রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ০৬:০৭ অপরাহ্ন


‘মাঘে মেঘে’ দেখা নেই পরিবেশের বিরূপ প্রভাব

‘মাঘে মেঘে’ দেখা নেই পরিবেশের বিরূপ প্রভাব


শেয়ার বোতাম এখানে

সাত্তার আজাদ: প্রকৃতির নিয়মে মাঘ মাসে বৃষ্টি হয়। প্রচলিতভাবে এই বৃষ্টিকে বলা হয় মাঘে মেঘে দেখা। কিন্তু এবার মাঘ মাসে বৃষ্টির দেখা মিলেনি। এমনকি বসন্তের এক সপ্তাহ কেটে গেছে। এখনো বৃষ্টির দেখা নেই। ফলে প্রাকৃতিক পরিবেশের উপর বিরূপ প্রভাব পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এরই মধ্যে বোরো চাষে সেচের সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। ধুলোবালিতে বাতাসে স্তর জমে গেছে। অবশ্য অগ্রাহায়ণ মাসে কয়েক ফোটা বৃষ্টি হলেও তাতে মাটিও ভিজেনি।

সিলেটে এ সময় বৃষ্টি না হওয়াতে বাতাসে ধুলো-বালির পরিমান বেড়েছে। শুষ্ক এ মৌসুমে বাতাসে ধুলো ওড়ে সর্দি-কাশিসহ বায়ুবাহিত নানা রোগের প্রদুর্ভাব বেড়েছে। সিলেট নগরীতে ধুলোময় অবস্থা। শহর ও শহরের বাইরে রাস্তায় জমে থাকা ধুলো যানবাহনের চাকায় ওড়ে বাতাস দুষিত করছে। বাতাসে স্তর পড়েছে ধুলোর। নিঃশ্বাস নিতে গেলেই ধুলো ঢুকে পড়ছে ফুসফুসে। তাছাড়া বাতাসের মাধ্যমে ধুলো ঢুকছে বাসাবাড়ি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে।

শীতের মাঝামাঝি থেকে আম, লিচু, জামসহ বিভিন্ন ফলের গাছে ফুল বা মুকুল আসা শুরু হয়। আম, লিচুর মুকুল থেকে গুটি হয় শীতের শেষে। ওই সময় বৃষ্টি না হলে বেশিভাগ গাছের মুকুল ঝরে পড়ে। সিলেটে এবার গাছে গাছে আম ও লিচুর খুব বেশি মুকুল আসে। বৃষ্টি না হওয়াতে এই মুকুল ঝরে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়া বৃষ্টি না হওয়াতে বোরো খেতে সমস্যা দেখো দিয়েছে। কৃত্রিম উপায়ে সেচ দিতে গিয়ে হিমসিম খেতে হচ্ছে কৃষকদের। পানির অভাবে বোরো উৎপাদনেও প্রভাব পড়বে বলে আশঙ্কা।

সিলেট কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, সিলেট বিভাগের চার জেলায় এবার গত বছরের চেয়ে বেশি বোরো ধান আবাদ হবে। চলতি মৌসুমে সিলেটে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয় ৪ লাখ ৭৩ হাজার হেক্টর জমিতে। ইতোমধ্যে লক্ষ্যমাত্রার ৯০ ভাগ জমিতে বোরো আবাদ শেষ হয়েছে। কিন্তু বৃষ্টি না হওয়াতে এরই মধ্যে সেচ সমস্যায় ভোগান্তিতে পড়েছেন অনেক কৃষক।

সিলেট অঞ্চলের হাওর ও হাওরের বাইরের জমিতে বোরো ধান আবাদ হয়। হাইব্রিড, উফশী ও স্থানীয় এই তিন জাতের ধান আবাদ করেন কৃষকরা। বিভাগে চার জেলায় লক্ষ্যমাত্রার ১১ শতাংশ বেশি জমিতে বোরো ধানের বীজতলা তৈরি হয়। বীজতলার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২২ হাজার ৯৪০ হেক্টর জমি। হয়েছে ২৫ হাজার ৩৯২ হেক্টর জমিতে। সিলেট জেলায় ৪ হাজার ৮০৫ হেক্টর, মৌলভীবাজার জেলায় ২ হাজার ৯৪২ হেক্টর, হবিগঞ্জ জেলায় ৫ হাজার ৬৫৮ হেক্টর এবং সুনামগঞ্জ জেলায় ১১ হাজার ৯৮৭ হেক্টর।

সিলেটে কৃত্রিম সেচ সুবিধা কম থাকায় কৃষকরা বৃষ্টির পানির উপর ভরসা করে বেশি। কিন্তু এবার বসন্ত শুরু হলেও বৃষ্টির দেখা মিলেনি। সিলেট বিভাগীয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের দেয়া তথ্যে, সিলেটে সেচ সমস্যা রয়েছে। কৃত্রিম সেচ ব্যবস্থা খুবই কম। কৃষকরা বৃষ্টির পানির উপর বেশি ভরসা করে। বৃষ্টি হলে বোরোসহ আম, লিচু, কাঁঠাল ইত্যাদি গ্রীষ্মকালীন ফল উৎপাদনও ভালো হয়।

তবে এ মৌসুমে দীর্ঘ সময় বৃষ্টি না হলে এসব ফলের মুকুল বা কাঁঠাল মুচির একটা অংশ ঝরে যেতে পারে। বোরো উৎপাদনেও কিছুটা প্রভাব পড়তে পারে।
এ বিষয়ে সিলেট আবহাওয়া অফিসের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ চৌধুরী বলেন, এ মাসেই বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin