সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:০৩ পূর্বাহ্ন


মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে খোলা চিঠি

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে খোলা চিঠি


শেয়ার বোতাম এখানে

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সালাম জানবেন। আমি এই দেশে জন্ম নেয়া একজন কর্মজীবী মা। আমার আড়াই বছরের একটা ফুটফুটে কন্যা সন্তান আছে। যার নিস্পাপ মুখ দেখে আমার দিনের শুরু হয়। আমার স্বামীও একজন ব্যস্ত পেশাজীবী।

তাই সংগত কারণেই সকালে বাচ্চাটাকে নানার বাসায় রেখে অফিসে যাই।

যদিও সেখানে যথেষ্ট নিরাপদ তবুও যতক্ষণ অফিসে থাকি ততক্ষণ খুবই নাভিশ্বাসভাবে তটস্থ থাকি। সামান্য একটু বেখেয়াল কিংবা অল্প একটু অসাবধানতায় না জানি কত বড় ক্ষতি হয়ে যায়।

আর বাকিটা সময়তো প্রচন্ড আতংক আর বড্ড উৎকন্ঠায় কাটে। যত দিন যাচ্ছে এই উৎকন্ঠা কেবল বেড়েই চলেছে। বাসা থেকে ফোন আসলেই আঁতকে উঠি কোনো খারাপ সংবাদ নয়তো! আমার পুতলাসোনা ঠিক আছেতো! এভাবে ভয়ে সংকুচিত হতে হতে কুঁকড়ে যাই আর মনে মনে এর থেকে উত্তরণের পথ খুঁজি।

মাঝেমাঝে ইচ্ছে করে এই দেশ ছেড়ে চলে যাই সভ্য কোনো দেশে যেখানে নিজেকে একদলা মাংসপিণ্ড নয় অন্তত একজন মানুষ মনে হবে। মনুষ্য জনম পেয়েছি বলে গর্ববোধ হবে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ১৩ কেজি ওজনের আমার এই হাড়াই বছরের একরত্তি দুধের শিশুকে আমি একপ্রকার গৃহবন্দী করে রাখি। পাশের বাসায় যেতে দেইনা, বাসার নিচে খেলতে দেইনা, চার ফুট উঁচু দেয়াল থাকা স্বত্ত্বেও ছাদে যেতে দেইনা। আম্মু বাইরে যাবো আম্মু বাইরে যাবো এই চিৎকারটা যখন চারদেয়ালে প্রতিধ্বনিত হয় তখন করুণ আর্তনাদ করা মায়ের বুকের ভেতরটা চৌচির হয়ে যায়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অশালীন পোশাকের কথা বলার কোনো সুযোগ নেই।

৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসের প্রচন্ড গরমেও এই পুঁচকোটাকে এখন থেকেই অনেক বড় বড় পোশাক পরাই। তাও প্রতিটি মূহুর্ত অসম্ভব ভয়ে ভয়ে থাকি কখন কি দুর্ঘটনা ঘটে যায়।

এইতো ক’দিন পর স্কুলে ভর্তি করতে হবে কিন্তু এটা মনে হলে এখনই ভয়ে বুকটা কেঁপে ওঠে। সেখানেও যে আমার সোনামোণি বিষাক্ত নখের আঁচড় থেকে নিরাপদ নয়। উফ! অসহ্য। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এতো চাপা মানসিক নির্যাতনের মধ্যে এমনটা চলতে থাকলে আমিতো পাগল হবোই সেইসাথে মেয়েটাও অসুস্থ হয়ে যাবে। আপনিওতো মা।

আপনিই বলুন এভাবে কি বাঁচা যায়?

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি বিশ্বাস করুন, সারাদিনের কর্মব্যস্ততার পর সাংসারিক কাজকর্ম সেরে রাতে ক্লান্ত শ্রান্ত হয়ে বিছানায় গিয়েও নিশ্চিন্তে ঘুমুতে পারিনা। নরপিশাচরা দুঃস্বপ্নেও তাড়িয়ে বেড়ায়। একটু পরপর চোখ মেলে মেয়ের গায়ে হাত বুলাই। হায়েনার নোখের থাবা থেকে আড়াল করতে শাড়ির আঁচলে ছোট্ট শরীরটাকে ঢেকে রাখি। আর অসহ্য যন্ত্রণায় বালিশে মুখ গুজে কাঁদি। কেউ জানেনা কি যে কষ্ট আর অব্যক্ত যন্ত্রণায় ঘরের প্রতিটি দেয়ালে নিশব্দ নিশুতি রাতে ক্ষরিত হৃদয়ের রক্তে লেখা হয় এক অসহায় মায়ের আতংকের গল্প।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দশ মাস দশদিন গর্ভে ধারণ করে অনেক কষ্টে জন্ম দেয়া সন্তান আমার আজ নরপশুদের কাছে জিম্মি। ন’মাসের শিশু থেকে শুরু করে ষাটোর্ধ্ব বৃদ্ধাও আজ বড় অসহায়। সামাজিক এই ব্যাধিগ্রস্থতা আর মানবিক বিপর্যয় আজ প্রচন্ডরকম ভাবে মহামারীর আকার ধারণ করেছে। তাই আপনার কাছে আমার আন্তরিক অনুরোধ মেহেরবানী করে এই মহামারী এক্ষুণি থামান। আপনার কাছে এক অসহায় মায়ের আকুল আবেদন আল্লাহ তা’য়ালার শ্রেষ্ঠ নেয়ামত একটি জান্নাত আমার নাড়িছেড়া ধন কলিজার টুকরো আমার পুতলাসোনাকে একটু বাঁচতে দিন। বিকৃত মস্তিষ্কের নিকৃষ্ট মানুষ নামের জানোয়ারগুলোকে খাঁচায় পুরুন। ধুসর হয়ে যাওয়া দেশটাকে সবুজ অভয়ারন্য করে তুলুন। সেই অবারিত সবুজের মাঝে আমাদের কন্যাশিশুরা ফুল হয়ে ফুটবে। কিংবা মুক্ত বিহঙ্গ হয়ে প্রজাতির মতো ঘুরে বেড়াবে। বিচার নয় আচার করুন যেনো প্রতিকারের আগেই প্রতিরোধ হয়। এমন যুগান্তকারী কিছু করুন যাতে এই বাংলায় আর একটি মেয়ের মাকেও বুক চাপড়ে কাঁদতে না হয়। কন্যাশিশুর জন্ম দেয়ার অপরাধে কোনো মা যেনো এভাবে প্রতিটি মূহুর্তে আতংকিত না হয়। কন্যাশিশুরা যেনো কোনো জেলখানার মতো পরিবেশে বেড়ে না ওঠে।

প্লিজ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্লিজ……….

প্রেরিত
একজন কন্যাশিশুর অসহায় মা।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin