রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৩৮ অপরাহ্ন



মন ভালো নেই রাতারগুলের


মবরুর আহমদ সাজু:
প্রতিদিন যে রাতারগুলে হাজারো পর্যটকদের পদচারনায় মুখরিত হতো, সেখানে এখন সুনশান নীরবতা! চারদিকে বিরাজ করছে শূন্যতা। করোনায় বন্ধ হোটেল, মোটেল রেস্তোরা। কর্মহীন স্থানীয় নৌকার মাঝিরাও।

রাতারগুলের জলে ঢেউ নেই, বনে নেই মানুষের কোলাহলের কোনো চিহ্ন! বৈশ্বিক করোনা ভাইরাসের নেতিবাচক প্রভাবে পুরোপুরি নির্জনতায় চেয়ে আছে সিলেটের সুন্দরবন খ্যাত পর্যটন অঞ্চল এই বনভূমিতে।

তবে এতে খুব যে ক্ষতি হয়েছে তা নয়। পর্যটকদের আনাগোনা না থাকায় প্রকৃতি একেবারে নিজের মত করে রূপের ডালি সাজিয়ে নিতে পেরেছে। জেগে উঠছে নতুন বৃক্ষরাজী। সবুজে আরও বেশি পল্লবিত হয়ে মোহনীয় হয়ে উঠেছে পুরো বনাঞ্চল।

এদিকে সাজ পূর্ণতর হলেও যারা সেই সৌন্দর্য উপভোগ করবে, তাদের দেখা নেই। না বনে, না জলে, না স্থলে! সবখানে প্রকৃতিমুগ্ধ হবার মানুষ নেই। যাকে রূপে-গুণে তুষ্ট করবে রাতারগুল!

করোনাকালে একেবারে মুখ থুবড়ে পড়েছে রাতারগুলের পর্যটন ব্যবসা। খাঁ খাঁ করছে সব হোটেল। হোটেল সার্ভিস বন্ধ। সুন্দর করে বাঁধানো আর সাজানো পাড় ঠিক যেন জনহীনপুরী।

প্রাকৃতিক সৌন্দের্যের ভরপুর আমাদের
বাংলাদেশের যে কয়েকটি পর্যটন স্পট রয়েছে তার মধ্য অন্যতম রাতারগুল। করোনা ও বর্ষাকালে কালের স্বাক্ষী হয়ে আছে সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার বিখ্যাত পর্যটনস্পট রাতারগুল।

পানি-আকাশ আর সবুজের টানে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে সিলেটের রাতারগুল। ইতিহাস উদঘাটন করলে দেখা যায়, ভারতীয় উপমহাদেশে স্বাদুপানির জলাবন রয়েছে মাত্র দু’টি। একটি শ্রীলংকায়, আর অন্যটি, বাংলাদেশের সিলেট শহর থেকে ২৬ কিলোমিটার দূরে রাতারগুল। দীর্ঘদিন লোকচক্ষুর আড়ালে থাকলেও, গত কয়েক বছরে, ভ্রমণ পিপাসুদের আলোচনায় উঠে আসে এ বনটি।

এদিকে বরাবরই সিলেটের অর্থনীতির বেশিরভাগ পর্যটন নির্ভর। কিন্তু দীর্ঘসময় পর্যটন-স্পট বন্ধ থাকায় ব্যবসায়ীরা বিশাল ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন। অন্যদিকে পর্যটকরা আনন্দর থেকে বন্চিত হচ্ছেন পর্যটকরা ।

তবে সংশ্লিষ্ট জনেরা জানিয়েছেন পর্যটন শিল্পে স্তবিরতা কাটিয়ে উঠতে সরকারের সুদৃষ্টি প্রয়োজন।
গতকাল সিলেটের অন্যতম পর্যটনস্পটে গিয়ে দেখা যায়। সুনসান নিরবতা চলছে। স্থানীয় এক বাসিন্দা আকলিছ মিয়া জানান, কেউ কেউ পথে বসার উপক্রম। আবার কবে অবস্থা স্বাভাবিক হয়ে এটিও এখনোও অজানা। এমন অবস্থায় পর্যটন শিল্প ঠিকিয়ে রাখতে সরকারকে এগিয়ে আসতে হবে বলে মনে করেন তিনি। কারণ পর্যটনের এই বিশাল ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে দু’তিন বছর সময় লাগবে।সংশ্লিষ্ট সূত্রে যায় যায়, প্রতি ঈদে বিশেষ করে রমজানের ঈদে সিলেটে সবচেয়ে বেশি পর্যটক দেখা যায়। গোয়াইনঘাট উপজেলার রাতারগুলে। একের পর এক রেড জোন ঘোষণা ও অব্যাহত থাকায় জনমানবশূন্য হয়ে আছে সিলেটের সব পর্যটন স্পট। পাশাপাশি দীর্ঘদিন বন্ধ হোটেল-মোটেলসহ সংশ্লিষ্ট সব ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান। এতে পর্যটন ব্যবসায়ীরা মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

সিলেটর ভ্রমনপিয়াসু রোটারিয়ান ডা. নাজমুৃল হক তার সাথে এ প্রতিবেদকের আলাপ হলে তিনি জানান, সিলেট বিভাগে পর্যটন শিল্পের উন্নয়নের ক্ষেত্রে যে সকল সুযোগ-সুবিধা রয়েছে; যদি সেগুলোকে পরিকল্পিতভাবে কাজে লাগানো যায় তা হলে আগামীদিনে সিলেট বিভাগই হবে বাংলাদেশের সবচেয়ে আকর্ষণীয়, দৃষ্টিনন্দন ও উৎকর্ষময়ী পর্যটন কেন্দ্র, যা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে সক্ষম হবে।

সিলেটের পর্যটন সংশ্লিষ্ট একাধিক ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সিলেটের প্রতি মাসে পর্যটনের কী পরিমাণ ব্যবসা-বাণিজ্য হয়, এটি কখনও হিসেব করা হয়নি। তবে সিলেটের অর্থনীতির বেশিরভাগই পর্যটন নির্ভর। কিন্তু দীর্ঘসময় পর্যটন-স্পট বন্ধ থাকায় ব্যবসায়ীরা বিশাল ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন।

প্রসঙ্গত : করোনার প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়ার পর ২৬ মার্চ থেকে সারাদেশে সাধারণ ছুটি ঘোষণা হলে বন্ধ হয়ে যায় পর্যটন সংশ্লিষ্ট সকল ব্যবসা। এতে সিলেট জেলার শহরের আবাসিক হোটেল, রেস্তোরাঁ, একাধিক ট্যুর অপারেটর অফিসসহ সংশ্লিষ্ট হাজার হাজার কর্মজীবী মানুষ বেকার হয়ে পড়েন। জমানো টাকায় কোনোমতে মাস দেড়েক চললেও বর্তমানে পরিবার নিয়ে অর্ধাহার-অনাহারে কাটছে তাদের জীবন।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin