বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৪২ অপরাহ্ন


ভেজাল ও নিম্নমানের পণ্যে সয়লাব সিলেটের বাজার

ভেজাল ও নিম্নমানের পণ্যে সয়লাব সিলেটের বাজার


শেয়ার বোতাম এখানে

মবরুর আহমদ সাজু: ভেজাল ও নিম্নমানের পণ্যে সয়লাব সিলেটের হাট-বাজার। ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানেও থামছে না মানহীন ভোগ্যপণ্যের বাজারজাত। নিম্নমানের এসব মসলা শহর ছাড়িয়ে দেদারছে বিক্রি হচ্ছে গ্রামেগঞ্জেও। ভেজাল পণ্য বাজারজাতে পেছনে রয়েছে একটি অতিমুনাফালোভী চক্র। অসাধু চক্রের কারণে ভোগ্যপণ্যে চরম হুমকিতে জনস্বাস্থ্য। প্রতিবছর রোজা আসলে ভেজাল প্রতিরোধে নেয়া হয় নানা উদ্যোগ। চলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান। কিছুদিন পর অভিযান থেমে যায়। অব্যাহত থাকে ভেজালকারীদের তৎপরতা। এবারও অভিযান চলছে, চলছে ভেজালপণ্য ধ্বংস ও জরিমানা। তবে অভিযানে বাইরে রয়ে গেছে একটি সিন্ডিকেট চক্র।

অভিযানে দেখা গেছে, ভেজাল, নকল, মানহীন অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বাংলা সেমাই, লাচ্ছা সেমাই, নুডলস, ঘি তৈরি হচ্ছে। খাওয়ার অযোগ্য উপকরণে তৈরি হচ্ছে বেকারি সামগ্রী। মানহীন হলুদ, মরিচ, মসলা, বেসনেও ভেজালের মিশ্রণ। মেয়াদোত্তীর্ণ আটা, ময়দা, ভোজ্যতেল, লবণও বিক্রি হচ্ছে দেদারছে। আম, কলা, পেঁপে, ফলমূল, মাছ, শুঁটকিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় অনেক পণ্যে জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর নানা উপকরণ ও রাসায়নিক মেশানো হচ্ছে। মেয়াদোত্তীর্ণ কাঁচামাল, ফরমালিন-কার্বাইড, সূতা রাঙানোর বিষাক্ত রং, ভেজাল পাম তেল, সেন্ট, পচা ডিম মেশানো হচ্ছে খাদ্যপণ্যে। নগরীর অভিজাত চেইন শপ থেকে শুরু করে সুপার মার্কেট, হাট-বাজার, ফুটপাত সর্বত্রই মিলছে ভেজাল পণ্য।
অনুসন্ধানে দেখাযায়, সিলেটের বৃহত্তম ভোগ্যপণ্যের পাইকারি বাজার হকার্স মার্কেট কালিঘাট, কাজির বাজার থেকে শুরু করে নগরীর একাধিক স্থানে নকল ও নিম্নমানের পন্যে বিক্রি হচ্ছে। জানা গেছে শহরের পাইকারি বাজার থেকে ভেজাল পণ্য সরবরাহ করে সিন্ডিকেটের সদস্যরা গ্রাম-গঞ্জে বিক্রি করে। এসব পণ্যের প্যাকেট এতটাই নিখুঁত যে বোঝার উপায় নেই এটি আসল না নকল।

সিলেটের গৃহিনীরা অভিযোগ করছেন রান্নার পর হাড়ির নিচে মসলার গুঁড়া জমে তাকে। ভেজালের ব্যাপারে সিলেটের সচতেন নাগরিকরা এর জন্য দায়ি করছেন দুর্বল মনিটরিং ব্যাবস্থাকে। আর চিকিৎসকরা বলছেন ভেজাল মসলা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। ভেজাল খাবারের কারণে ক্যান্সার ও গ্যাস্টিক আলসার ও কিডনি রোগির সংখ্যা বাড়ছে। মরিচের সঙ্গে ধানের তোষ ও কাঠের গুঁড়া, হলুদে মটর ডাল, ধনিয়ায় স মিলের কাঠের গুঁড়া ও পোস্তদানায় সুজি মেশানো হচ্ছে। সিলেট নগরীর বিভিন্ন পাইকারী বাজার ঘুরে মসলা বিক্রেতা এবং ভেজাল মসলা কিনে প্রতারিত হওয়া মানুষের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। বেশি মুনাফার লোভে কয়েকটি অসাধু ব্যবসায়ী চক্র বাজারে এসব ভেজাল মসলার জোগান দিচ্ছে। অসাধু দোকানদাররাও বেশি লাভের আশায় এসব ভেজাল মসলা বেশি বিক্রি করছে। এছাড়া বিভিন্ন স’মিলে ভেজাল মসলা তৈরি করে খোলা বাজারে বিক্রি করছে। আর বিএসটিআই দেখেও না দেখার ভান করছে।

বিশেষ করে হাটবাজারের পাশে ফুটপাতে বসে বিক্রি করা খাদ্যের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভেজাল রয়েছে। এই ভেজাল পণ্যে কিনে মানুষ একদিকে যেমন প্রতারিত হচ্ছে, আবার অন্যদিকে এসব খেয়ে আক্রান্ত হচ্ছে নানা জটিল রোগে।

কালীঘাট বাবুল ব্রাদার্সের ব্যবসাীয় বাবুল চন্দ্র জানান, রমজান মাসে মসলার চাহিদা অনেক বেশি থাকে। এ জন্য ভেজাল ও নিম্নমানের মসলা উৎপাদনকারী চক্রটি বেশ আগেভাগে দোকানে দোকানে সরবরাহ দিয়েছে এসব ভেজাল মসলা।

এরই মধ্যে আম্বরখানা কাজির বাজার কালঘাট লালদিঘির পারসহ বন্দরের ফুটপাতে বেশি, আর এখান থেকে সিলেটের আশেপাশের বাজার, গোলাপগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, ঢাকাদক্ষিন, রামধা, গোবিন্দ্রশ্রী, রানাপিং, চারখাই, রাজাগঞ্জ, কানাইঘাট, গোয়াইনঘাট, শ্রীরামপুর, কুচাই, ওসমানীনগর, তাজপুর, বেগমপুর, শেরপুর, বুরুঙ্গা, উমরপুর, দয়ামীরসহ অনেক হাটবাজারগুলো ভেজাল মসলায় ভরে গেছে বলে জানান ক্রেতারা।
কালিঘাটের কয়েকজন মুদি দোকানদার তাদের ব্যবসায় সমস্যা হবে বলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, বাজারে বেশ কয়েকটি ভেজাল মসলা উৎপাদনকারী সিন্ডিকেট রয়েছে। তারা গোপনে বিভিন্ন জায়গায় ভেজাল মসলা উৎপাদন ও প্যাকেটজাত করে পুরো সিলেট নগরীর আশপাশের মুদির দোকানসহ খোলাবাজারে সরবরাহ করে।

এ ব্যাপারে কবুতর মশলার বিক্রয় প্রতিনিধি আব্দুল জব্বার জানান, উৎপাদনকারীরা তিনভাবে বাজারে ভেজাল মসলা সরবারহ করে। কিছু বিক্রি করে প্যাকেট ছাড়া, কিছু বিক্রি করে সাধারণ প্যাকেটে করে আবার কিছু বিক্রি করে নামি-দামি মসলা কম্পানির লেবেল লাগিয়ে। আর এসব ভেজাল মসলা কিনে মানুষ প্রতিনিয়ত প্রতারণার শিকার হচ্ছেন। কিন্তু প্রশাসনের এ ব্যাপারে কোনো নজরদারী নেই। এতে উদ্বিগ্ন ক্রেতারা। তারা বলছেন, দায়িত্বে অবহেলা করে সরকারি কর্মকর্তারা যেমন সাধারণ মানুষকে ক্ষতিগ্রস্ত করেন, তেমনি জনগণ থেকেও সরকারকে বিচ্ছিন্ন করেন।
সিলেট লালাদিঘীর পাড়ের পাইকারী ব্যবসায়ী সালাম জানান, বর্তমানে সিলেটের বাজার ৪০ শতাংশ পণ্যই ভেজাল। তিনি জানান, বাচ্চাদের খাবার থেকে শুরু করে সব ধরনের খাদ্যপণ্য আসল পন্যের মত হুবুহু নকল পন্য পাওয়া যায়। যার বেশীর ভাগ পন্য সিলেটের প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিক্রি করা হচ্ছে। বিভিন্ন গ্রামাঞ্চলে কোম্পানীর নিজস্ব প্রতিনিধির মাধ্যমে তা বিক্রি করা হয়ে থাকে। এ ব্যবসায়ী আরো জানান, এসব ভেজাল পন্যের গোডাউন কোথায় আছে তা আইনশৃঙ্খলা বাহীনির জানা আছে।

এদিকে নগরীতে ভেজাল পন্যের জন্য ভোক্তা সংরক্ষণ অধিকার নিয়ে দেখা দিয়েছে প্রশ্ন। অনেক ভোক্তাই মনে করছেন এসব পণ্য ক্রয় করে তারা ভোক্তার অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর যদি নিয়মিত এসব ভেজাল পণ্যের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করে তাহলে তারা এ থেকে কিছুটা হলেও সমাধান পাবে।

এ প্রসঙ্গে সিলেট জেলার সিভিল সার্জন ডা. হিমাংশু লাল রায় বলেন, আইন আছে প্রয়োগ নেই সিলেটের মাঠ প্রশাসন দূর্বল থাকায় বাজারে বেশীর ভাগ পণ্যই ভেজাল মানহীন। এসব ভেজাল ও মানহীন খাদ্যদ্রব্য নিয়মিত গ্রহণের কারণে স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদে স্বাস্থ্য ঝুঁকি সৃষ্টি হচ্ছে। স্বল্পমেয়াদে বদহজম, গ্যাস্ট্রিক, খাবারে অরুচি ও হƒৎপিন্ডে ক্ষত সৃষ্টি করতে পারে। কিন্তু দীর্ঘমেয়াদে হƒৎপিন্ড, যকৃৎ, কিডনি ও ফুসফুসও আক্রান্তের আশংকা আছে। এছাড়া উচ্চরক্তচাপ, ডায়াবেটিসসহ ক্যান্সারের মতো মরণব্যাধিতে আক্রান্ত হতে পারে যে কোনো মানুষ।

সিলেট জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর সিলেট জেলার সহকারী পরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, আমাদের জনবল সংকট আমরা মাসে ৫ দিন জেলায় উপজেলায় মনিটরিং করে থাকি ভেজাল প্রতিরোধে আমরা সবসময় মাঠে থাকবো। আসন্ন রমজানে স্বাস্থ্যসম্মত খাদ্যপ্রাপ্তি নিশ্চিতে কিছু দিনের মধ্যে নগরীতে ব্যবসায়ী ও ক্রেতার মাঝে জনসচেতনতামূলক সভা করা হবে। তিনি বলেন, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষনের লক্ষ্যে সিলেট জেলার ১৩ টি উপজেলা এবং ১০৫ টি ইউনিয়নে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমরা ভোক্তার অধিকার সংরক্ষনে বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে আসছি।

সিলেট মহানগর ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণের সহকারী পরিচালক ফয়জুল্লাহ বলেন, জনবল সংকটে আমরা হিম শিম খাচ্ছি ভেজাল পন্যের বিরুদ্ধে আমরা ভোক্তার অভিযোগের প্রেক্ষিতে অভিযান পরিচালনা করি। এ কর্মকর্তা আরো জানান, সিলেটে পণ্যের মান যাচাই বাচাইয়ের জন্য পরীক্ষাগার নেই। তাই এ ধরনের অভিযান পরিচালনা করার আগে আমাদের জানতে হয় পন্যের বিএসটিআইর ছাড়পত্র আছে কিনা। আমরা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষনে এ বিভাগ সততার সাথে কাজ করে যাচ্ছে। ভোক্তার অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথেই আমরা বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে থাকি। ভোক্তার অধিকার রক্ষায় আমরা সচেতন।

সিলেটের জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উম্মে সালিক রুমাইয়া বলেন, অতি লোভের কারণে যারা ভোক্তাদের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে, তারা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। আমরা জেলা প্রশাসন থেকে প্রতিনিয়ত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করি। ভেজাল রোধে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের পক্ষ থেকে নির্দেশনা দেওয়া আছে এবং জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা এটি নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করছেন। তিনি আরও বলেন, দেশের মানুষের ভ্রাম্যমাণ আদালতের ওপর আস্থা তৈরি হয়েছে। তাৎক্ষনিকভাবে অপরাধীদের শাস্তি দিতে এর বিকল্প নেই।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin