রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ০২:০১ অপরাহ্ন

বিশ্বব্রহ্মাভ

বিশ্বব্রহ্মাভ


শেয়ার বোতাম এখানে

আজিজুস সামাদ আজাদ ডন.

জীবন ও জীবনশক্তি : শক্তির বিনাশ নেই, শক্তি কেবল একরূপ থেকে অপর এক বা একাধিক রূপে পরিবর্তিত হতে পারে কিন্তু মোট শক্তির পরিমাণ একই থাকে। মহাবিশ্বের মোট শক্তির পরিমাণ নির্দিষ্ট, অপরিবর্তনীয়। একটি বা একাধিক বস্তু যে পরিমাণ শক্তি হারায়, অন্য এক বা একাধিক বস্তু ঠিক একই পরিমাণ শক্তি পায়। নতুন করে কোনো শক্তি সৃষ্টি হয় না বা কোন শক্তি ধ্বংসও হয়না। সুতরাং এই মহাবিশ্ব সৃষ্টির মুহূর্তে যে পরিমাণ শক্তি ছিল, এখনও ঠিক সেই পরিমাণ শক্তিই আছে।

শক্তির কতগুলো রূপ থাকতে পারে সেটা নিয়ে বিজ্ঞানে বিতর্ক আছে। স্বীকৃত কিছু রূপ যেমন, আলোক শক্তি, শব্দ শক্তি, তাপ শক্তি, চৌম্বক শক্তি, তড়িৎ শক্তি, রাসায়নিক শক্তি, সৌর শক্তি, পারমানবিক শক্তি ইত্যাদি।

পদার্থের এবং শক্তির রুপান্তর আছে কিন্ত বিনাশ নাই, এই বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যায় মানুষ খাদ্য হিসেবে গ্রহন করে বিভিন্ন পদার্থ, যার রুপান্তরিত রূপ তার শক্তি। তাহলে মানুষ কোন শক্তিতে জন্ম নিচ্ছে এবং কোন শক্তিতে মানুষের যাপিত জীবন চলছে? একটি শিশু জন্ম নেবার সাথে সাথে তাকে উল্টো করে ঝুলিয়ে পিঠে দুই-তিনটি থাপ্পর দিয়ে যে চক্রের সুত্রপাত, সেই চক্রে স্বীকৃত এবং এখনো মানুষের কাছে গোপন আছে এমন ধরনের সকল শক্তির মিশ্রনই মানুষের এই জীবন শক্তির মৌলিকত্ব। অক্সিজেন দিয়ে এই শক্তির উৎপাদন প্রক্রিয়া শুরু, রক্তের মাধ্যমে সেই শক্তি বাহিত হয়ে ব্রেইন দিয়ে পরিচালিত একটি চক্র। সেই চক্রের বিভিন্ন স্তরে রয়েছে শক্তি উৎপাদনের বিভিন্ন উপাদান, এমনকি পারমানবিক উপাদানও আছে কিনা সেই প্রশ্ন আসতেই পারে।

আমরা যদি গিটার বা একতারা বা যে কোন তার দিয়ে বাঁধা বাদ্যযন্ত্রের তারের দিকে লক্ষ করি তাহলে দেখা যাবে, দুদিকে বাঁধা থাকলেও ঘুর্নায়মান একটি কম্পন তৈরী হয়েছে। সেক্ষেত্রে পরমানুর ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র কণা গুলো তো কোন যায়গায় বাঁধা নেই, সুতরাং, তার কম্পন অবশ্যই ঘুর্নায়মান। আর এই ঘুর্নায়মান কম্পনই তুলছে সূর, একেক ধরনের পদার্থের পরমানুর জন্য একেক রকম সূর, তাল, ছন্দ বলে দিচ্ছে সেই পদার্থের বৈশিষ্ট্য, জানান দিচ্ছে তার অস্তিত্ব।

কথিত আছে, আমাদের সঙ্গীত বিশেষজ্ঞরা একসময় বিভিন্ন রাগে বিভিন্ন কর্ম সাধন করতে পারতেন, মেঘমল্লার রাগে বৃষ্টি নিয়ে আসতেন। বিষয়টিকে আজগুবি বলে উড়িয়ে দেয়া যায় কিন্ত এখানেই বস্তু জগতের কম্পনাঙ্কের বিশেষত্ব লুকিয়ে আছে।

বৃষ্টি আনার মত কম্পন তৈরী করার কাজ হয়তো আমাদের তপস্যারত সঙ্গীত শিল্পীরা আজকাল আর করতে পারেন না কিন্ত এটা সত্য যে, বহু অপেরা শিল্পী তাদের গলার কম্পনাঙ্ক সেই মাত্রায় নিয়ে যেতে পারেন যেখানে একটা গ্লাস ভেঙ্গে চৌচিড় হয়ে যেতে পারে। এটা প্রমানীত সত্য যে, বিশাল বিশাল বিল্ডিং বা স্থাপনা ধ্বসে পরতে পারে যদি সেই বিল্ডিং বা স্থাপনার সম্মিলিত কম্পনাঙ্ক খুঁজে বের করে, সেই কম্পনাঙ্কের সমান কম্পন সেই বিল্ডিং বা স্থাপনায় ফেরত পাঠানো যায়।

মানুষের প্রতিটি কোষের ঘুর্নায়মান কম্পনাঙ্ক থেকেও তৈরী হচ্ছে চৌম্বকীয় শক্তি। তবে আমার ধারনা, মানুষের শক্তি উৎপাদনের ভাগ গুলো দুটি ভাগে বিভক্ত হয়ে যাচ্ছে।

একভাগ যুক্তির চৌম্বকীয় শক্তি আরেক ভাগ আবেগের। যে কারনে যৌক্তিক কম্পন ও আবেগীয় কম্পনের কম্পনাঙ্ক দুই রকমের। আমাদের বোধের এই ত্রৈমাত্রিক বিশ্বে জীবনের চালিকা শক্তির পাওয়ার সেল গুলোর প্রতিটিকে এক সুরে বাঁধার সংযুক্তির কাজে যারা সফল, তাদের ইহজগতের কর্ম শেষ করে পরবর্তি বিশ্বের জন্য প্রস্তুত বলে ধরে নেয়া যায়।

আমাদের বর্তমান আলোচনার জন্য, এই মহাবিশ্বের ভবিতব্য নির্ধারনে এর চেয়ে বেশী কিছু বলাটা অপ্রয়োজনীয়।

সৃষ্টির সবচেয়ে বিস্ময়কর বিষয় বলে মনে হয় মায়ের গর্ভে পানিতে অবস্থানরত অবস্থায় নিজ জীবনীশক্তি নিয়ে বেড়ে উঠতে থাকা শিশুটিকে নিয়ে।

প্রথম কোষ থেকেই শিশুটির নিজস্ব কম্পনধারা তৈরী হচ্ছে কিন্ত সেই কম্পনাঙ্ক মায়ের কম্পনাঙ্কের অনুরণিত কম্পন মাত্র। শুধুমাত্র একটি এম্বিক্যাল কর্ডের মাধ্যমে কম্পনাঙ্ক থেকে শুরু করে শিশুটির যাবতীয় কর্মকাণ্ড আসলেই বিস্ময়কর। শিশুটি আমাদের এই ত্রৈমাত্রিক বিশ্বে এসে অক্সিজেন গ্রহনের সাথে সাথেই শুরু করলো তার নিজস্ব শক্তি সৃষ্টি চক্র বা নিজস্ব কম্পন, তৈরী হল নতুন সত্বা। মানুষের জন্ম হল।

আমরা এস্কেটোলজির খোঁজে শেষ বিচার সম্পর্কিত আলোচনা করতে যেয়ে, যুক্তির ফোর্থ ডাইমেনশনে “সময়” নিয়ে আইনস্টাইনের প্রায় প্রমানিত তত্ব পেয়ে কিছুটা নিশ্চিন্ত হলেও, চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি আবেগের তিনটি স্তর, তথা, প্রেম-ভয়, আমিত্ব-সম্পর্ক, কল্পনা-জিজ্ঞাসা পেরিয়ে, “যুক্তি”র “সময়” মাত্রা এবং “আবেগ”এর “সময়” স্তর কে এক যায়গায় আনবার লক্ষ্যে। সমস্যা দাঁড়িয়েছে “সময়”এর অবস্থান নিয়ে। অবশ্যই “সময়” একটি মাত্রা যার উপস্থিতি “যৌক্তিক” মাত্রা এবং “আবেগীয়” স্তর উভয় ক্ষেত্রেই প্রমানীত এবং আমরা আবশ্যই ত্রৈমাত্রিক নয় চতুর্মাত্রিক জগতে বসবাস করছি। এটাও প্রমানীত যে, আমাদের “যৌক্তিক” মাত্রা গুলোও শুন্য এবং “আবেগীয়” স্তর গুলোও সর্বগ্রাহ্য প্রমাণিত নয়। তারপরও তাদের অস্তিত্ব স্বীকৃত শুধুমাত্র আমাদের ব্রেইনের কর্মকা-ের ফলে। সেক্ষেত্রে “সময়” নামক মাত্রাটির অস্তিত্ব প্রমানীত অথচ শুধুমাত্র “সময়” নামক চতুর্থ মাত্রাটির ব্যাখ্যার জটিলতায় আমাদের ইহজাগতিক “যৌক্তিক” মাত্রা ও “আবেগীয়” স্তরের মোট আটটি মাত্রার মহাসন্মিলনের কার্য সম্পাদন করতে পারছিনা।

স্রষ্টার সৃষ্টির সকল বস্তু বা প্রানী জগতের এটমের নিজস্ব কম্পনাঙ্কের একটা ঐক্য রয়েছে এবং সেই ঐক্যকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা রঙ এবং সূরকে একটি ঐক্যতানে বেঁধে একটি সূর ঝংকার সৃষ্টি করার লক্ষে এস্কেটোলজি নামের দর্শন আমাদেরকে আমাদের সীমিত বোধের ত্রিমাত্রিক জগৎ থেকে নিয়ে যাবে সেই স্তরে, যে স্তর থেকে আমরা অনুভব করতে পারবো সৃষ্টির রঙ ও সূর ঝংকারকে।

আত্মার এবং মানবতার ভবিতব্য : বাংলা ভাষায় আত্মা, পরমাত্মা শব্দগুলোর বিভিন্ন প্রয়োগ থাকায় (যেমন, ভুত-প্রেত নিয়ে কথা বললেও আত্মা, পরমাত্মা শব্দগুলো ব্যবহার করা হয়) শব্দগুলো সম্পর্কে উপলব্ধিগত ভ্রান্ত ধারনা আমাদের মাঝে আছে। এখানে আত্মা বলতে মানুষের “রূহ” বা জীবন শক্তির কথাই বলতে চাইছি। এস্কেটোলজি মহা বিশ্বের শেষ নিয়ে আলোচনা হলেও, মূলত মানুষের আত্মার, মানবতার ভবিতব্য নিয়ে কথা বলে এবং স্বাভাবিক ভাবেই উপরোক্ত দু’টো বিষয়ের মূলে পৌঁছাতে পারলে শেষ বিচারেরও মূলে পৌঁছানো যাবে।

আগে আমরা একটু শারিরিক জগতে ঘুরে আসি। এস্কেটোলজিও ভাবনায় শরীরের ভুমিকা খুবই সামান্য হলেও এই শরীরই যেহেতু আমাদের এই জগতের মূল বাহন, অতএব, শরীরের একট গুরুত্বপুর্ন ভূমিকা এস্কেটোলজিতে থাকবে এটাই স্বাভাবিক। আমরা যে “যৌক্তিক” মাত্রা এবং “আবেগীয়” স্তর নিয়ে কথা বলছি, সেই দুটি বিষয়ই এই শরীর কেন্দ্রীক।

আমাদের শরীরের প্রায় ৭০% পানি এবং মাত্র ত্রিশ ভাগ গঠিত শক্ত কোন বস্ত দিয়ে। ধর্মীয় দৃষ্টি কোন থেকে মাটি ও পানির সংমিশ্রনে তৈরী কাঁদা দিয়ে শরীর তৈরী হয়েছে। আবার আমরা এটাও বুঝতে পারছি যে, শরীরের মূল চালিকা শক্তি সমুহ বা বিদ্যুত উৎপাদন কেন্দ্রগুলোর মৌলিক উপাদানের একটি হল অক্সিজেন। সেই অক্সিজেন ব্যবহার করে এবং বিভিন্ন কম্পনের মাধ্যমে তৈরী চৌম্বকীয় শক্তি এবং হয়তো আরও কিছু অজ্ঞাত শক্তির সমষ্টিই হচ্ছে জীবন শক্তি। তাহলে একটি বিষয় নিশ্চিত করে বলা যায় যে, আমাদের শরীরে কঠিন, তরল ও বায়বীয় বস্ত একই সাথে অবস্থান করছে।

এটাও প্রমানীত সত্য যে, পানিকে যে পরিবেশে রাখা হবে সেই পরিবেশ অনুযায়ী পানির কৃষ্টাল বা স্ফটিক কণাও পরিবর্তিত হবে। অর্থাৎ, যদি আমরা একটি পানির গ্লাসকে কোলাহলের মাঝে রাখি তবে তার স্ফটিক হবে একরকম, তেমনি উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত বা ব্যান্ড সঙ্গীত বা ধর্মীও পরিবেশে রাখার কারনে একই পানির স্ফটিক একেক রূপ ধারন করবে।

সবচেয়ে মজার বিষয় হল, আমরা যা খাচ্ছি তার সব কিছুতেই পানির পরিমান অনেক। সুতরাং, খাদ্যের পরিবেশগত সংরক্ষনের কারণে আমাদের শারিরিক ও মানসিক গুনগত পরিবর্তন অবশ্যম্ভাবী। সুতরাং, এটাও নিশ্চিত ভাবে ধরে নেয়া যায় যে, আমাদের চারপাশের বাতাস কোন পরিবেশে সংরক্ষিত আছে তার উপর আমাদের শরীরের উৎপাদিত শক্তির গুনগত মান নির্ভর করছে। অতএব, আমরা খাবার হিসেবে যে কঠিন, তরল ও বায়বীয় বাতাস গ্রহন করছি, এই তিনটি বস্তুরই সংরক্ষন পরিবেশের উপর নির্ভর করবে আমাদের আতিœক গুনগত মান।
তাহলে আমরা এই সিদ্ধান্তে আসতে পারি, আত্মিক জগতের দুইটি ভাগ “যৌক্তিক” এবং “আবেগীয়” এর স্বাধীন ইচ্ছা শক্তি আছে কিন্ত সেই স্বাধীন ইচ্ছাশক্তি আবদ্ধ আছে মাটি ও পানি দিয়ে নির্মিত একটি ভৌত অবকাঠামো “শরীর” এর মাঝে এবং সেই শরীরকে পরিচালিত করতে যে শক্তির প্রয়োজন সেই শক্তি উৎপাদনের জন্য আমাদের দেহের ভেতরে কিছু কেন্দ্র আছে। আতিœক জগতের দুইটি ভাগ এবং জীবন শক্তি উৎপাদনের বিভিন্ন কেন্দ্রের এবং শরীরের কোষ সমুহের কম্পনাঙ্ক কে এক সূরে বাঁধার মাধ্যমে চতুর্থ ডাইমেনশন “সময়” কে জয় ক’রে, ইহজাগতিক মোক্ষ সাধনই এস্কেটোলজি ভাবনার মৌলিক অভিপ্রায়, আর এই কাজে ইউজার ম্যানুয়াল এস্কেটোলজি ভাবনার পাথেয়।

লেখক: বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও কলামিস্ট। (দেশের প্রথম পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদের জ্যেষ্ঠ ছেলে)।  চলবে……..



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin