মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০৫ পূর্বাহ্ন



বিয়ের দাবীতে আরিফুল হকের বাড়িতে প্রেমিকা ডালি’র অনশন

বিয়ের দাবীতে আরিফুল হকের বাড়িতে প্রেমিকা ডালি’র অনশন


শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:
বিয়ের দাবীতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকা আমরণ অনশন শুরু করেছে। বিয়ের দাবী না মানলে আত্মহত্যার হুমকি দিয়েছে প্রেমিকা ডালি আক্তার।

অনশনকারী প্রেমিকা সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার তাহিরপুর উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নের ছিলানী তাহিরপুর গ্রামের আনোয়ার হোসেনের মেয়ে ডালি আক্তার (২০) আর অভিযুক্ত প্রেমিক একই গ্রামের একলাছ উদ্দিনের ছেলে আরিফুল হক (২৩)।

প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন করার ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। এদিকে ছেলের পরিবার প্রভাবশালী হওয়ার কারনে ঘটনাটি দামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চলছে। অন্যদিকে এ ঘটনায় সোমবার (২০ জুলাই) বিকালে তাহিরপুর থানার লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন মেয়ের পক্ষে ভাই টিপু মিয়া।

লিখিত অভিযোগ ও স্থানীয় এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, উপজেলার ছিলানী তাহিরপুর গ্রামের আরিফুল হক ও ডালি আক্তার একেই গ্রামের বাসিন্দা হওয়ায় তারা দু’জন দু’জনের সাথে দীর্ঘ ৮ বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে।

এক পর্যায়ে গত ৮ মাস পূর্বে প্রেমিকা ডালি আক্তারকে তার পরিবারের লোকজন অন্যত্র একটি ছেলের সাথে বিয়ে দিয়ে দেন। বিয়ের পরও তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক রয়ে যায়। এছাড়া তারা দু’জন একাধিক বার শারীরিক সম্পর্ক হয়েছে বলেও জানা গেছে। বিয়ের ৩ মাস পর প্রেমিক আরিফুল হক বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ডালি আক্তারের স্বামীর কাছ থেকে ডিভোর্স করায়। ডিভোর্সের সম্পূর্ন খরচ বহন করে আরিফুল হক।

ডিভোর্স হওয়ার পর ডালিয়া চলে আসে বাবার বাড়িতে। এরপর ডালিয়া ও আরিফুলের সম্পর্ক ভালই চলছিল। কিছু দিন ধরে বিয়ের জন্য প্রেমিকা ডালি চাপ দিলে প্রেমিক আরিফুল গত কয়েক দিন ধরে যোগাযোগ বন্ধ করে দে।

যোগাযোগ করতে না পারায় এক পর্যায় ডালি গত কাল সোমবার (১৯ জুলাই) সন্ধ্যা ৭ টা থেকে ডালি আক্তার প্রেমিক আরিফুল হকের বাড়িতে বিয়ের দাবীতে অনশন শুরু করে। এরপর পর থেকে বাড়িতে তালা দিয়ে প্রেমিক আরিফুল ও তার মা-বাবা ঘাঁ ডাকা দিয়েছে।

ডালি আক্তারের অভিযোগ তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিক বার শারীরিক সম্পর্ক করে আরিফুল। স্বামীর কাছ থেকেও ডিভোর্স করিয়েছে আরিফুল। ডিভোর্সের সব ব্যয় বহনও করে সে। এখন বিয়ে জন্য বললে সে রাজী হচ্ছে না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, ছেলের পরিবার প্রভাবশালী হওয়ার কারনে কেউ কোন কথাও বলছে না। অনশনকারী মেয়ের কাছে কাউকে যেতেও দিচ্ছে না। ছেলের পরিবারের ইচ্চা কোনভাবে মেয়েকে বুঝিয়ে পিতার বাড়িতে পাঠিয়ে দিতে পারলেই হল।

এই বিষয়ে স্থানীয় বাসিন্দা মাওলানা গোলাম কিবরিয়া জানান, আমি ছেলে ও মেয়ের বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছি দু পক্ষের সাথে কিন্তু ছেলের মা-বাবা অনশনকারী মেয়ের সাথে বিয়ে দিতে রাজি না। কিন্তু মেয়ের পরিবার বিয়ে দিতে রাজি। আর বিয়ে না হলে মেয়ে ছেলের বাড়িতেই অবস্থান করবে। কোন ভাবেই নিজ বাড়িতে যাবে না।

স্থানীয় মেম্বার সাজিনুর মিয়া জানান, এই ঘটনা শুনেছি। ছেলের বাবা আমার কাছে এসেছিলেন আমি বলেছি যে ছেলেকে আসতে বলেন। সে এসে এর সমাধান করুক। সে না আসলে ত সমাধান হবে না। তবে আজ মঙ্গলবার দুপুরে উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নের পরিষদের ছেলে ও মেয়ের পক্ষের লোকজন নিয়ে বসার কথা রয়েছে।

উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নের পরিষদের চেয়ারম্যান খসরুল আলম জানান, এমন একটি খবর লোকজন আমাকে জানিয়েছেন। ঘটনাটি গ্রামের গন্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে বসে সমাধানের চেষ্টা করবো।

এই ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে তাহিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত অফিসার আতিকুর রহমান জানান, একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এই বিষয় নিয়ে গুরুত্বসহকারে তদন্ত চলছে।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin