মঙ্গলবার, ১৬ Jul ২০২৪, ০৭:১২ অপরাহ্ন


বিশ্বনাথ উপজেলা চেয়ারম্যান নুনু মিয়ার বিরুদ্ধে মামলার হিড়িক : মামলার সংখ্যা দাড়ালো ৮

বিশ্বনাথ উপজেলা চেয়ারম্যান নুনু মিয়ার বিরুদ্ধে মামলার হিড়িক : মামলার সংখ্যা দাড়ালো ৮


শেয়ার বোতাম এখানে

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি:: সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্ঠা এসএম নুনু মিয়া ও তার পিএস দবিরের বিরুদ্ধে আর দুইটি মামলা করেছেন ভূক্তভোগিরা। এনিয়ে টাকা আত্মসাতের ৭টি ও সাইবার ট্রাইব্যুনালের একটিসহ মোট ৮টি মামলায় অভিযুক্ত হয়েছেন উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম নুনু মিয়া।

জানাগেছে, সোমবার দুপুরে সিলেটের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ১ম আদালতে পৃথক দুটি মামলা করেন উপজেলার গোবিন্দ গঞ্জের খোজারপাড়া গ্রামের আব্দুর রহিমের পুত্র দিলোয়ার হোসেন, (বিশ্বনাথ সিআর মামলা নং-৩৫৬/২৩)। একই আদালতে পৃথক মামলাটি দায়ের করেন গোবিন্দগঞ্জের সাহেবনগর খোজারখলা গ্রামের আব্দুল মুকিতের ছেলে সামছুল হক, (বিশ্বনাথ সিআর মামলা নং-৩৫৭/২৩)। দুই মামলাই এসএম নুনু মিয়ার পিএস দবির মিয়াকে ১নং আসামী ও উপজেলা চেয়ারম্যান নুনু মিয়াকে ২নং আসামী করা হয়েছে। অভিযুক্ত দবির পৌরসভার মিয়াজানেরগাঁও গ্রামের মৃত সাজিদ মিয়ার ছেলে। আর একটি মামলায় ৩নং আসামী করা হয়েছে আমতৈল গ্রামের মুসা মিয়া নামের এক ব্যাক্তিকে। দুটি মামলায় গভীর নলকূপ ও ওয়াসব্লক দেয়ার নামে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে। দুটি মামলার সত্যতা জানিয়ে বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট জুয়েল আহমদ বলেন, মামলা দুটি তদন্তের জন্য বিশ্বনাথ ওসি তদন্তকে তদন্তের জন্য দায়িত্ব প্রদান করেছেন বিজ্ঞ আদালত।

এদিকে, গত ১০ সেপ্টেম্বর সিলেটের সিনিয়র জুডিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট প্রথম আদালতে পৃথক আরও তিনটি মামলা দায়ের করেন উপজেলার লামাকাজী ইউনিয়নের তিন ভূক্তভোগী। মামলা তিনটিরই শুনানি শেষে আদালতের বিচারক অভিযোগ আমলে নিয়ে তদন্তের জন্যে সিলেটের গোয়েন্দা (সিআইডি) পুলিশকে দায়িত্ব প্রদান করেছেন। একই সঙ্গে আগামি ২৩ অক্টোবরের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করার নির্দেশ প্রদান করেছেন। মামলাগুলো যথাক্রমে বিশ্বনাথ সিআর ৩৪৬/২০২৩, বিশ্বনাথ সিআর ৩৪৫/২০২৩ ও ‘বিশ্বনাথ সিআর ৩৪৪/২০২৩)। মামলার বাদী তিনজন হলেন, দিঘলী (দত্তপুর) গ্রামের রইছ উদ্দিন (৫৫), উপজেলার বশিরপুর (উত্তর সিরাজপুর) গ্রামের জমির আলী (৪০) এবং একানিধা গ্রামের মোতাওয়াল্লী মো. আব্দুল্লাহ (৫০)।

এরআগে গত ২২ আগস্ট সরকারি বরাদ্দের নামে ৪ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে নুনু মিয়া ও তার পিএস দবিরসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন খাজাঞ্চী ইউনিয়ন যুবলীগের সহসভাপতি জামাল আহমদ। মামলার শুনানি শেষে আদালতের বিচারক অভিযোগটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করতে সিলেটের ওসমানীনগর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামানকে দায়িত্ব দিয়েছেন।
অপরদিকে, গত ৫ সেপ্টেম্বর উপজেলা চেয়ারম্যান নুনু মিয়ার বিরুদ্ধে বিশ্বনাথ উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য শ্রমিকনেতা মো. ময়না মিয়া সিলেটের সাইবার ট্রাইব্যুনালে এ মামলা করেন। মামলায় নুনু মিয়াকে একমাত্র আসামি করা হয়। মামলাটি গ্রহণ করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দেন ট্রাইব্যুনাল।

একইদিন সিলেট সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ১ম আদালতে পৌর শহরের মুফতিরগাঁও গ্রামের মৃত তজম্মুল আলীর ছেলে ও উপজেলা যুবলীগ নেতা রাজন আহমদ অপু বাদী হয়ে নুনু মিয়ার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেন, (বিশ্বনাথ সিআর মামলা নং ৩৩৮/২৩)।
তবে, এসকল অভিযোগ অস্বীকার করেছেন উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম নুনু মিয়া। তিনি বলেন, সুবিধা না পেয়ে একটি পক্ষ তার বিরুদ্ধে এসব মিথ্যা মামলা দায়ের করাচ্ছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin