শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৭:০৯ পূর্বাহ্ন



বিয়ানীবাজারে শিশু খুন : চাচির স্বীকারোক্তি : পরকিয়া প্রেমিক রিমান্ডে

বিয়ানীবাজারে শিশু খুন : চাচির স্বীকারোক্তি : পরকিয়া প্রেমিক রিমান্ডে


স্টাফ রিপোর্ট:

আপন চাচি ও তাঁর পরকীয়া প্রেমিকের অবৈধ মেলামেশা দেখে ফেলায় তাদের হাতে নির্মমভাবে খুন করা হয় ল ৩ বছরের শিশু সাহেল আহমদ সোহেলকে।

সোমবার বিকেলে সিলেটের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (৫ম) আদালতের বিচারক নওরিন করিমের এজলাসে হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করে খুনের বিবরণ দেন নিহত শিশুর চাচি সুরমা বেগম (৩৮)। এছাড়া তার পরকিয়া প্রেমিক নাহিদুল ইসলাম ইব্রাহিম (৩০) আদালতে স্বীকারোক্তি দিতে স্বীকার করায় তাকে চার দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

গতকাল রবিবার সকালে সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার কুড়ারবাজার ইউনিয়নের উত্তর আকাখাজনা গ্রামে চাচির অবৈধ সম্পর্ক দেখে ফেলায় তাকে হত্যা করে পরকিয়া প্রেমিক নাহিদুল ও চাচি সুরমা বেগম। এরপর লাশটি তারা বাথরুমে পাস্টিকের ড্রামে কম্বল দিয়ে মুড়িয়ে লুকিয়ে রাখে।

এ ঘটনার পর দিনভর সাহেলকে খোঁজা হলেও কোথাও তাকে পাওয়া যায়নি। মসজিদের মাইকেও তার খোঁজে প্রচারণা চালানো হয়। এ সময় চাচি সুরমা বেগম তাঁর বসতঘরের দরজা-জানালা বন্ধ রাখাসহ রহস্যজনক আচরণ করতে থাকেন। এতে নিহত শিশুর পিতাসহ এলাকার লোকজনের সন্দেহ হলে তারা চাচির বসতঘরে প্রবেশ করে তল্লাশি শুরু করেন। একপর্যায়ে রাত ৮টার দিকে সুরমা বেগমের গোসলখানায় রাখা ড্রামের ভেতর কম্বল দিয়ে মোড়ানো শিশু সাহেলের নিথর দেহ পাওয়া যায়।

পুলিশ ঘটনায় জড়িত থাকার দায়ে রোববার সন্ধ্যায় চাচি সুরমা বেগম (৩৮) ও তার পরকিয়া প্রেমিক নাহিদুল ইসলাম ইব্রাহিম (৩০) কে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করে। এর মধ্যে ঘাতক চাচি সুরমা বেগম আদালতে ফৌজদারি দণ্ডবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দেন।

স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দিতে চাচি সুরমা বেগম জানান, রোববার সকাল ৬টার দিকে ভিকটিম সাহেল ও তার ভাই আরিফ আম কুড়াঁনোর জন্য চাচি সুরমা বেগমের বসতঘরের সামনে যায়। আম কুড়াঁনো শেষে সে চাচির বসতঘরের ভেতরে প্রবেশ করলে নাহিদুল ও সুরমা বেগমের অনৈতিক মেলামেশা দেখে চিৎকার শুরু করে। তখন প্রেমিক নাহিদুলের নির্দেশে চাচি সুরমা বেগম গাছের ডাল দিয়ে ওই শিশুর মাথায় আঘাত করলে সে অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুঠিয়ে পড়ে। তখন চাচি ও তাঁর প্রেমিক ওই শিশুর নাক-মুখ চেপে ধরে শ্বাসরোধ করে গোসলখানায় থাকা একটি প্লাষ্টিকের ড্রামে ঢুকিয়ে কম্বল দিয়ে ঢেকে রাখে।

তবে সুরমা বেগমের পরকিয়া প্রেমিক নাহিদুল ইসলাম ইব্রাহিম (৩০) আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক বক্তব্য না দেয়ায় মামলার তদন্তকর্মকর্তা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হারুন উর রশিদ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (৫ম) আদালতে নাহিদুল ইসলাম ইব্রাহিমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আদালত এবিষয়ে শুনানি শেষে নাহিদুলের চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এতথ্য শুভ প্রতিদিনক নিশ্চিত করেছেন সিলেট জেলা পুলিশের সহকারী মিডিয়া অফিসার ও ওসি ডিবি সাইফুল আলম। তিনি জানান, স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ায় সুরমা বেগমকে জেলহাজতে ও তার পরকিয়া প্রেমিককে চার দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

এ ঘটনায় নিহত সাহেলের পিতা খসরু মিয়া বাদী হয়ে রোববার রাতে ৩ জনের নামোল্লেখ করে বিয়ানীবাজার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর আমরা ঘটনাস্থল থেকে আটক নাহিদুল ইসলাম ইব্রাহিম ও সুরমা বেগমকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয়।

নাহিদুল চারখাই এলাকার কামাল মিয়ার ছেলে হলেও তিনি উত্তর আকাখাজনায় তার মামার বাড়িতে থাকতেন।


সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin