রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০১:০৫ অপরাহ্ন


বিশ্বনাথে ছাত্রলীগের ইউনিয়ন কমিটিতে স্থান পেলেন মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে থাকা তরুণ!

বিশ্বনাথে ছাত্রলীগের ইউনিয়ন কমিটিতে স্থান পেলেন মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে থাকা তরুণ!


শেয়ার বোতাম এখানে

প্রতিদিন ডেস্ক:: সিলেটের বিশ্বনাথে নবগঠিত দুটি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে সর্বত্র বইছে আলোচনা সমালোচনা ঝড়। প্রতিবাদ মিছিলের পাশাপাশি চলছে তোলপাড় আর ক্ষুভে ফুঁসছেন বঞ্চিত হওয়া ত্যাগী ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। কমিটিতে অছাত্র, টুকাই, মোবাইল চোর, মাদকাসক্ত আর অপরিচিতদের টাই দেয়া হয়েছে। শুধু তাই নয়, অনেক গুরুত্বপূর্ণ পদেও স্থান দেয়া হয়েছে জামায়াত ও বিএনপি পরিবারের ছেলেদের।

উপজেলা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি পার্থ সারতি দাস পাপ্পু ও সাধারণ সম্পাদক মোবারক হোসাইন একক সিদ্ধান্ত নিয়ে টাকার বিনিময়ে গুরুত্বপূর্ণ এই কমিটিতে জামায়াত, বিএনপি, টুকাই, মোবাইল চোর আর অপরিচিতদেরকে স্থান দিয়েছেন বলে বিস্তর অভিযোগ পাওয়া যায়।

অভিযোগ করে আ’লীগ ও ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী বলেন, কমিটিগুলো করার পূর্বে কোনো মতবিনিময় সভা, কোনো কর্মীসভা অথবা কাউকে সমন্বয় না করেই অনেকটা গোপনে এদুটি পকেট কমিটি করা হয়েছে। নবগঠিত কমিটিতে স্থান পাওয়া অনেকেই জানেন না তারা কমিটিতে এসেছেন। ফলে আ’লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের অনেক নেতাকর্মীদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। বির্তকীত এই দুটি কমিটির বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে প্রতিবাদ মিছিলও হয়েছে। দু’টি কমিটি গঠনের চারদিন অতিবাহিত হতে না হতেই পদত্যাগের হিড়িক পড়েছে।

জানাযায়, চলতি ২০ সেপ্টেম্বর উপজেলার রামপাশা ইউনিয়ন ও দশঘর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করে অনুমোদন দেন উপজেলা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। তার মধ্যে দশঘর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটিতে সভাপতি বানানো হয়েছে ছাত্রদল নেতা জহিরুল ইসলাম জাহির’কে ও সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে ইউনিয়ন বিএনপির সহ সভাপতির ছেলে সুজাদ আহমদ’কে। ওই কমিটির ৩নং সহ-সভাপতি মাজহারুল ইসলাম কবির একজন মাদকাসক্ত। তিনি প্রায় চারমাস ধরে সিলেটের ‘প্রতিশ্রুতি’ নামক মাদকাসক্তি একটি পূনর্বাসন কেন্দ্রে চিকিৎসাধিন আছেন।

এই কমিটির উপর অসন্তোষ হয়ে অনেকেই পদত্যাগ করেছেন। আর রামপাশা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটিতে স্থান পেয়েছেন অনেক অছাত্র, জামায়াত, বিএনপি, টুকাই ও মোবাইল চোর। ওই কমিটির সাধারণ সম্পাদক পদে জামায়াত পরিবারের তারেক আহমদ নামের একজনকে দেয়া হয়েছে। আর বিএনপির পরিবার থেকে রেজাউল করিমকে দেয়া হয়েছে সহ-সভাপতি পদে। এই কমিটির অনেক সদস্যকে কেউ চেনেন না বলেও জানান সদ্য সাবেক অনেকেই।

এবিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি পার্থ সারতী দাস পাপ্পু টাকা খেয়ে অছাত্র, মাদকাসক্ত, টুকাই ও মোবাইল চোরদের কমিটিগুলোতে স্থান দেয়ার বিষয় অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন যারা আমাদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ এনেছেন তারা কেউই ছাত্রলীগ নয়, তারা সবাই জামাত বিএনপির এজেন্ট বলে দাবি করেছেন।

সাধারণ সম্পাদক মোবারক হোসাইন তাদের উপর আনিত সকল অভিযোগ মিথ্যা দাবি করে বলেন, ভাইয়ের বলয়কে শক্তিশালি করতে তাদের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ আনা হচ্ছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin