বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১২ অপরাহ্ন


বিধবা কৃষাণীর ধান কেটে দিলেন স্কাউটস সদস্যরা

বিধবা কৃষাণীর ধান কেটে দিলেন স্কাউটস সদস্যরা


শেয়ার বোতাম এখানে

আল আমিন, সুনামগঞ্জ :
সুনামগঞ্জের হাওরগুলো পেকেছে সোনালী ধান। প্রতিবছরই হাওরে শ্রমিক সংটক থাকে এর মধ্যে এবছর মহামারি করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক। পাকা ধান নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন হাওরপাড়ের বিধবা কৃষাণী বিজয়া রাণী রায়। তিনি এবছর দুই ভিগা জমিতে চাষ করেছেন বোরো ধান।

কিন্তু ধান ঘরে তোলা নিয়ে চিন্তিত ছিলেন। স্বামী হারা বিজয়া রাণী রায়ের পরিবারের চালিকা শক্তি কৃষি ফসল (ধান)। চিন্তিত এই বিধবার হাওরে ধান কেটে দিয়ে পাশে এসে দাড়ালেন দিরাই সরকারি কলেজের রোবার স্কাউটস সদস্যরা।

মঙ্গলবার দুপুর থেকে বরাম হাওরে এই বিধবার জমিতে ধান কাটতে শুরু করেছেন তারা। জানা গেছে, বিজয়া রাণী রায়ের স্বামী চার মেয়ে ও এক ছেলে রেখে গত সাত বছর আগে মারা যান। চার মেয়েকে তিনি বিয়ে দিয়েছেন। ছেলে সেলাই এর কাজ করে স্থানীয় একটি দোকানে।

প্রতিবছর বিভিন্নভাবে হাওরের ধান ঘরে তোলেন কিন্তু এবছর শ্রমিক না পাওয়ায় দিরাই উপজেলার দিরাই সরকারি কলেজ রোবার স্কাউটস’র টিম লিডার শরিফ রাব্বানীসহ আট সদস্য ও কলেজের প্রভাষক (তথ্য ও প্রযুক্তি) মিজানুর রহমান পারভেজ এবং স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মী জাকারিয়া জোসেফসহ ১০ জনে উদ্যেগ নেন এই বিধবা বিজয়া রাণীর পাকা ধান কেটে দিতে।

দুপুরে তারা হাতে গ্লাভস আর সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ধান কাটা শুরু করেন। তাদের এই ধান কাটা দেখে স্থানীয়রা সাধুবাদ জানিয়েছেন।

স্কাউটস সদস্যরা জানালেন,‘হাওরাঞ্চলের সবসময় শ্রমিক সংকট থাকে। এবছর করোনা ভাইরাসের কারণে হাওরে বের হচ্ছে না কৃষকরা। হাওরে এবাচর বাম্পার ফলন হয়েছে কিন্তু কিছু দিনপর বৃষ্টি হতে পারে তাই বোরো ফসল হুমকির মুখে থাকবে।

কৃষকদেরকে হাওরে ধানকে কাটতে উৎসাহ দিতে তারা বিনা পারিশ্রমিকে ধান কেটে দিচ্ছেন। তাদের ধান কাটা দেখে কৃষকরা করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক দূর হবে এবং হাওরে ধান কাটতে বের হবেন।

বিধবা কৃষাণী বিজয়া রাণী রায় স্কাউটস সদস্যের প্রতি ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, অনেক দিন ধরে ধান কাটার শ্রমিক খোঁজছিলাম কিন্তু পাইনি। করোনাস ভাইরাসের কারণে কেউ ঘর থেকে বের হতে চায় না। স্কাউটসের ছেলেরা ধান কেটে না দিলে হয়তো এবছর ঘরে সোনালী ধান তোলা হতো না। না খেয়ে মরতে হতো। বোরো ধান থেকে আমাদের সংসার চলে। তারা এগিয়ে আসাতে এবছর শান্তিতে বসবাস করতে পারবো।

স্কাউটস টিম লিডার শরিফ রাব্বানী বলেন,করোনা ভাইরাসের কারণে কৃষকরা ধান কাটতে বের হচ্ছেন না। আরেক দিকে শ্রমিক সংকট। আমরা শুনেছি ওই্ বিধবা বিজয়া রাণীর জমিতে ধান পেকেছে। কিন্তু ধান কাটার শ্রমিক পাচ্ছেন না। এনিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলেন তিনি। তাই আমরা দিরাই সরকারি কলেজের রোবার স্কাউটসের উদ্যেগ হাওরে উনার জমিতে ধান কেটে দিচ্ছি।

স্থানীয় গনমাধ্যমকর্মী জাকারিয়া হোসেন জোসেফ বলেন, রোবার স্কাউটস সদস্যদের সাথে অসহায় মহিলার ধান কেটে দিতে পেরে ভালো লাগছে। সবাই যদি হাওরে পাকা ধান কাটতে এগিয়ে আসেন তাহলে বন্যার হাত থেকে বোরো ফসলটি তোলা যাবে। যাদের হাতে বই খাতা থাকার কথা শ্রমিক না থাকায় তারা এখন হাওরের ধান কাটতে কাচি হাতে নিয়েছে। স্কাউটসের ছাত্ররার ধান কাটা দেখে এলাকাবাসী সাধুবাদ জানান।

দিরাই সরকারি কলেজের প্রভাষক(তথ্য ও প্রযুক্তি) মিজানুর রহমান পারভেজ বলেন,‘হাওরে ধান কাটতে শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না স্কুলের স্কাউটসের ছেলেরা জানালেন বরাম হাওরে একজন বিধবা মহিলার দুই ভিগা জমিতে ধান পেকেছে কিন্তু ধান কাটাতে পারছেন না। তারা আটজন উদ্যেগ নিলেন এই ধান কেটে দিবেন তাদের সাথে আমিও ধান কেটেছি। নিজের দায়বদ্ধতা থেকে এই বিধবা মহিলার ধান কেটে দিতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে হচ্ছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin