সোমবার, ১৭ মে ২০২১, ০৯:২৫ পূর্বাহ্ন

শ্রীমঙ্গল রেল স্টেশন থেকে খাঁচায় বন্দী ময়না টিয়া উদ্ধার : জিআরপি পুলিশের বিরুদ্ধে অসহযোগীতার অভিযোগ

শ্রীমঙ্গল রেল স্টেশন থেকে খাঁচায় বন্দী ময়না টিয়া উদ্ধার : জিআরপি পুলিশের বিরুদ্ধে অসহযোগীতার অভিযোগ


শেয়ার বোতাম এখানে

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি:

শ্রীমঙ্গল রেল স্টেশন এলাকা থেকে খাঁচায় বন্দী বেশ কিছু ময়না টিয়া উদ্ধার করেছে বন্য প্রাণী বিভাগের কর্মীরা। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার সন্ধ্যায় মৌলভীবাজার বন্য প্রাণী রেঞ্জের রেঞ্জ কর্মকর্তা মোনায়েম হোসেনের নির্দেশে জুনিয়র ওয়াইল্ড লাইফ স্কাউট বুলবুল মোল্লার নেতৃত্বে সঙ্গীয় ফরেস্ট গার্ড সুব্রত সরকার শ্রীমঙ্গল রেল স্টেশন এর ষ্টাফ কোয়ার্টার ও পাশের একটি কলোনিতে অভিযান চালিয়ে এসব বন্য পাখি উদ্ধার করা করে।

বন কর্মীরা শ্রীমঙ্গল ষ্টেশন স্টাফ পয়েন্টম্যান আব্দুল খালেকের কোয়ার্টার থেকে একটি ময়না পাখি ও পাখি রাখার বেশকিছু খাঁচা উদ্ধার করে।

এসময় আব্দুল খালেক দাবী করেন, এই ময়না পাখির মালিক শ্রীমঙ্গল জিআরপি থানার ওসি আলমগীর হোসেনের। পাখিটি ওসির সাথে কথা না বলে বন বিভাগের কাছে হস্তাস্তরে বাঁধা দেন তিনি। পরে খাঁচাসহ ময়না পাখিটি রেল ষ্টেশনের প্লাটফরমে এনে রাখা হয়।

পরে জিআরপি থানা পুলিশের ওসি আলমীর হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ পাখিটি তার নয়, তবে কেনার কথা ছিল বলে জানান। পরে স্টেশন সংলগ্ন শ্রীমঙ্গলের সাবেক স্টেশন মাস্টার (বর্তমানে সিলেটে কর্মরত) জাহাঙ্গীর হোসেনের কোয়ার্টারে বেশ কিছু বন্য পাখি রয়েছে বলে জানতে পারেন ওয়াইল্ডলাইফ স্কাউট সদস্যরা।

এসময় তারা স্টেশন মাস্টার জাহাগীর হোসেনের কোয়ার্টার থেকে বন্য পাখি উদ্ধারে জিআরপি পুলিশের সহযোগীতা চাইলে ওসি আলমগীর হোসেন জানান, জিআরপির সাহায্য নিতে হলে দরখাস্ত দিতে হবে। পরে তা এসপি বরাবর পাঠিয়ে অনুমতি আনতে হবে। ওসি আলমগীর হোসেন সে পর্যন্ত পাখিগুলি প্রহরা দিতে ৪ জন বন রক্ষী নিয়োগের পরামর্শ দিয়ে কালক্ষেপন করেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এছাড়া জিআরপি ওসি সাফ জানিয়ে দেন রেল লাইনের ১০ ফুট পর্যন্ত তাদের দায়িত্ব। বাকিটা বেঙ্গল পুলিশের এখতিয়ার। পরে মৌলভীবাজার বন বিভাগের র‌্যাঞ্জার মোনায়েম হোসেনের সাথে যোগাযোগ করে শ্রীমঙ্গল থানা থেকে পুলিশ টিম আসা হয়।

থানা পুলিশের সহযোীতায় ওসি আলমগীরের ময়না পাখিটি উদ্ধার করে বন কর্মীরা। পরে স্টেশন মাষ্টার জাহাঙ্গীর হোসেনর কোয়ার্টার থেকে ২টি টিয়া, ২টি শালিক, ঘুঘুসহ বিভিন্ন প্রজাতির ৮টি বনের পাখি উদ্ধার করা হয়। এছাড়া ষ্টেশন সংলগ্ন শাহীবাগ এলাকার রেল লাইনের ধারে একটি কলোনিতে অভিযান চালিয়ে শাহিদা আক্তার নামে এক মহিলার হেফাজতে থাকা আরো একটি ময়না উদ্ধার করে নিয়ে আসে বন কর্মীরা।

শ্রীমঙ্গল কর্তব্যরত স্টেশন মাস্টার শাখাওয়াত হোসেন বলেন, সাবেক স্টেশন মাস্টার বর্তমানে সিলেটে বদলি হলেও তার পরিবার এখানে কোয়ার্টারে থাকেন। তিনি শখের বসে কিছু সৌখিন পাখি ও দেশী পাখি প্রতিপালন করে থাকেন। অভিযান কালে স্টেশন মাস্টার সাখাওয়াত হোসেন এসব পাখি উদ্ধারে বন বিভাগ ও পুলিশের সদস্যদের সহযোগীতা করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শ্রীমঙ্গল জিআরপি থানার ওসি আলমগীর হোসেন জানান, রেল ষ্টেশন থেকে ১০ ফুট এলাকা তাদের নিরাপত্তা দেখার এখতিয়ার রয়েছে। এর বাহিরে বেঙ্গল পুলিশের দায়িত্ব। তবে তার কোন সাহায্য চাইলে যে কেউ লিখিত আবেদন করতে পারেন। তবে তিনি পয়েন্ট ম্যান আব্দুল খালেকের কাছ থেকে টিয়া পাখিটি কিনতে চেয়েছিলেন, কিন্তু কিনেন নি বলে জানান।

তবে আব্দুল খালেক জানান, লোহার খাচাঁসহ ওসি সাহেব ময়না পাখিটি কিনেছেন। এরপর থেকে তার তিনি ময়নাটি তার কোয়ার্টারে রেখে প্রতিপালন করছেন।

পাখি উদ্ধারে জিআরপি ওসির যুক্তির সাথে ভিন্ন মত পোষন করে অভিযানে অংশ নেয়া শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশের ২ এসআই আব্দুল মালেক ও দেলওয়ার হোসেন জানান, রেলের ভূ-সম্পত্তি যেখানে যে অবস্থায় আছে তা দেখার দায়িত্ব রেলে পুলিশের।

অভিযান শেষে জুনিয়র ওয়াইল্ড লাইফ স্কাউট বুলবুল মোল্লা বলেন, দেশী বন্য প্রাণী ধরা পোষা আ খাওয়া দন্ডনীয় অপরাধ। তিনি উদ্ধারকৃত বন্য পাখিদের স্বাস্থ্য পরিক্ষা শেষে আবারো বনে অবমুক্ত করা হবে বলে জানান।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin