মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৩০ অপরাহ্ন


মারাত্বক ঝুঁকিতে নগরীর কাস্টঘর ও মহাজনপট্টি

মারাত্বক ঝুঁকিতে নগরীর কাস্টঘর ও মহাজনপট্টি


শেয়ার বোতাম এখানে

এমদাদুল হক মান্না :
সিলেট নগরীর ব্যস্ততম আবাসিক এলাকা কাস্টঘর ও মহাজনপট্টি। এই দুটি এলাকায় প্রতিদিন প্রায় ২ থেকে ৩ হাজার মানুষ যাতায়াত করে। সেখানে নিউ মার্কেট, আলখাজা মার্কেটসহ অনেক বহুতল ভবন এবং প্রায় ৩ শতাধিক দোকান পাট ও ক্যমিক্যাল গুদাম রয়েছে। জনগুরুত্বপূর্ণ এই এলাকায় রয়েছে মারাত্বক আগুনের ঝুঁকিতে। অভিযোগ রয়েছে এইসব এলাকায় গত ৩ বছরে শুধুমাত্র কাস্টঘর এলাকায় ৫ বারেরও বেশি অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, নগরীর বন্দর বাজারের কাস্টঘর ও মহাজন পট্টি এই দুটি এলাকায় আবাসিক ভবনের মধ্যে নিচের দিকে মার্কেট থাকলে নেই কোন অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা। গাড়ী রাখার পার্কিংয়ের জায়গায় রয়েছে বিশাল ক্যমিক্যাল গোডাউন। এমনকি জরুরী বের হওয়ার সিড়ি বন্ধ করে গড়ে তোলা হয়েছে গোডাউন। একি অবস্থা মহাজন পট্টিতেও। নিয়ম ভেঙ্গে ভবনগুলোতে মজুদ রয়েছে প্লাস্টিক পণ্য, রঙ, স্পিরিটসহ নানা ধরনের ধার্য পদার্থ। শুধু তাই নয় পুরো সিলেট শহরের সব ক্যমিক্যল পণ্য এখান থেকে সরবরাহ হয় বলে জানা গেছে।

ওই এলাকার বাসিন্দা সালাউদ্দিন বলেন, ভবন মালিকরা টাকার জন্য একটি রাস্তা ছাড়া বাকি সবগুলো বন্ধ করে, গুদাম বানিয়ে রেখেছে যা আমাদের স্থানীয় বাসিন্দাদের জন্য মারাত্বক হুমকির মুখে। শুধু তাই নয় যদি এখানে আগুন লাগে বা অন্য কোন দূঘর্টনা হয় তাহলে এই এলাকার বাসিন্দারা মারাত্বক ঝুকিতে থাকবে বা প্রানহানী ঘটবে অনেকের। দ্রুত এর সমাধান না করলে তাতে সমস্যা আরো বাড়বে বলে মনে করেন তিনি।

আরেক বাসিন্দা রিনা দেব জানান, আমরা যদি প্রতিবাদ করি তাহলে আমাদেরকে হুমকি দিয়ে বলে আপনারা কেন থাকেন। সমস্যা হলে অন্য দিকে বাসা নিয়ে চলে যান। তিনি আরও অভিযোগ করে বলেন, অধিক বাসা ভাড়া নিলেও তার পর্যাপ্ত পরিমান সুবিধা আমরা পাই না।

এই দুই এলাকার বিষয়ে ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের সহকারী পরিচালক জানান, এই সব ভবনে নেই আগুন নেভানোর কোন ব্যবস্থা। আগুন লাগলে এইসব এলাকায় ফায়ার সার্ভিসের কোন গাড়ী ঢুকতে পারবেনা। তিনি আরও বলেন, আগুন নেভানোর যন্ত্র এখানে খুবই কম যার ফলে মারাত্বক ঝুঁকিতে আছে এই সব ভবন।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক বলেন, এ দুটি এলাকায় ইমারত নিরমান নীতিমালা মানা হয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এইসব এলাকা থেকে খুব শিগ্রীই ক্যমিক্যাল গোডাউন সড়ানো হবে এবং তারা ট্রেড লাইসেন্স নিয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হবে। আমাদের সিটি কর্পোরেশনের প্রকোশলীরা এইসব বিল্ডিং গুলোতে সরেজমিন পরিদর্শন করে দেখবে বিল্ডিং কোড মানা হয়েছে কিনা। সিটি কর্পোরেশন ও প্রশাসন মিলিয়ে জোড়ালো একটি পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে বলে জানান তিনি।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin