শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১, ০৬:৫৬ পূর্বাহ্ন

বিশ্বব্রহ্মাভ

বিশ্বব্রহ্মাভ


শেয়ার বোতাম এখানে

আজিজুস সামাদ আজাদ ডন.

ব্রেইনের খেলা :

মানুষের ব্রেইনের মৌলিক্তত্ব হল তার আবেগীয় অংশ। আমাদের ব্রেইন হল সকল তথ্য প্রসেসিং কেন্দ্র, আর ব্রেইন তথ্য গুলো সংগ্রহ করে আমাদের পঞ্চ ইন্দ্রিয়, তথা, দৃশ্য, শ্রব্য, স্পর্শ, ঘ্রাণ, স্বাদ ব্যবহার করে। শুধুমাত্র একটি উদাহরণ দিয়েই বোঝা যায় যে, ব্রেইনের লীলাখেলা বোঝা দায়। যেমন, আমাদের চোখ যা দেখছে সেটাকে উল্টিয়ে দিয়ে আমাদের ব্রেইন আমাদেরকে বুঝিয়ে দিচ্ছে, তুমি যা দেখছো সেটা সঠিক নয় বরং আমি যেভাবে বলছি সেটাই সঠিক। একই ভাবে কোন বস্তুর স্বাদ, আকার কি কিংবা শরীরের কোন অংশে আমরা কতক্ষণ যাবৎ (সময়) কতটা ব্যাথা অনুভব করছি ইত্যাদি যাবতীয় সব বিষয়েই ব্রেইন আমাদের সর্বোচ্চ সিদ্ধান্ত দিয়ে দিচ্ছে, আর আমরাও মেনে নিচ্ছি।

শেখানোর এই পদ্ধতি কিন্ত শুরু হয় জন্মের পর থেকেই। সেটা বোঝার জন্য একটি শিশুর বেড়ে ওঠা দেখাই যথেষ্ঠ।
ব্রেইনের কার্যক্রমকে আলাদা করে প্রাধান্য দেয়ার মানে এই নয় যে, শরীরের অন্যান্য অঙ্গ প্রত্যঙ্গের কোন নিজস্ব পরিচালন ক্ষমতা এবং কার্যক্রম নেই, সবই ব্রেইন করে দিচ্ছে। মোটেই তা নয়। আমরা আগেই বলে এসেছি যে, বস্তুগত হিসেব অনুযায়ী মানুষ যেমন শুন্য, তেমনি এই মহাবিশ্বও শুন্যই। সেই হিসেবে প্রতিটি অঙ্গ প্রত্যঙ্গও শুন্যই। তারপরও, যদি ব্রেইনের আলাদা ভাবে নিজস্ব পরিচালন শক্তি থাকতে পারে এবং অন্যান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গকে পরিচালিত করবার শক্তি থাকতে পারে, তাহলে অন্যান্য অঙ্গ প্রত্যঙ্গেরও অন্তত কিছুটা হলেও নিজস্ব পরিচালন সিদ্ধান্ত শক্তি আছে, যে শক্তি তারা তৈরী করেছে প্রতিটি অঙ্গ প্রত্যঙ্গের প্রতিটি কোষের সৃষ্ট কম্পনের মাধ্যমে। সব অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের কম্পনাঙ্ককে এক সুরে গেঁথে আমাদের শরীর একটি ঐক্য তৈরী করে।

আমাদের ব্রেইন ডান এবং বাম দুই ভাগে বিভক্ত। বাম ভাগ কাজ করে যুক্তি দিয়ে ডান ভাগ কাজ করে আবেগ দিয়ে। ব্রেইনের যুক্তি দিয়ে বিচার করার এই সত্তাকে আমরা আলোচনার সুবিধার্থে ধরে নেই “যুক্তি” সত্তা, আরেকটি সত্ত্বার আমরা নাম দেই “আবেগ” সত্ত্বা। এই সত্ত্বা দুটোর আবার বিভিন্ন ডাইমেনশন আছে। আলোচনার সুবিধার্থে “যুক্তি” সত্ত্বা অংশের বিভিন্ন ডাইমেনশন নিয়ে কথা বলার সময় “মাত্রা” শব্দটি এবং “আবেগ” সত্ত্বার বিভিন্ন ডাইমেনশন নিয়ে কথা বলার সময় “স্তর” শব্দটি আমরা ব্যবহার করবো।
ব্রেইনকে আরও অনেক ভাগ, বিশেষ ক’রে চোখের সকল বৈশিষ্ট নিয়ে দৃষ্টির আড়ালে থাকা ব্রেইনের পাইনিয়াল গ্ল্যান্ড বা তৃতীয় নয়ন সবচেয়ে বেশী সমস্যা তৈরী করে দিয়েছে। এটা কি যুক্তির অংশে পরবে, না আবেগের অংশে পরবে? জীবনী শক্তির ভর কেন্দ্র গুলোর মাঝে এর কোন ভূমিকা আছে কিনা ইত্যাদি।

আমরা যখন কোন সিদ্ধান্ত নিতে যাই তখন আমার মাঝের এই দুই “যৌক্তিক” ও “আবেগীয়” সত্ত্বা সবসময় দুই মেরুতে অবস্থান করে, অর্থাৎ, যদি যুক্তি সত্ত্বা “হ্যা” বলে তবে আবেগ সত্ত্বা “না” বলবেই। কিন্ত শেষ পর্যন্ত কোন এক অজ্ঞাত কারণে দুই সত্ত্বা নিজেদের মধ্যে আপোষ করে এবং একটি সিদ্ধান্ত নেয়। এখন সমস্যা দাঁড়ালো, ব্রেইনের দুইটি সত্ত্বা নিজেদের মধ্যে আপোষ রফা ক’রে আমাকে শেখাচ্ছে, বলে দিচ্ছে কি, কে, কেন, ভাল, মন্দ ইত্যাদি বিষয়গুলো, তাহলে তো অবশ্যই আরেকটি সত্তা আমার মাঝে বিরাজমান, যাকে কষ্ট করে ব্রেইনের দুই সত্তা মিলে বোঝাচ্ছে।।

যৌক্তিক “মাত্রা”
ব্রেইনের যৌক্তিক অংশ, অর্থাৎ “মাত্রা” স্থান সূচক নিয়ে কাজ করে। যেমন “শুন্য” মাত্রা একটি স্থান সূচক যার কোন দৈর্ঘ্য, প্রস্ত, উচ্চতা নেই। যখন এই ধরনের দুটি শুন্য মাত্রা একে অপরের সাথে যুক্ত হ’য়ে একটি রেখা তৈরী করে যার শুধু দৈর্ঘ্যই থাকবে কিন্ত কোন প্রস্থ বা উচ্চতা থাকবে না তখন সেটাকে বলা হচ্ছে প্রথম মাত্রা। এই প্রথম মাত্রা দিয়ে আমি যএ ভাবেই চলি না কেন, আমার অবস্থান রেখার বাইরে নয়।
দ্বিতীয় মাত্রা স্বাভাবিক ভাবেই পরের মাত্রা, যখন প্রথম মাত্রার দুটি রেখাকে আরও দুটি রেখা দিয়ে যুক্ত করে একটি ক্ষেত্র তৈরী হবে, যার দৈর্ঘ্য, প্রস্থ আছে কিন্ত উচ্চতা নেই। এবার কিছুটা ফ্লেক্সিবিলিটি বাড়লো। এই মাত্রায় এসে আমি কিছুটা নয় ছয় করতে পারবো, অন্তত ডানে বামে যেতে পারবো।

যখন দুটি দ্বিমাত্রিক ক্ষেত্র এক হয়ে উচ্চতা তৈরী করবে, তখন তৈরী হবে তৃতীয় মাত্রা। এবার আমরা ডান-বামের সাথে সাথে উপরে নীচেও যেতে পারবো। প্রাথমিক ভাবে মনে হবে, আমরা ত্রিমাত্রিক জগতের বাসিন্দা, যে কারনে আমাদের ব্রেইন সব কিছুই ব্যাখ্যা করছে ত্রিমাত্রিক দর্শন দিয়ে। আসলে কি এটা সঠিক সিদ্ধান্ত? আমরা কি আসলেই ত্রিমাত্রিক বিশ্বে বসবাস করছি?
এস্কেটোলজি-সময়-পর্যবেক্ষক

আইনস্টাইন বিশ শতকের প্রায় শুরুতেই দুটি তত্ত্ব ঝেড়ে সমস্ত পৃথিবী আলোড়িত করে তুলেছিলেন, থিওরী অব জেনারেল রিলেটিভিটি এবং থিওরি অব স্পেশাল রিলেটিভিটি। জেনারেল রিলেটিভিটিতে উনি তৃতীয় মাত্রার সাথে আরেকটি ডাইমেনশন তত্ব, অর্থাৎ, চতুর্থ মাত্রা এনে হাজির করেছেন, যেখানে “সময়” কে আরেকটি মাত্রা বা ডাইমেনশন হিসেবে হাজির করা হয়েছে। এই সময় কে ব্যাখ্যা করতে যেয়ে দেখা যাচ্ছে, “সময়” সামনেই শুধু যায় না, সময় পেছন দিকেও যেতে পারে। কিন্ত এই “সময়” মাত্রটিকে তিনি নির্ভরশীল করে ফেলেছেন মহাশুন্যে “আলো”র গতির কাছে। সেই গতি আবার আপক্ষিক, অর্থাৎ, অন্য কোন একটি বস্তুর গতির সাথে তুলনামুলক অবস্থান। অর্থাৎ, মহাশুন্যে পৃথিবীর গতির তুলনায় কোন বস্তুর গতি যত বাড়বে, সেই বস্তুর “সময়”এর গতি পৃথিবীর তুলনায় ততই কমতে থাকবে এবং যেই মুহুর্তে বস্তুটি আলোর গতির বেশী গতিতে চলা শুরু করবে, সেই মুহুর্ত থেকে ঘড়ির কাটা উল্টো দিকে চলা শুরু করবে, অর্থাৎ, অতীত মুখী হয়ে পরবে। সময়ের এই আপেক্ষিকতা তো নির্ভরশীল মহাশুন্যে পৃথিবীর তুলনায় আলোর গতির উপর। তাহলে কি পৃথিবীর “সময়” এবং অন্য কোন “সময়” এর ব্যাখ্যা কি দুই রকম হওয়া সম্ভব।

আমার কাছে সমস্যা মনে হয়েছে, আগের তিনটি স্থান সূচক “মাত্রা” একে অপরের উপর নির্ভরশীল, অর্থাৎ, শুন্য “মাত্রা” এর সাথে প্রথম “মাত্রা” এবং একই ভাবে প্রতিটি মাত্রা একে অপরের সাথে জড়িয়ে আছে স্থান সূচকের মধ্য দিয়েই। এই স্থান সূচকের সাথে “সময়” নামক সূচককে লাগাবার জন্য আলোর গতিকে ধরা হয়েছে একটি মাধ্যম, যে মাধ্যম কিনা আবার আপেক্ষিক, অর্থাৎ, গতি সব সময় নির্ভরশীল আরেকটি স্থানিকের গতির তুলনা মূলক বিচারের উপর। তাহলে প্রথম তিনটি স্থানিক “মাত্রা” তৈরির মত, তৃতীয় স্থানিক “মাত্রা” এর সাথে জোড়া লাগাবার জন্য কোন স্থানিক মাত্রা “সময়” নামক চতুর্থ মাত্রায় অনুপস্থিত কেন?

“কোয়ান্টাম মেকানিক্স” বা ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র কণা সমুহের বিজ্ঞান নামের আরেক থিওরিতে এসে পদার্থের ব্যবহার বদলে যায়। “সময়” এর ব্যাখ্যায় ব্যবহৃত আলোর ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র কণা “ফোটনকে যদি দুটি ছিদ্র পথের অপশন্স দেয়া যায় তবে সে কোন পথে যাবে সেটার জন্য কাউকে না কাউকে দেখতে হয়। যদি কেউ না দেখে তবে তারা একরকম ব্যবহার করে, আর যদি দেখে তবে তারা অন্য রকম ব্যবহার করে। তাহলে কি আমরা বলতে পারি, “সময়” কোন একজনের পর্যবেক্ষনের প্রেক্ষাপটে ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে, আবার তার ইচ্ছের প্রেক্ষাপটেই “সময়” তার দিক পরিবর্তন করে। সময় এখানে বহুমুখী আচরন করতেই পারে কিন্ত একটি স্থানিক মাত্রা কিছুতেই সময়কে ছুঁতে পারে না, কারণ, “সময়” এর হিসেব অনুযায়ী অতীত, বর্তমান, ভবিষ্যতকাল সব একই সময়ে উপস্থিত একটি টানেলের আলাদা আলাদা স্থানিক অংশে অবস্থিত।

আমাদের এই তথাকথিত ত্রিমাত্রিক মহাবিশ্বে, ব্যবহারিক ক্ষেত্রে প্রমান করা সম্ভব থিয়োরি অব জেনারেল রিলেটিভিটি কে। মানে, “সময়” গতির সাথে সাথে পরিবর্তিত হয় সেটা প্রমান করা সম্ভব। যে কারণে, গতির গাড়িতে চড়ে, সময়ের বাধা পারি দিয়ে, অতীত বা ভবিষ্যতকে টিভি স্ক্রীনে মুভি দেখে আসার মত ভাবনাটি আজগুবী কোন ভাবনা নয় কিন্ত টাইম মেশিনে চড়ে অতীত, বর্তমান ইত্যাদিতে যেয়ে, সেখানে কোন পরিবর্তন এনে, বর্তমানকালের ঘটনাপ্রবাহ পরিবর্তন করার চেষ্টা অবুঝের মত কথা, কারণ, বর্তমান, অতীত, ভবিষ্যৎ সবই একই টাইম টানেলে আবদ্ধ। যেখানে আমাদের বোধগম্য “যৌক্তিক” মাত্রা ও প্রায় বোধগম্য “আবেগীয়” স্তরের তিনটি ধাপই এখনো অতিক্রম করা যায়নি, সেখানে মৃত্যু ব্যতীত “সময়”এর মাত্রা ও স্তর অতিক্রম করে টাইম টানেলের বিভিন্ন স্থানিক অংশে যেয়ে সেই অংশে পরিবর্তন আনবার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখার সম্ভবনা অনতিক্রমণীয়।

আবার কোয়ান্টাম মেকানিক্সও প্রমানিত সত্য। তার মানে দাঁড়াচ্ছে, একই সময়ে কোন একেকজন পর্যবেক্ষকের প্রেক্ষাপটে তৈরী হয়ে চলেছে “হ্যা” এবং “না” এর দু’টো সম্ভবনাই। অর্থাৎ, চরম সত্য বলে কোন শব্দ নেই। সত্য শুধু সেই অংশটুকুই যখন কোন সময়ে কোন একটি অংশ কেউ একজন দেখছেন। এটুকু পর্যন্ত ঠিকই ছিল কিন্ত যেই মুহুর্তে বিজ্ঞান দুই থিওরিকে একই বাক্সে ঢেলে প্রমান করার চেষ্টা করেছে, সেই মুহুর্তে দুই থিয়োরির সেই প্রমান সমুহ অচল হয়ে গিয়েছে। –চলবে

লেখক: বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও কলামিস্ট। (দেশের প্রথম পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদের জ্যেষ্ঠ ছেলে)।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin