ছড়িয়ে পড়েছে। আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে এবং সশস্ত্র বাহিনীর উপর একটা আস্থা, বিশ্বাস জনগণের সৃষ্টি হয়েছে।
বাংলাদেশের উন্নয়ন-অগ্রগতির কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এক সময় বিদেশে আমরা যখন ছিলাম বা যেতাম তখন বাংলাদেশ নিয়ে অনেক ধরনের কথা বলা হত, যে বাংলাদেশ ঘূর্ণিঝড়ের দেশ, বাংলাদেশ মানে দুর্যোগের দেশ। কিন্তু আজকে কেউ এই কথা বলে না। গত এক দশকে আজকে বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে নিজের একটা স্থান করে নিতে পেরেছে।

দেশের উন্নয়নে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন উদ্যোগ ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথাও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।
“ইনশাল্লাহ, আমরা খুব শিগগিরই প্রতিটি ঘরে আলো জ্বালাতে সক্ষম হব, বলেন তিনি। গ্রামপর্যায়ে উন্নয়নের ছোঁয়া পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্য তুলে ধরে তিনি বলেন, কোনো গ্রাম আর অবহেলিত থাকবে না। গ্রামের মানুষ যারা বসবাস করে তারা সকল প্রকার নাগরিক সুবিধা পাবে। সেইভাবেই আমরা আমাদের প্রতিটি গ্রামকে সাজাতে চাই, গড়ে তুলতে চাই এবং কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাও আমরা করে দিতে চাই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের একটি মানুষও গৃহহারা থাকবে না, ভূমিহীন থাকবে না, বিনা চিকিৎসায় মারা যাবে না, শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত হবে না। সেই নীতিমালা নিয়েই আমরা রাষ্ট্রপরিচালনা করছি। সে ক্ষেত্রে যথেষ্ট অগ্রগতি আমরা লাভ করেছি। শোষিত-বঞ্চিত মানুষের অধিকার আদায়ে বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামের কথা তুলে ধরার পাশাপাশি বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠনে তার ভূমিকার কথা উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা।

অনুষ্ঠানে ডিফেন্স সার্ভিসেস কমান্ড ও স্টাফ কলেজের কম্যাড্যান্ট মেজর জেনারেল মো. এনায়েত উল­াহ স্বাগত বক্তৃতা করেন। বাংলাদেশ সেনা বাহিনীর ১২৫ জন, নৌ বাহিনীর ৩৪ জন এবং বিমান বাহিনীর ২২ জন ছাড়াও ২১ দেশ থেকে আগত ৫৪ জন বিদেশী অফিসার সহ মোট ২৩৫ জন শিক্ষার্থী এ বছর এ কলেজ থেকে গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করেছেন।
উলে­খ্য, ডিফেন্স সার্ভিসেস কমান্ড এন্ড স্টাফ কলেজ বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর একটি আন্তর্জাতিক মানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। সশস্ত্র বাহিনীর মধ্যপর্যায়ের নির্বাচিত কর্মকর্তাদের কমান্ড স্টাফ হিসেবে ভবিষ্যতের গুরু দায়িত্ব পালনে দক্ষ করে গড়ে তোলার উদ্দেশ্যে এই প্রতিষ্ঠান কাজ করে যাচ্ছে।
প্রতিষ্ঠার পর থেকে এ পর্যন্ত ‘ডিফেন্স সার্ভিসেস কমান্ড ও স্টাফ কলেজে’ সেনাবাহিনীর ৪৪টি, নৌবাহিনীর ৩৮টি এবং বিমানবাহিনীর ৪০টি স্টাফ কোর্সে ৫ হাজার ২৫৩ জন সাফল্যের সঙ্গে কোর্স সম্পন্ন করেছেন। এরই মধ্যে ৪২টি বন্ধুপ্রতিম দেশের ১ হাজার ১৬৫ জন অফিসারও এ কলেজ থেকে গ্র্যাজুয়েশন করেছেন। প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে গ্র্যাজুয়েশন করা অফিসারদের হাতে সনদ তুলে দেন।
২১ টি দেশের মধ্যে রয়েছে- যুক্তরাষ্ট্র, চীন, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, কুয়েত, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ, নেপাল, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান, ফিলিস্তিন, ফিলিপাইন, সৌদি আরব, সিয়েরা লিয়ন, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা, সুদান, তানজানিয়া, তুরস্ক, উগান্ডা এবং জাম্বিয়া।
অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে মন্ত্রিপরিষদ সদস্যবৃন্দ, তিন বাহিনী প্রধানগণ, সশস্ত্রবাহিনী বিভাগের পিএসও সহ সরকারের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এবং উর্ধ্বতন বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin