শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৮:০৫ পূর্বাহ্ন



বোরো ধান: করোনা যুদ্ধের রসদ! ইউএনও শ্রীমঙ্গল

বোরো ধান: করোনা যুদ্ধের রসদ! ইউএনও শ্রীমঙ্গল


শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি:
করোনার বিরুদ্ধে চলমান যুদ্ধে পর্যাপ্ত খাদ্য উৎপাদন, মজুদ ও সরবরাহ এখন অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ। আর এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমাদের জন্য আশির্বাদ হয়ে এসেছে চলতি মৌসুমের ‘বোরো ধান’৷ এবার দেশজুড়ে বোরো ধানের বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করা হচ্ছে । তবে, ঝড়-বৃষ্টির সাথে পাল্লা দিয়ে সময়মত এ ধান ঘরে তুলতে পারাটাও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

সোমবার দুপুরে শ্রীমঙ্গল উপজেলার হাইল হাওর এলাকায় বোরো ক্ষেতের ধান কাটা পরিদর্শন শেষে এ মন্তব্য করেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. নজরুল ইসলাম ।

এ সময় শ্রীমঙ্গল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নিলুফার ইয়াসমিন তার সাথে ছিলেন। কর্মকর্তারা কৃষকদের সাথে কথা বলেন এবং ধান কাটা নিয়ে যে কোন সমস্যায় প্রশাসনিক সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

শ্রীমঙ্গলের ইউএনও বলেন, দেশজুড়ে লকডাউন পরিস্থিতির কারণে “লেবার মোবিলাইজেশন” বিঘ্নিত হলে ধান কাটার শ্রমিকের দুষ্প্রাপ্যতা তৈরি হতে পারে। এক্ষেত্রে স্বেচ্ছাসেবী/ স্বেচ্ছাশ্রম নিয়োগের ব্যাপারে আমাদের গুরুত্ব দিয়ে ভাবতে হবে।

উল্লেখ্য, এ বছর শ্রীমঙ্গল উপজেলায় ৯ হাজার ৪শ’ ১২ হেক্টর জমিতে বোরো চাষা হয়েছে।

এর মধ্যে হাওর এলাকায় ৩ হাজার ৬শ’ ৫০ হেক্টর এবং সমতলে ৫ হাজার ৭শ’ ৬২ হেক্টর জমিতে এ আবাদ করা হয়েছে। কৃষি অফিসের সুত্র মতে, ইতোমধ্যে শ্রীমঙ্গলের হাওরাঞ্চলের প্রায় ৩৫ ভাগ ধান ( BRRI- ২৮ প্রজাতির) এখনই ঘরে তোলার উপযোগী হয়েছে এবং প্রায় ২০ ভাগ ধান কৃষকের ঘরে উঠে গেছে।

ইউএনও নজরুল ইসলাম আশা প্রকাশ করে বলেন, আগামী এক সপ্তাহর মধ্যে সকল প্রজাতির ধানই পাকতে শুরু করবে। আর এই সময়টাতে ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। সেক্ষেত্রে কোনরকম ক্ষতি ব্যতিরেকে কৃষকের ধান ঘরে তোলার ক্ষেত্রে কিছুটা হলেও ঝক্কি-জামেলা পোহাতে হতে পারে।

শ্রীমঙ্গলে ধান কাটার শ্রমিকের সংকট হওয়ার সম্ভাবনা নেই জানিয়ে তিনি আরো বলেন, সাধারণত চা শ্রমিকদের একটা অংশ ধান কাটার কাজটিতে প্রতিবছরই যুক্ত হয়ে থাকে; এবারও তার ব্যতিক্রম হবে না। তবে তিনটি ক্ষেত্রে স্বেচ্ছাশ্রম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

প্রথমতঃ ক্ষুদ্র কৃষককে স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে সহায়তা করা,
দ্বিতীয়তঃ দুর্যোগকালীন ( ঝড়-বৃষ্টি) তাৎক্ষণিক বাড়তি শ্রমের প্রয়োজন হলে স্বেচ্ছায়/ যার যার সুবিধামত এগিয়ে আসা এবং তৃতীয়তঃ ধান কাটার সামগ্রিক কাজটিতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার বিষয়ে সচেতন/ উদবুদ্ধ করা।

তিনি বলেন, ছাত্র, যুবক, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন – যার যার প্রতিবেশী বা সুবিধাজনক আংগিকে এ কাজটিতে যুক্ত হয়ে করোনার বিরুদ্ধে এ যুদ্ধে নিজেদের সামিল করতে পারেন। এজন্য উপজেলা প্রশাসন থেকে প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহায়তা করতে প্রস্তুত আছে।

শ্রীমঙ্গলের ইউএনওর মতে, লক ডাউন পরিস্থিতির কারনে কর্মহীন মানুষের খাদ্য সহায়তা অব্যাহত রাখা, কলকারখানায় উৎপাদন বন্ধ থাকায় মানুষের ক্রয় ক্ষমতা হ্রাস পেতে পারে, বিদেশ থেকে খাদ্য আমদানির সুযোগ থাকবে কি-না এরকম নানা আশংকায় চলতি বোরো ধান আমাদের একমাত্র ভরসা।

তিনি বলেন, ‘এক অদৃশ্য শক্তির বিরুদ্ধে এই মুহূর্তে গোটা বিশ্ব যুদ্ধে অবতীর্ণ। চলমান এই করেনা যুদ্ধে বোরো ধানই এখন আমাদের অন্যতম প্রধান রসদ’।


সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin