রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:১৪ পূর্বাহ্ন


ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবি দেশে ফিরেই জিজ্ঞাসাবাদের মুখে সিলেটের ১৩ যুবকসহ ১৫জন

ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবি দেশে ফিরেই জিজ্ঞাসাবাদের মুখে সিলেটের ১৩ যুবকসহ ১৫জন


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট
মৃত্যুর খুব কাছ থেকে ফিরে দেশে এসেও স্বজনদের সান্নিধ্যে আসতে পারেননি ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবির ঘটনায় প্রাণে বেঁচে যাওয়া ১৫ বাংলাদেশি। দীর্ঘ জিজ্ঞাসাবাদের কারণে বিমানবন্দরেই কেটেছে মঙ্গলবার সারাদিন। গতকাল মঙ্গলবার ভোর ৪টা ৫৫ মিনিটে টার্কিশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌছান ১৫ বাংলাদেশি। বিমানবন্দরে এসেই পড়তে বিভিন্ন সংস্থার জিজ্ঞাসাবাদের ‘গ্যাড়াকলে’। গতকাল মঙ্গলবার এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত দেশে ফেরত আসা যুবকরা শাহজালাল বিমানবন্দরে অবস্থান করছিলেন বলে জানান তাদের স্বজনরা। এতে উদ্বেগ উৎকন্ঠা বিরাজ করছিল তাদের স্বজনদের মাঝে। সন্তানকে ফিরে পাবার ব্যকুলতায় পথ চেয়ে বসে আছেন মা। তবে আজ বুধবার তারা বাড়িতে ফিরবেন বলে আশা করছেন স্বজনরা।

এদিকে প্রাণে বেঁচে যাওয়ার পর দেশে আসা ১৫ বাংলাদেশির মধ্যে ১৩ যুবকই সিলেটের ও ২ জন মাদারীপুরের। দেশে ফেরা সিলেটের যুবক রুবেল আহমদের ভাই রাসেল আহমদ গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, দেশে ফেরত আসাদের মধ্যে সিলেটের সদর উপজেলার ঘোপাল এলাকার মো. চমক আলীর ছেলে রুবেল আহমদ, দক্ষিণ সুরমার লালারগাও এলাকার জাবের, বিশ্বনাথ উপজেলার পালরচক গ্রামের মাছুম আহমদ। এছাড়া বিয়ানীবাজারে আরেক যুবকসহ বিভিন্ন উপজেলার ১০ জন।

তিনি আরো বলেন, মঙ্গলবার ভোর ৪টা ৫৫ মিনিটে টার্কিশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে ওই ১৫ জন দেশে পৌঁছান। ওসমানী বিমানবন্দরে আসার পর রুবেলের সাথে আমার কথা হয়েছে। বিমানবন্দরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। তিনি বলেন, রুবেলের সাথে একই ফ্লাইটে দেশে আসা সিলেটের ১৩জনই বিশ্বনাথ উপজেলার কাঠলীপাড়া গ্রামের চমক আলীর ছেলে আদম বেপারি রফিকুল ইসলাম রফিক-এর মাধ্যমে ইতালি যেতে চেয়েছিলেন। এর আগে সোমবার দুপুরে মা রাজিয়া বেগমকে ফোন দিয়ে দেশে ফেরার কথা জানিয়েছিলেন সিলেট সদর উপজেলার কান্দিগাও ইউনিয়নের ঘোপাল গ্রামের রুবেল আহমদ।

তিউনিশিয়া থেকে দেশে ফেরা রুবেলের ভাই রাসেল আহমদ জানান, ২০১৮ সালের জুন মাসে ১০ রমজান বিশ্বনাথ উপজেলার কাঠলীপাড়া গ্রামের চমক আলীর ছেলে আদম বেপারি রফিকুল ইসলাম রফিক-এর মাধ্যমে রুবেলকে লিবিয়া পাঠানো হয়। রফিক লিবিয়ায় থাকা তার পুত্র পারভেজের মাধ্যমে ইতালী পাঠানোর ব্যবস্থা করে। লিবিয়ার পৌঁছার আগে সাড়ে ৫ লাখ টাকা নেয় রফিক। এরপর গত ৯ মে লিবিয়া থেকে ইতালী পাঠানোর আগে তাদের কাছ থেকে আরো সাড়ে ৩ লাখ টাকা নেয় তারা। ঐ টাকাগুলো নিজের বসত ঘরের পাশের ৪ শতক জায়গা বিক্রি করে দেয়া হয়। সবমিলিয়ে ৯ লাখ টাকা দালালের হাতে তুলে দিয়েছিলেন।

রুবেলের মামা আবুল হোসেন জানান, দালাল রফিক তাদের সাথে কথা রাখেনি। কথা ছিল বাংলাদেশ থেকে বিমানে লিবিয়া এবং সেখান থেকে মাছ শিকারের জাহাজে করে তাদের ইতালী পাঠানো হবে। প্লাস্টিকের বেলুনের মতো নৌকায় তুলে সাগর পাড়ি দেওয়ার কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin