বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৫৬ অপরাহ্ন


বিশ্বব্রহ্মাভ

বিশ্বব্রহ্মাভ


শেয়ার বোতাম এখানে

আজিজুস সামাদ আজাদ ডন.

প্রতিদিন নতুন সকালে ঘুম থেকে উঠে নতুন সূর্যের সাথে, নতুন দিনের সাথে আলাপন, নতুন জন্ম দিয়েই। এখানেও আমার কিছু প্রশ্ন আছে। ঘুম আর মৃত্যুর পার্থক্য কতটুকু? দেহ যেহেতু বিভিন্ন কোষের যোগফল, তাহলে এই ত্রৈমাত্রিক বিশ্বে মৃত্যু যেমন দেহের কর্মকান্ডের অন্তত আপাত পরিসমাপ্তি ঘোষনা করছে, তাহলে ঘুম কেন করছেনা? নাকি ঘুমের মধ্য দিয়ে যৌক্তিক ও আবেগীয় স্তরের কোন গুনগত পার্থক্য তৈরী করে। যেমন, ঘুম হয়তো “যৌক্তিক” মাত্রা ও “আবেগীয়” স্তরকে কঠিন অবস্থা থেকে তরল বা বায়বীয় করে ফেলে।

আগেই আমরা আলোচনা করেছি যে, মানুষ সহ পৃথিবীর সকল বস্তু একই ধরনের স্ট্রাকচার সম্পন্ন মৌলিক কনিকা বা এটম দিয়ে গঠিত। এস্কেটোলজি যেহেতু শেষ বিচার নিয়েই কথা বলে, সুতরাং, মহাবিশ্বের শেষ বিচারে সৃষ্টির সকল কিছুকেই কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে বলেই ধরে নেয়া যায়। সেইক্ষেত্রে ‘মোক্ষ” শব্দটিকে আমরা মানুষের বর্তমান জগতের মোক্ষ বা চুড়ান্ত লক্ষ হিসেবে দেখবো।
ফ্রি উইল

এস্কেটোলজির ভাবনার যত গভীরে আমি যাবার চেষ্টা করেছি ততই আমার মনে হয়েছে, এই মহাবিশ্বে মানুষের ফ্রি উইল বা মুক্ত চিন্তা তথা স্বাধীন ইচ্ছা অসীম কোন বিষয় নয়। অবশ্য একটা সমাধানে আসা যায়। যেমন, কোয়ান্টাম মেকানিক্স প্রমান করেছে, কোন একজনের পর্যবেক্ষণের পরিপ্রেক্ষিতে সব কিছু বিবেচনা করা হয়। সুতরাং, যার পর্যবেক্ষনেই বৈশ্বিক জগতের ঘটমান ঘটনাবলী ঘটে চলেছে, তার পরিপ্রেক্ষিতে মানুষের “স্তর” ও “মাত্রা”য় ফ্রি উইল কার্যকর আছে বলে ধরে নেয়া যায়।

কিন্ত আগেই আমরা দেখেছি যে, ব্রেইনের আরেকটি দিক, আবেগকে বোঝাবার জন্যই ব্রেইনের যৌক্তিকতার অবতারনা। তারমানে আমার নিজের কাছেই দু’টি দিক আছে এবং আমার নিজেকেই যুক্তি দিয়ে নিজেকে বোঝাতে হচ্ছে কেন এটা ভাল এবং কেন এটা মন্দ। তাহলে আমার নিজের এই দুই সত্বার মাঝে সমন্বয় সত্বা মিলে তৃতীয় আরেকটি সত্বা স্বাধীন চিন্তার প্রেক্ষাপট তৈরী করছে। কিন্ত সমস্যা একটা থেকেই যাচ্ছে, এখানে পর্যবেক্ষক হিসেবে একজন থাকতে হবেই, সেই পর্যবেক্ষকটা কে? এবং সেই পর্যবেক্ষকের পর্যবেক্ষনের তুলনায় আমার ফ্রি উইল কতটুকু গ্রহণযোগ্য।

একই ভাবে “আবেগ”এর তৃতীয় স্তরকে যদি আমরা “যুক্তি”র তৃতীয় স্তরের প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড় করাই, যাকে যুক্তির তৃতীয় স্তর যুক্তি দিয়ে বোঝচ্ছে কোনটা সঠিক, সেই আবেগের তৃতীয় স্তরেও কিন্ত আমরা দেখেছি স্বাধীন চিন্তা কাজ করছে কল্পনা ও প্রশ্নের মাধ্যমে। এই তৃতীয় স্তরের ক্ষমতা সম্পর্কে স্বপ্নের ব্যাখ্যার মাধ্যমে আমি যতটুকু বুঝি, কল্পনায় অসীম শক্তি সম্পন্ন কিন্ত সীমাবদ্ধ কল্পনা শক্তি। যে কারনে স্বপ্ন দেখার সময় স্থানিক সূচক গুলো পরিবর্তিত হয়ে যায় এবং একজনের বেশী পরিচিত চরিত্রকে সে যায়গা দিতে পারছে না। তারপরও তো সে মুক্ত স্বাধীন চিন্তা করার ক্ষমতা রাখে। তাহলে, সীমিত আকারে হলেও মানুষের ফ্রি উইল আছে তবে সেটা পর্যবেক্ষকের পর্যবেক্ষনের পরিপ্রেক্ষিতে।

ফ্রি উইলের সীমাবদ্ধতাটুকুকে মেনে নিয়েই বলা যায়, সৃষ্টির শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত কোন সিদ্ধান্তে কি হতে পারতো অথবা ফ্রি উইলের সিদ্ধান্তের কারনে কি ঘটেছে, সেটা একটি টাইম টানেলে ধারনকৃত অবস্থায় আছে। এটা শুধু এস্কেটোলজিক বিশ্বাস নয়, বৈজ্ঞানিক ভাবে প্রায় প্রমানীত একটি সত্য। সেক্ষেত্রে এই মহাবিশ্বে আমাদের মোক্ষ শুধু একটাই হওয়া সম্ভব বলে আমি বিশ্বাস করি, আর সেটা হল “সময়”নামের মাত্রা ও স্তরকে খুঁজে বের করে অনন্ত মহাবিশ্বে উপনীত হওয়া। সেই মহাবিশ্বে আমাদের জন্য যেমন ‘যৌক্তিক” মাত্রা ও ‘আবেগীয়” স্তর গুলোর প্রয়োজন নেই, ঠিক তেমনি “সময়” নামক মাত্রাটিও কোন ফ্যাক্টর হয়ে থাকবে না। যে কোন দুঃখ-সুখ-বেদনার হিসেব অনন্ত কালে উপনীত হবে। এটাকেই আমরা বলতে পারি আতœার ভবিতব্য।

তাহলে “সময়” কে কি ভাবে খুঁজে পাওয়া যাবে? এখানেই এসে যায় মাটি ও পানি দিয়ে গড়া আমাদের নশ্বর দেহের কথা। “যৌক্তিক” মাত্রায় কিংবা “আবেগীয়” স্তরে ব্যবহৃত “সময়” মাত্রাটির কাজ কারবার অবশ্যই শুধু নশ্বর দেহের শেষ বিচারের জন্য প্রয়োজনীয় নয়, অবিনশ্বর শক্তির আধার আতœার শেষ বিচার বা ভবিব্যের জন্যও প্রয়োজনীয়। কিন্ত বর্তমান মহাবিশ্বের প্রয়োজনীয়তা শেষে পরবর্তি মহাবিশ্বে যেহেতু “সময়” সহ “যৌক্তিক” মাত্রা, আবেগীয়” স্তর নামের ডাইমেনশন গুলো মৌলিক মাত্রা হিসেবে তাদের কার্যকরিতা হারাবে, সুতরাং, আমাদের মূল প্রয়োজন এখন “আতœা”, কারন এই শক্তিটিই আমাদের পরবর্তি মহাবিশ্বে একমাত্র প্রয়োজনীয় বিষয়।

আতœা নামক শক্তি নিয়ে আলোচনা আমার খুব একটা পছন্দের বিষয় নয়। কারণ, বিষয়টি আমার ভাবনায় কুয়াশাচ্ছন্ন অবস্থায় আছে। আমার ধর্মীয় বিশ্বাস থেকে জানি, জ্বিন নামক আরেকটি জাতি আমাদের এই মহাবিশ্বে আছে যারা আগুন দিয়ে তৈরী, আর মানুষ তৈরী মাটি ও পানি থেকে। কিন্ত এটাও ঠিক যে মানুষের মৌলিক শক্তি “নূর” বা আলো দিয়ে তৈরী। সেক্ষেত্রে আগুন আর নূরের মাঝের পার্থক্যটি মোটা দাগে বলা যায়, আগুন নিজে একা জ্বলে উঠবার ক্ষমতা রাখে না কিন্ত জ্বলে উঠবার পরে বিভিন্ন ভাবেই সে শক্তি উৎপাদন করতে পারে। অপর দিকে আলো নিজেই একটি শক্তি এবং ভাল লাগার বিষয় একটি, এই আলোর গতি দিয়েই সীমাবদ্ধ রয়েছে আমাদের বর্তমান অবস্থান এই মহাবিশ্ব। তবে আমাকে কনফিউজ করে দেয়ার মত সমস্যা তৈরী হয় তখন, যখন আগুন জ্বলে উঠবার পর একটি বিষয় তৈরী হয়, সেটা হল “আলো”। এখন মানবিক আতœার আলো আর জ্বিনের আগুনের আলো যদি একই কাতারে ফেলে দেয়া হয় তাহলে এই মহাবিশ্বের ভবিতব্যের পর, পরবর্তি মহবিশ্বে এই দুইটি বিষয়, আগুন ও আলো একই যায়গায় কিভাবে অবস্থান করতে পারে। আমার ইউজার ম্যানুয়ালে অবশ্যই সৃষ্টি এবং সৃষ্টির লয় সম্পর্কিত সব কিছু সম্পর্কেই আলোকপাত করেছে। কিন্ত আগুন বলতে আমরা কেন সবসময়ই মনে করি অক্সিজেন জনিত আগুন?

আলো, আলোর গতি সম্পর্কিত বিজ্ঞান এখন পর্যন্ত যা আলোচনা করে তার সবই মহাশুন্যে আলোর পর্যবেক্ষিত অবস্থান নিয়ে। আর আরেকটি ইকুয়েশন তো আমাদের সকলেরই জানা আছে, ব=গঈস্কোয়ার। আমরা যদি আমাদের সবচেয়ে পরিচিত আগ্নেয় নক্ষত্র সূর্যের কাছে চলে যাই তবেই আমরা দেখতে পাবো, ওখানে আগুন জ্বলছে এই ইকুয়েশনের ভিত্তিতেই, অক্সিজেন ছাড়া এটমিক ফিউশনের মধ্য দিয়ে। সুতরাং, আগুন বলতে এটমিক ফিউশন বা অন্য ধরনের কিছুর কথা যে বলা হয়নি সেটার বিষয়ে আমি অন্তত নিশ্চিত নই। তবে আমি নিশ্চিত, আগুন আগে তৈরী হয়েছে এবং আলো পরবর্তিতে এসেছে। এবং এটাও আমি নিশ্চিত যে, আমরা, অর্থাৎ, মানুষ যে শক্তি বা আতœার বলে পরিচালিত তার গতি ও পরিশুদ্ধতা আগুনের চেয়ে অনেক বেশী এবং এস্কেটোলজিতে মানবিকতার ‘আলো”র অগ্রাধিকার থাকবেই।
এস্কেটোলজির মূল বিষয় আতœার এবং মানবতার ভবিতব্য বলতে আমি কি বলতে চাইছি। আমার আগের একটি লেখার কিছু অংশ টেনে এনে বিষয়টি ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করি।

একজন জাহাজের ক্যাপ্টেন তার সমুদ্র যাত্রার শুরুতে তার যাত্রা পথ নির্ধারন করে জাহাজের ভবিষ্যত কোর্স বা গতিপথ নির্ধারন করেন। কাজটি খুব সহজ মনে হবে। চার্ট বা জাহাজী ম্যাপের এক বিন্দু থেকে আরেক বিন্দু পর্যন্ত লাইন টেনে কোর্সের ডিগ্রী বের করলেই তো হল। কথাটা ঠিক তবে অত সহজ নয়। প্রথমেই তাকে সংগ্রহ করতে হয় যাত্রাপথের আবহাওয়া সম্পর্কিত ভবিষ্যৎ বাণী সমুহ (বা ভ্যারিয়েবল, যা অবশ্যই পরিবর্তিত হতে পারে)। তারপর বাতাসের গতি – প্রকৃতি, তারপর আছে সমুদ্রের স্রোতের গতি প্রকৃতি ইত্যাদি। সবকিছু গননায় নিয়ে তিনি কোর্স তো ঠিক করলেন, তারপরও প্রতিদিন সূর্যের সাথে, তারকা সমুহ এবং চার্টে দেয়া বিভিন্ন নির্দিষ্ট স্থাপনার সাথে জাহাজের অবস্থান মিলিয়ে দায়ীত্বে নিয়োজিত অফিসারেরা জাহাজের কোর্স এডজাস্ট করেন। জাহাজের ক্যাপ্টেন শুধু মাঝে মাঝে নিশ্চিত করেন যে, তার নির্ধারিত মূল কোর্সে জাহাজটি রয়েছে কিনা।

এবার ওপরের বিষয়টি বিশ্লেষণ করা যাক “গন্তব্য, শেষ গন্তব্য এবং ভবিতব্য” এর ছাঁচে ফেলে। এখানে গন্তব্যে পৌঁছে জাহাজটি কি করবে সেটা হল ভবিতব্য, জাহজটি এক বিন্দু থেকে আরেক বিন্দুতে যাবে- সেটা হল গন্তব্য, নির্দিষ্ট বন্দরে পৌঁছানোর লক্ষই হচ্ছে শেষ গন্তব্য। আর “বর্তমান” ও বাস্তব” শব্দগূলো বাতাস, স্রোত, আবহাওয়া সহ বিভিন্ন কারনে পরিবর্তিত হয়ে চলেছে এবং চলমান ইতিহাসের নায়ক, খলনায়কেরা অবধারিত এবং নির্ধারিত ভাবেই চুড়ান্ত সত্যে পৌঁছাবার লক্ষে বর্তমান ইতিহাসের ভেরিয়েবল গুলো মাথায় নিয়ে চলমান ইতিহাসের কোর্স এডজাস্ট করে চলেছেন।

আগেই বলেছি, অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যত, সব কালই সময়ের একই টাইম টানেলে আবদ্ধ। আরেকটি বিষয়ও নিশ্চিত ভাবে আমি বিশ্বাস করি, একই সময়ে কমপক্ষে দু’টি টাইম টানেল কাজ করে চলেছে। অর্থাৎ, আমরা আমাদের বর্তমান যে টাইম টানেলে বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নিচ্ছি, তার বিপরীতে সিদ্ধান্তটি অন্য রকম নিলে কি হবে বা হতে পারে, সেটাও আরেকটি টাইম টানেলে রয়েছে। অতএব, তুলনামূলক বিচার কোন বিষয়ই না। আমাদের দায়ীত্ব সীমাবদ্ধ শুধু “হ্যা” এবং “না”, “নিষিদ্ধতা” ও “অবশ্য পালনীয়” গন্ডির মাঝে। সৃষ্টি কর্তার সৃষ্ট নীতিমালার বাইরে যেয়ে কোন কর্ম সাধনে কেউ সৃষ্টির ভারসাম্যে প্রলয়ংকরী অনাসৃষ্টি ডেকে না আনার নির্দেশনাই নিষিদ্ধতার সীমারেখা।

ধরা নেয়া যাক একটি গাছের পাতার গল্প। পাতাটি কোন একসময় মনে করলো সৃষ্টির এই ট্রিলিয়ন কোটি পাতার মাঝে তার প্রয়োজনীয়তা নাই। আমরা যদিও সিদ্ধান্ত নিয়েছি এই মহাবিশ্ব শুন্যতা দিয়ে তৈরী, তারপরও সেই শুন্যের অসীমতায় নিজেকে নগন্য মনে করে সে যদি ইচ্ছাকৃত ভাবে ছিটকে পরে, সেই ছিটকে পরার কারনে সৃষ্টিচক্রে তার অক্সিজেন দেবার অবদানে যেটুকু ঘাটতি পরলো তার দায়ীত্ব কে নেবে। এবং তার লয়ে যত ক্ষুদ্রাতি ক্ষুদ্র অসামঞ্জস্যই সে এনে থাকুক, মহাবিশ্বের ভারসাম্য তো কিছুটা হলেও সে নষ্ট করলো।

এতো গেলো একটা পাতার গল্প। কিন্ত এস্কেটোলজি নিয়ে ভাবনার সুত্রপাতই তো মানব সৃষ্টির ভবিতব্য নিয়ে কথা বলা। তাহলে এই যে আট বিলিয়ন মানুষ বর্তমানে পৃথিবীতে চলাফেরা করছে, তাদের সকলের কি মানব ইতিহাসের পাতায় তার নিজস্ব পদচিহ্ন রাখার কোন সুযোগ রয়েছে? এতো মানুষের ভিড়ে কি একজনও অপ্রয়োজনীয় মানুষ নেই?কিংবা, এস্কেটোলজি ভাবনার মূল কথাই তো, সৃষ্টির পুর্বেই সৃষ্টির ভবিতব্য নির্দিষ্ট হয়ে গিয়েছে। তাহলে আমাদের বর্তমান কর্মের মূল্য কি?কিংবা, আমরা তো বলছিই কমপক্ষে দুইটি টাইম টানেলে মানব ইতিহাস পথ বেয়ে চলছে, তাহলে কি কারণে মানব ইতিহাসের একই পরিনতি হতে পারে?

এসব প্রশ্নের উত্তর খোঁজার আগে আমরা আগে খুঁজে বের করার চেষ্টা করি কতগুলো টাইম টানেল থাকার সম্ভবনা আছে। সাধারন দৃষ্টিতে টাইম টানেল থাকার কথা তিনটি। কোন একটি সিদ্ধান্তের তিনটি রাস্তা থাকার কথা। এক, হ্যা। দুই, না। তিন, কোন সিদ্ধান্ত না নিয়ে চুপচাপ বসে থাকা। আমি আবারও বলি, সাধারন দৃষ্টিতে। আরও হয়তো হাজারো টাইম টানেল থাকতে পারে। সাধারন দৃষ্টিকোন থেকেই যদি বিচার করি, তাহলেও মানুষের ফ্রি উইলের সীমান্ত তিনটি সীমা রেখায় ভাগ করে দেয়া হয়েছে এবং এই সীমা মেনে নিয়ে এটাও বলা যায়, ফ্রি উইলের তিনটি সীমা মেনে নিয়ে যে সিদ্ধান্তই নেয়া হোক না কেন, মানব ইতিহাসের ভবিতব্যে কোন পরিবর্তন আসবে না।

লেখক:  বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও কলামিস্ট। (দেশের প্রথম পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদের জ্যেষ্ঠ ছেলে)। চলবে….


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin