সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৪৬ পূর্বাহ্ন


বিভক্ত জুড়ি বিএনপি মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তির বংশধর নাসির উদ্দিন!

বিভক্ত জুড়ি বিএনপি মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তির বংশধর নাসির উদ্দিন!


শেয়ার বোতাম এখানে

ইয়াকুব আলী, জুড়ি থেকে ফিরে
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সর্বশেষ প্রচারণা চলছে। হিসেব কষছেন সবাই। প্রচারণায় পিছিয়ে নেই আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ বিভিন্ন দলের ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। শেষমেশ প্রচারণায় জমে উঠেছে মৌলভীবাজার-১ আসনের বড়লেখা-জুড়ির রাজনৈতিক মাঠ। বিশেষ করে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থীকে নিয়ে চাঙ্গা হয়ে উঠেছেন সবাই, মেতে উঠেছেন বিতর্কে। সাধারণ মানুষের মধ্যেও বিরাজ করছে নির্বাচনী আবেশ। কিন্তু সবকিছু ছাপিয়ে বিতর্কে উঠে এসেছেন বিএনপি প্রার্থী নাছির উদ্দিন মিঠু। তাকে ঘিরে আগে থেকেও জুড়ি বিএনপির মধ্যে ছিল নানা কোন্দল ও দলাদলী। মনোনয়ন পাওয়ার পর এ কোন্দল আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। বিএনপির বেশিরভাগ নেতাকর্মী আওয়ামী লীগের সাথে যুক্ত হচ্ছেন এবং নির্বাচনি মাঠে নৌকার পক্ষে গণসংযোগ করে চলেছেন। এ নিয়ে বিপাকে পড়েছেন বিএনপি প্রার্থী।

 

প্রশ্ন উঠেছে বর্ষীয়ান নেতা বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য এবাদুর রহমান নির্বাচনের মাঠ থেকে সরে দাড়ানো এবং নির্বাচনি প্রচারণায় অংশ না নেয়। এরকম হাজির বাড়ির কাউকে তেমন সক্রীয়ভাবে প্রচারণায় দেখা যাচ্ছে না। বরং হাজির বাড়ির অন্যতম সদস্য এবং পূর্ব জুড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সালেহ আহমদ গত জাতীয় নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হন।

 

বর্তমানে জুড়ি বিএনপি কয়েকটি ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন। এমনকি সাধারণ মানুষের মনেও রয়েছে বিরূপ প্রতিক্রিয়া। নাছির উদ্দিন মিঠু এর আগে জুড়ি উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিপুল ভোটে পরাজিত হয়েছিলেন। এর পেছনে কী কারণ জানতে চাইলে এলাকার অনেক প্রবীণ ব্যক্তি মন্তব্য করেন, তাদের পরিবারে দেশ বিরোধী মনোভাব রয়েছে। তারা অভিযোগ তুলেন নাছির উদ্দিন মিঠুর পিতা আপ্তাব উদ্দিন মহালদার মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানিদের সহযোগীতা করেছেন। আর এ জন্যই এলাকার দেশপ্রেমীক জনগণ তাকে স্থানীয় নির্বাচনে বিপুল ভোটে প্রত্যাখাত করেন।

 

বিএনপির জুড়ির উপজেলার শীর্ষ বিএনপি পরিবারখ্যাত গিয়াস চেয়াম্যানের পরিবার। এবারের নির্বাচনে তারা নৌকার পক্ষে প্রকাশ্যে গনসংযোগ, পথসভা, সমাবেশ করছেন। নৌকার পক্ষে নির্বাচনি প্রচারণায় অংশ নিতে গিয়াস চেয়ারম্যানের ভাই বিএনপি নেতা নাসির উদ্দিন দেশে এসেছেন। তিনি গত উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিএনপির হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন। বর্তমানে দেশে এসে বিপুল পরিমাণ নেতা কর্মীকে নিয়ে আওয়ামী লীগের সাথে সম্পৃক্ত হয়েছেন। পূর্বজুড়ি ইউনিয়নের বড়ধামাইস্থ নিজের বাড়িতে নৌকার পক্ষে বিশাস জনসভারও আয়োজন করেন। জুড়ি উপজেলার বিএনপির সিনিয়র সদস্য থেকে এলাকার প্রবীণ ব্যক্তিবর্গ নাসির উদ্দিনের ডাকে সাড়া দিয়ে নৌকার পক্ষে কাজ করার প্রতিশ্র“তি দেন। ফলে বিএনপি প্রার্থী নাসির উদ্দিন মিঠু ও জুড়ি বিএনপির জন্য মারাত্মক আঘাত এনেছে।
জানা যায়, উপজেলা নির্বাচনে নাসির উদ্দিন মিঠু প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সময় গিয়াস চেয়ারম্যান পরিবার তাঁকে সহযোগীতা করেন। কিন্তু উপজেলা চেয়ারম্যান প্রয়াত এম এ মুহিত আসুকের মৃত্যুর পর উপনির্বাচনে গিয়াস চেয়ারম্যান পরিবারের সদস্য নাসির উদ্দিন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলে মিঠু কোন ধরণের সহযোগীতা করেননি। বরং বিরোধীতা করেছেন এমন অভিযোগও উঠে। সেই থেকে গিয়াস চেয়ারম্যান পরিবার ও নাসির উদ্দিন মিঠু পরিবারের মধ্যে দ্বন্দ্ব তীব্র আকার ধারণ করে। যার প্রতিফলে এবারের নির্বাচনে গিয়াস চেয়ারম্যান পরিবার পুরোপুরি বিরোধীতা করছেন। এমনকি নেতারা প্রকাশ্যে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সংসদ সদস্য শাহাব উদ্দিনের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন।

 

স্থানীয় বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদলের নেতাকর্মীরাও বিভক্তভাবে নির্বাচনি মাঠে ছড়িয়ে পড়েছেন। কেউ কেউ আওয়ামী লীগের সাথে প্রকাশে আবার কেউ নাছির উদ্দিন মিঠুর সাথে গণসংযোগ ও প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন। তবে বৃহৎ অংশই নিস্ক্রীয় অবস্থানে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রদল নেতা। তিনি বলেন, দলীয় রাজনীতির ময়দানে এখনই বিএনপির সকল নেতাকর্মীর মাঠে থাকার কথা কিন্তু দলীয় ও ব্যক্তিগত কোন্দলে বেশিরভাগ নেতাকর্মী এখনও নিস্ক্রীয় রয়েছেন। যা বিএনপির জন্য খুবই দুঃখজনক।

 

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, হাজির বাড়ি ও মহালদার বাড়ির মধ্যে দ্বন্দ্ব বহুদিন থেকেই আছে। হাজির বাড়ির লোকজন প্রয়াত বিএনপির অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমানের গ্র“প করতেন। সেই সুত্রে এবাদুর রহমানের সাথে রাজনীতি করে আসছেন। এবাদুর রহমান নির্বাচন থেকে সরে দাড়ানোতে হাজির বাড়ি খ্যাত বিএনপির নেতারা রাজনৈতির মাঠে এখন তেমন সক্রীয় নয়।

 

উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান সুমন বলেন, আমার বাবা মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল গণি। নাছির উদ্দিন মিঠুর পিতা পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর সহযোগী হিসেবে একাত্তরের সময় এলাকার মুক্তিপ্রেমী ও সাধারণ মানুষকে নির্যাতন করেছেন। তার নেতৃত্বে আমার বাবাকেও চরম নির্যাতন করা হয় এবং মৃত ভেবে জুড়ি হাইস্কুলের ডুবায় ফেলে চলে যায় পাকিস্তানিরা। আজ উনার ছেলে বিএনপির প্রার্থী। মানুষ তাকে কোনভাবেই গ্রহণ করবে না। যতই পেশী শক্তি ও টাকার জোর থাকুক না কেন, মানুষ উন্নয়নের পক্ষে ও স্বাধীনতার মার্কা নৌকাকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করবে।

 

মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস ছাত্তার বলেন, নাছির উদ্দিন মিঠু একজন দেশবিরোধীর ছেলে। আমি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করায় আমার বাবাকে পাকিস্তানিরা তুলে নিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে। এর পেছনে আফতাব উদ্দিন মহালদারের হাত ছিল। মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তি আজ বিএনপির প্রার্থী ভাবতে অবাক লাগে। আরও অবাক লাগে আজকালকার কয়েকটা যুবকও এই শক্তির পেছনে কাজ করছেন নির্বাচনি প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন। তাদের কাছে আমার প্রশ্ন কিসের জন্য, কোন লোভে নাছির উদ্দিন মিঠুর পেছনে নির্বাচনি প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন?

 

জুড়ি উপজেলা আওয়ামী ওলামালীগের সভাপতি রুস্তুম আলী বলেন, সাধারণ জনগণ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে বিজয়ী করবে। সমস্ত উপজেলা তথা জুড়ি বড়লেখায় বর্তমান সংসদ সদস্য শাহাব উদ্দিনের গ্রহণযোগ্যতা আছে। তিনি বিগত ১০ বছরে অভুতপূর্ব উন্নয়ন করেছেন। এ উন্নয়ন অভ্যাহত রাখতে মানুষ নৌকাকে ভোট দেবে এ আমার বিশ্বাস।

 

বিএনপি প্রার্থী নাছির উদ্দিন মিঠু তার বাবার উপর আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমার বাবা মুক্তিযুদ্ধের সময় নিস্ক্রীয় ছিলেন। আমি মুক্তিযুদ্ধকে বিশ্বাস করি। সাধারণ মানুষের মুক্তির জন্য নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছি। আমার কাজের প্রতি আশ্বাস রেখে বিএনপি আমাকে মনোনীত করেছে। মানুষের ভালোবাসায় এবং গণতন্ত্রের নেত্রী খালেদা জিয়াকে মুক্তির জন্য জুড়ি বড়লেখার মানুষ আমাকে নির্বাচিত করবেন।

 

জুড়ি বড়লেখায় ধানের শীষ বিজয় সম্পর্কে তিনি বলেন, মানুষ নৌকার প্রতি আশ্বাস হারিয়ে ফেলেছে। তারা ধানের শীষে ভোট দিয়ে এই বন্ধিদশা থেকে মুক্তি পেতে চায়।
এদিকে পশ্চিম জুড়ি ইউনিয়নের ইউপি সদস্য তাজিম আহমদ প্রায় ২শত নেতাকর্মী নিয়ে আওয়ামী লীগে যোগদান করেছেন বলে জানান স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin