বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:১৫ পূর্বাহ্ন


বিশ্বনাথে আনন্দ-উচ্ছ্বাসে পলো বাওয়া উৎসব : কেউ ফিরেন নি খালি হাতে

বিশ্বনাথে আনন্দ-উচ্ছ্বাসে পলো বাওয়া উৎসব : কেউ ফিরেন নি খালি হাতে


শেয়ার বোতাম এখানে

নবীন সোহেল
সকাল ৮টা থেকে মাছ ধরার জন্য পলো, জালসহ বিভিন্ন যন্ত্র হাতে নিয়ে জড়ো হতে থাকেন সৌখিন মাছ শিকারিরা। বাদ যায়নি শিশু-কিশোরও। এরপর বিলের পাড়ে বসে চলে মাছ ধরার প্রস্তুতি। প্রতিটি মূহুর্ত ক্যামেরাবন্ধী করতে গণমাধ্যামকর্মিরাও অপেক্ষামান।

এরপর সকাল ১০ টা ৩৫ মিনিটে গ্রামের মুরব্বিরা পলো বাওয়ার আহ্বান জানান। সঙ্গে সঙ্গে আনন্দ চিৎকার দিয়ে বিলে ঝাঁপিয়ে পড়েন অপেক্ষমাণ শিকারিরা। একটু পরপরই বিল থেকে শিকারিদের ঝুলিতে ভরতে দেখা যায় বোয়াল, ঘাঘট, রুই, কাতলা, মৃগেল, শোল, গজার মাছ। আর জাল দিয়ে পুটি, মলা-ঢেলা, টেংরা ও রাণী মাছ ধরতে দেখা যায়। খালি হাতে ফিরেন নি যেন কেউই।

সিলেটের বিশ্বনাথের গোয়াহরি বড় বিলে গিয়ে শনিবার দেখা মিলল এমন দৃশ্য।

প্রায় ২০০ বছর ধরে এই ঐতিহ্য হিসেবে বিলটিতে প্রতিবছরের মাঘ মাসের প্রথম দিনে অনুষ্ঠিত হয় এই পলো বাওয়া উৎসব। তবে এবছর বিলের পানি কমে যাওয়ার কারণে ভাদ্র মাসেই অনুষ্ঠিত হয় এই উৎসব। দিনটিকে ঘিরে উৎসবের আমেজ বিরাজ করে উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের গোয়াহরি গ্রামজুড়ে।

গ্রামবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, পলো বাওয়া উৎসবকে কেন্দ্র করে গোয়াহরি গ্রামে কয়েক দিন ধরে চলে উৎসবের আমেজ। গ্রাম পঞ্চায়েতের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিলে সব ধরনের মাছ শিকার নিষিদ্ধ করা হয়। পলো বাওয়া উৎসবের জন্য মাছের অভয়ারণ্য হিসেবে গড়ে তোলা হয় বিলটিকে। প্রতি বছর মাঘ মাসের পহেলা তারিখ অনুষ্ঠিত হলে এবছর বিলে পানি কমে যাওয়ার কারণে ৫ ভাদ্র উসবের জন্য তারিখ নির্ধারণ করা হয়। এরপর থেকে গ্রামের উৎসবের আমেজ বিরাজ করে। চলে পলো বাওয়ার প্রস্তুতি। ব্যস্ত হয়ে পড়েন পলো সংগ্রহ, মেরামতের কাজে। উৎসবকে ঘিরে ঘরে ঘরে আসতে থাকে অতিথি। বিয়ে হয়ে যাওয়া গ্রামের মেয়েরা স্বামী-সন্তান নিয়ে নাইওর আসেন বাবার বাড়িতে। এছাড়া এই দিনটিকে ঘিরে প্রবাস থেকেও ছুটে আসেন প্রবাসীরা। এভাবে বিগত দুই শত ভচর ধরে চলছে গোয়াহরি বড় বিলের মাছ ধরার সংস্কৃতি।

যুক্তরাজ্য প্রবাসী নুরুজ্জামান নুরু বলেন, পরিবার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে প্রবাসে থাকি। গ্রামে পলো বাওয়ায় অংশ নিতে সুযোগ পেলে সময় মিলিয়ে বাড়িতে চলে আসি। আমাদের বাপ-দাদারা আগে থেকে বিলে মাছ শিকার করতেন।
গ্রামের বাসিন্দা আরাফাত মো. আব্দুর রব, ইকবাল হোসাইন, ছুরত খান, আব্দুল কাহার বলেন, ‘আমাদের পূর্বপুরুষেরা প্রায় দুইশ বছর থেকে বিলে পলো দিয়ে মাছ শিকার করে আসছেন। আমরা এই ঐতিহ্য ধরে রাখতে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ও গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য গোলাম হোসেন বলেন, উপজেলায় এটিই সবচেয়ে বড় পলো বাওয়া উৎসব। যুগ যুগ ধরে এ ঐতিহ্য গোয়াহরিবাসী ধরে রাখার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। আমরা চাই এ ঐতিহ্য টিকে থাকুক যুগ যুগ ধরে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin