শনিবার, ১৯ Jun ২০২১, ০৬:০৫ অপরাহ্ন

বিশ্বব্রহ্মাভ

বিশ্বব্রহ্মাভ


শেয়ার বোতাম এখানে

আজিজুস সামাদ আজাদ ডন.

আবেগীয় ডাইমেনশন ‘স্তর’ : ব্রেইনের আরেক অংশ, ‘আবেগীয়’ স্তর দিয়ে ‘সময়’ নামক চতুর্থ স্তর কে ব্যাখ্যা করা যায় কিনা দেখা যাক। সেদিন কোথায় যেন এক দারুন কাব্য পড়লাম। ‘মিথ্যা এখন দাপিয়ে বেড়াচ্ছে আকাশ বাতাস, সত্যকে খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। যদি খুঁজে পাওয়াও যায় তবে সেটাকে পাওয়া যাবে কালো বাজারে এবং সেই সত্যটুকুর জন্য চড়া মূল্য দিতে হবে”।

ভাল কথা। কিন্ত সত্য আর মিথ্যাকে নিয়েই যদি এতো দ্বন্দ এবং ধন্দ, তাহলে
হ্যা – না
ভাল – মন্দ
সাদা – কালো
আনন্দ – দুঃখ
এসবের দ্বিধা দ্বন্দ্ব কাটাবো আমরা কেমন করে। কাটাতে পারবোনা। কারণ, এগুলো সবই নির্ভর করে কোন যায়গায় দাঁড়িয়ে আমি বিষয়টি দেখছি। যেমন, মানুষ খুন করা নিষিদ্ধ কিন্ত যুদ্ধক্ষেত্রে উভয় পক্ষই মানুষ খুন করছে কেন? এক্ষেত্রে কোন একটা পক্ষ তো অবশ্যই ভুল কারণে মানুষ খুন করছে। অথবা আরও মীমাংসিত বিষয় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কাছে যাই। আমরা কি জানি জার্মানীর নাৎসিরা যুদ্ধে জয়ী হলে কি দাঁড়াতো। আমরা দেখছি বর্তমান জয়ী পক্ষের পৃথিবী। জার্মান নাৎসিরা নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমান করবার জন্য যুদ্ধ করেছিল বলে আমরা জানি কিন্ত তারমানে তো এই দাঁড়ালো যে, যুদ্ধের আগেই একটি প্রমানিত শ্রেষ্ঠ পক্ষ ছিল। তাহলে সত্য কোনটা আর মিথ্যা কোনটা? আমরা বরং আশ্রয় নেই ওমর খৈয়ামের একটি উক্তির কাছে, “সত্য ও মিথ্যার মধ্যবর্তী দূরত্ব হলো এক চুল পরিমান”।

আমরা চলে যাই আরও নৈর্ব্যক্তিক বিষয়ের কাছে। ইউনিভার্সাল ট্রুথ, সূর্য পুর্ব দিকে ওঠে পশ্চিমে অস্ত যায় কথাটি কি আসলেই সম্পুর্ন সত্য। আমরা তো আগেই দেখেছি ব্রেইন কি ভাবে আমাদের উলটো বিষয় সোজা করে দেখায়। মহাবিশ্বকে দেখার সময়ও কি সে একই নিয়ম মানে?
আমরা এবার চলে যাই “আবেগ” নামক ব্রেইনের ডান দিকের “স্তর” বা ডাইমেনশনের ব্যাখ্যার কাছে। মানুষের “আবেগ” এর প্রথম স্তর গঠিত হয়েছে যৌনতা তথা ভালবাসা দিয়ে। ভালবাসার অন্য প্রান্তে দাঁড়ানো পশু শক্তি, পশু শক্তি মানেই ভয়। আবেগের এই প্রথম “স্তর” এবং স্থানিক প্রথম “মাত্রা” এর মত ভয় আর ভালবাসার মিলন মেলায় বাকি সবই শুন্য।

দ্বিতীয় স্তর “আমিত্ব” বা “ইগো”। স্বাভাবিক ভাবেই “আমিত্ব” এর বিপরীত মেরূতে অবস্থান করছে “সম্পর্ক”, অর্থাৎ, এক আমি আরেক আমিকে কি ভাবে সম্পর্কিত করবে সেটাই হবে দ্বিতীয় স্তরের দ্বিতীয় মিলন কেন্দ্র। দ্বিতীয় স্তরে এসে মনে হচ্ছে কিছু হাত পা খুলে কাজ করার সুযোগ তৈরী হয়েছে, কারণ, অন্তত এক আমি ও আরেক আমির সম্পর্ক নির্ণয়ের কাজ জড়িত হল প্রেম ও ভয়ের মাধ্যমে।

তৃতীয় স্তরে আছে “কল্পনা”। আমাদের বসবাস এখন এই স্তরেই। কল্পনার বিপরীত মেরুতে অবস্থান করছে “প্রশ্ন”। এই তৃতীয় স্তরের কারনেই বিজ্ঞানের জন্ম, যে কারনে মানুষ এগিয়ে চলেছে। এবার এই স্তরে এসে সম্ভাবনার বিশাল দুয়ার খুলে গেল আমাদের সামনে। আমাদের কল্পনার জগত, স্বপ্নের জগত অলীক ভাবে তৈরী হয় কিনা সেটা দিয়ে তৃতীয় স্তর বোঝার জন্য আমি একটা স্বপ্নের কথা বলি।

স্বপ্ন দেখলাম আমার মোবাইল হারানো গিয়েছে। মোবাইলটা হারাবার আগে খেয়াল করিনি আমি কোথায় আছি। হারাবার পর আমার মনে প্রশ্ন জাগলো আমি কোথায় আছি। দেখলাম আমি চট্টগ্রামে আছি। অথচ আমার পরিচিত চট্টগ্রামের কোন যায়গার সাথে আশেপাশের দৃশ্যাবলীর কোন মিল নেই। ঠিক আছে, এর পরের প্রশ্ন জাগলো, এতো যায়গা থাকতে চট্টগ্রাম কেন, কারন ওখানে একটি দাওয়াত আছে। পৃথিবীতে এতো পরিচিত মানুষ থাকা সত্ত্বেও চট্টগ্রামের দাওয়াতে এসে পরিচিত চেহারা নেই কেন, নাহ আছে, ঐ তো ওই যে একজন বসে আছে। যাই তার সাথে গল্প করি। স্বপ্ন বা কল্পনা যাই বলি, এগিয়ে চলেছে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিতে দিতে।

এই স্বপ্ন “আমি” এর প্রেক্ষাপটে “আমি”র প্রশ্ন, “আমি”র ভয়, “আমি”র প্রেম থেকে উৎসরিত আমিত্ব দিয়া গড়া। স্বপ্নটা এখনও চলছে, কতক্ষণ চলবে কেউ জানেনা। এবং প্রশ্ন যেগুলো মনের মাঝে জাগছে তার উত্তরও “আমি” পেয়ে যাচ্ছে পর মুহুর্মুহ ঘটে যাওয়া স্বপ্নের ঘটনাবলির মাঝে। বৈজ্ঞানিক ভাবে এটাও প্রমাণিত যে, আমরা স্বপ্ন দেখি মাত্র তিন/চার সেকেন্ডের জন্য। অথচ গল্প তৈরী হয়ে যাচ্ছে ঘন্টা খানেকের বা কোন কোন সময় আরও অনেক বেশী। তাহলে এই কল্পনার জগতে এসেও “সময়” হামলা করলো। হ্যা করেছে, কারন “যুক্তি”র মাত্রা গুলো প্রতি মুহুর্তে “আমি”র স্বপ্নকে পরিচালিত করছে, “আমি”র স্বপ্নকে “আমি”র কাছেই যৌক্তিক করে তুলতে চাইছে। বলতে চাইছে কোথায়, কতটুকু, কত সময়ের জন্য “আমি” দুঃখ, কষ্ট, সুখ, বেদনা অনুভব করছে।

“যুক্তি” এর ডাইমেনশন বা “মাত্রা” গঠনের সময় যেমন আমরা দেখেছিলাম এক স্তর আরেক স্তরের সাথে যুক্ত, আবেগেরও এক “স্তর” আরেক স্তরের সাথে একে অপরের সাথে যুক্ত আছে। আর সেই যুক্তাবস্থাতেই আমরা খুঁজে পাই হ্য-না, সত্য-মিথ্যা, ভাল-মন্দ, সাদা-কালোর মত চুল পরিমান পার্থক্য সম্বলিত বিপরীতার্থক শব্দগুলোকে।তাহলে কি “যুক্তি” এর চতুর্থ মাত্রার “সময়” আর আবেগীয় চতুর্থ মাত্রার “সময়”কে এক সূত্রে বাঁধলে আমরা সেই যায়গায় পৌঁছাবো যেখানে দাঁড়িয়ে আমরা বলতে পারবো, আমাদের এই তথাকথিত ত্রিমাত্রিক বিশ্বে কর্ম শেষ।
জন্ম-মৃত্যু, প্রজনন : জন্মের আদী মুহুর্ত এবং জন্মের পরও হয়তো মধুরেণু-সম্পায়েত কিন্ত জন্ম মুহুর্তটা সব সময়ই যন্ত্রনাময়। মানব সৃষ্টির যন্ত্রনা হয়তো আমাদের বোধগম্য কিন্ত মহাবিশ্ব সৃষ্টির যন্ত্রনা আমাদের উপলব্ধিতে আনা কি সম্ভব? যদি সম্ভব হয়ও, তাহলেও জন্মের যন্ত্রনা তো মৃত্যু যন্ত্রনার সম পর্যায়েরই হওয়া বাঞ্ছনীয়। জন্ম-মৃত্যু নিয়ে আলোচনা আমাদের উদ্দ্যেশ্য না হলেও আমাদের আলোচনা যেহেতু সৃষ্টির ভবিতব্য নিয়েই, অতএব, জন্ম-মৃত্যু নিয়ে কিছু আলোচনা আসবেই।

জন্ম ও মৃত্যু একই বিষয়। জন্মকে জানলেই যেমন মৃত্যুকে সংজ্ঞায়িত করা যাবে তেমনি মৃত্যুকে জানলেও জন্মকে সংজ্ঞায়িত করা যাবে। আমরা কোথা থেকে এসেছি জানতে পারলে আমরা সহজেই বুঝতে পারবো কোথায় চলেছি। যেহেতু আমাদের পক্ষে মৃত্যুর কাছে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না, সে কারনে জন্ম নিয়েই ভাবনার ডালি সাজিয়ে বসা ভাল।

জন্মকে ব্যাখ্যা করার সবচেয়ে সহজ তত্ত্বের প্রবক্তা ফ্রয়েডের তত্ত্ব কে সরলীকরণ করে উপস্থাপন করলে দাঁড়াবে, আমাদের জন্মটাই এক অসম্ভব বিষয়। কারণ, লক্ষ কোটি শুক্রানুর মাঝে একটি শুক্রানূর ঐ মুহুর্তের ডিম্বানুর সাথে মিলনের ফলে যে জিন ও ডিএনএ-র ধারা তৈরী হয়ে নতুন “আমি” তৈরী হচ্ছে, সেই ধারার সম্ভবনা লক্ষ কোটি ভাগের এক ভাগ। এখন যদি এই বিষয়টিকে পিতা-মাতা, দাদা-দাদীর সাথে সংযুক্ত করি, তাহলে থিয়োরি অব প্রবাবিলিটির সূত্র অনুযায়ী পৃথিবীতে উপস্থিত আমাদের এই বর্তমান “আমি” সত্ত্বার অস্তিত্বের সম্ভবনা শুন্য। আর এর সাথে যদি বিজ্ঞান দ্বারা প্রমানিত পরমানু তত্ত্ব প্রয়োগ করি, অর্থাৎ, সকল পরমানুই দশমিকের পর বারোটা শুন্যের পর চার এর অস্তিত্বের সমান, তাহলে তো ভৌত জগতে আমাদের কোন অস্তিত্বই নাই। সবই শুন্য।

এই যে পরমানুর কথা বলছি, সেটা কিন্ত জড় পদার্থের জন্যও যে ফলাফল, জীবন আছে এমন কিছুর জন্য সেই একই ফলাফল, অর্থাৎ, শুন্য। তাহলে জীবন, জন্ম কি? এই যদি হয় অবস্থা, তাহলে আমাদের মত অস্তিত্ব শুন্য একটা অস্তিত্বের পক্ষে কিভাবে সেই অস্তিত্বের জন্ম, মৃত্যু, জীবনশক্তি নিয়ে ভেবে কোথায় যেয়েই বা পৌঁছাতে পারবে। হয়তো শুন্যেই পৌঁছাবে কিন্ত ভাবতে দোষ কি। ভাল কিছু না হোক মন্দ কিছু হলেও তো হতে পারে, তাহলে অন্তত ভাল-মন্দের পার্থক্যটা বুঝে ওঠা সহজ হয়ে যাবে।

আগেই বলেছি, ভাল-মন্দ, হ্যা-না ইত্যাদি সবই নির্ভর করে প্রেক্ষাপটের ওপর। যেমন, মানুষের জন্ম ক্যান্সার সেল থেকেই। ক্যান্সার সেল সেটাই যেটা নিজেকে ভেঙ্গে ভেঙ্গে নতুন সেল গঠন করে। মানুষের শুরুও প্রথমে একটি সেল, পরে দু’টি, চারটি এভাবেই বাড়তে বাড়তে একটি পূর্নাঙ্গ মানব দেহ গঠিত হয়, তারপর জন্ম। জন্মের পরও ক্যান্সার প্রক্রিয়া চলতে থাকে, বাড়তে থাকে মানুষের দেহ। তারপর একদিন এই ভাল ক্যান্সার প্রক্রিয়া কমা শুরু করে, মানুষ মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যায়। আর আমরা যাকে সাধারণত ক্যান্সার সেল বলে বুঝে থাকি, অর্থাৎ, খারাপ ক্যান্সার কোষ, যে কোষগুলো বাড়তে থাকলে মানুষের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ নষ্ট হয়ে যায়, সেই ক্যান্সার কোষের সাথে এই কোষের মৌলিক পার্থক্য এটাই, ভাল ক্যান্সার সেলের জন্য মানুষের জন্ম, বৃদ্ধি এবং খারাপ ক্যান্সার সেলের বৃদ্ধির জন্য মানুষের মৃত্যু।

কিন্ত কোন প্রেক্ষাপটে আমরা এই ভাল এবং মন্দ ক্যান্সার কোষ বলে স্বীকৃতি দিচ্ছি?? বেঁচে থাকার প্রেক্ষাপটে। কোন মানুষ যদি জন্মাবার কিছুদিন পরেই তার জন্ম রহস্য এবং এই জগতে তার অবস্থানের কারণ ও করণ খুঁজে পেয়ে সেই অনুযায়ী কর্মসাধন করে ফেলে, তবে তো বিষয়টি উলটে গেল। কারণ, সে তখন চাইবে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আপাত দৃষ্টির এই ত্রৈমাত্রিক জগতের মায়া ছেড়ে পরবর্তী জগতে পা রাখতে। তখন ভাল ক্যান্সার কোষের কারণে নির্মিত মানুষটার জন্য ভাল কোষ গুলোই হয়ে দাঁড়ায় খারাপ কোষ। তাহলে কি এই বিশ্ব জগতে আসবার কারণ ও করণ খোঁজাটা আমাদের উচিৎ নয় বলবো?
নাহ, এই সিদ্ধান্তেই যদি যেতে চাই তাহলে আর ইউজার ম্যানুয়াল আসতো না আমাদের জন্য। ….চলবে………….. 

লেখক: বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও কলামিস্ট। (দেশের প্রথম পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদের জ্যেষ্ঠ ছেলে)।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin