শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ০৩:৩৭ অপরাহ্ন

বিয়ানীবাজারে করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া মুক্তিযোদ্ধার রিপোর্ট পজেটিভ : এলাকায় আতংক

বিয়ানীবাজারে করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া মুক্তিযোদ্ধার রিপোর্ট পজেটিভ : এলাকায় আতংক


শেয়ার বোতাম এখানে

শাহীন আলম হৃদয়, বিয়ানীবাজার :

বিয়ানীবাজার উপজেলার দুবাগ ইউনিয়নস্থ বাঙ্গালহুদা গ্রামের সত্তোর্ধ্ব মুক্তিযোদ্ধা আবদুল করিমের করোনার দ্বিতীয় নমুনা রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে। মৃত্যুর ৯ দিন পর (নমুনা প্রেরণের ১০ দিন পর) এ রিপোর্ট পাওয়া গেছে।

এর আগে বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মাধ্যমে প্রেরিত প্রথম নমুনার টেস্ট রিপোর্টে তাঁঁর করোনা নেগেটিভ ছিল। এ অবস্থায় গত ৩ জুন সিলেটস্থ একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা গেলে স্বজনদের বাঁধায় তাঁর দাফন কাজ করোনার স্বাস্থ্যবিধি না মেনে সাভাবিক প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়। এখন করোনার রিপোর্ট পজেটিব আসায় এলাকাবাসী ও ও দাফনকাজ সম্পৃক্তদের পরিবার-পরিজনের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে।

জানা যায়, শনিবার (১৩ জুন) দুপুরে সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক ও দুবাগের কৃতি সন্তান ডাক্তার শাহিন আহমদ সদ্য প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল করিমের করোনা পজেটিভ হওয়ার সংবাদ দেন। তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বশীলদের জানানোর পাশাপাশি নিজের ফেসবুক আইডিতে বিষয়টি প্রকাশ করে পোস্ট দিয়েছেন।

আরো জানা যায়, গত ৩ জুন দুপুরে বার্ধক্যজনিত কারণে সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় (হৃদরোগ ও বার্ধক্য জনিত রোগও ছিল) মারা যান মুক্তিযোদ্ধা আবদুল করিম। এর আগে শরীরের করোনার উপসর্গ জ্বর ও ব্যথা থাকায় গত ৩১ মে স্বেচ্ছায় বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নমুনা দিয়ে আসেন তিনি। নমুনা দেয়ার ৪ দিন পর তিনি মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুর পূর্বে স্বজনরা উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে প্রথমে সিলেট ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন, পরে সেখান থেকে ২ জুন সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন।

ঐদিন (২জুন) উইমেন্স মেডিকেল হাসপাতাল থেকে তাঁর করোনার নমুনা টেস্টের জন্য প্রেরণ করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৩ জুন তিনি মৃত্যু বরণ করেন। মৃত্যুর পর তাঁর দাফন কার্য সম্পাদন করা নিয়ে বিভ্রান্তিতে পড়ে যায় উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, আত্নীয়-স্বজন ও এলাকাবাসী। পরে পারিবারিক অসম্মতি থাকায় প্রশাসন, স্বাস্থ্য বিভাগ ও স্বজনদের সমঝোতায় স্বাভাবিকভাবেই ওই মুক্তিযোদ্ধার জানাজা ও দাফন সম্পন্ন হয়। পরে ৩১ মে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে প্রেরিত প্রথম নমুনা টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধা মৃত্যুর পূর্ব দিন (২জুন) উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে প্রেরিত করোনার নমুনা টেস্টের রিপোর্ট ১০ দিন পর পাওয়া গেছে। ৩ জুন প্রাপ্ত রিপোর্টে করোনা পজেটিভ আসায় পরিবার-পরিজনসহ স্থানীয় এলাকাবাসীর মধ্যে আতংক দেখা দিয়েছে। এ অবস্থায় চিকিৎসা ও দাফনকালে তাঁর সংস্পর্শে আসাদের নির্ণয় করাও কঠিন হয়ে পড়বে বলে সংশ্লিষ্টদের অভিমত।

এ বিষয়ে বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ আবু ইসহাক আজাদ বলেন, অফিসিয়ালি এখনো আমরা কোন তথ্য পাইনি। তবে ওমেন্স মেডিকেলের ডাক্তার শাহিন আহমদ প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধার করোনা রিপোর্ট পজেটিভ আসার সংবাদ জানিয়েছেন। যেহেতু তিনি ওমেন্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেছেন এবং দ্বিতীয় নমুনা উইমেন্স হাসপাতাল নিয়েছে সেজন্য ওই হাসপাতালে তার পজেটিভ হওয়ার খবর গেছে।

তিনি বলেন, কমিউনিটি ট্রান্সমিশনের কারণে মারা যাওয়ার ২/৩দিন আগে হয়তো তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। আমরা তাকে দাফন করতে স্বেচ্ছাসেবী দল নিয়ে গিয়েছিলাম কিন্তু স্বজনদের অসম্মতির কারণে দাফন না করে আমাদের ফিরে আসতে হয়েছে। স্বাভাবিকভাবে তার জানাযা ও দাফন কার্য সম্পাদন হয়েছে। এখন ঐ মুক্তিযোদ্ধার সংস্পর্শে কত মানুষ ছিলেন সেটি জানাও আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জের।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin