রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০৫:৩৭ পূর্বাহ্ন


মোমেন-মুক্তাদিরকে নিয়ে যতো আলোচনা

মোমেন-মুক্তাদিরকে নিয়ে যতো আলোচনা


শেয়ার বোতাম এখানে

এনামুল কবীর: জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-১ আসনটি বিশেষ মর্যাদার। সারাদেশের মানুষ অসীম কৌতুহল নিয়ে তাকিয়ে থাকেন এই আসনের দিকে। কারণ, কাকতালীয়। এ আসনে যে দল জয় পায়, তারাই সরকার গঠন করে। অতীতের নির্বাচনগুলোতে তাই হয়েছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও যথারীতি এ আসনের প্রধান দুই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর দিকে নজর সারাদেশের। বিশেষ করে সিলেটবাসীর। আওয়ামী লীগ বা মহাজোটের প্রার্থী ড. একে আব্দুল মোমেন ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরকে নিয়ে যথারীতি আলোচনা চলছে। চায়ের কাপে ঝড় বলতে যা বুঝায়, তাই। এমনকি অন্যান্য আসনের ভোটারদের মধ্যেও ব্যাপক কৌতুহল এই দুই প্রার্থীকে নিয়ে। কার কি যোগ্যতা, রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা ও তৎপরতা, দলীয় সামর্থ্য, প্রচারনায় প্রাধান্য, মন্ত্রীত্বের সম্ভাবনা ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা-সমালোচনার পাশাপাশি চলছে ব্যাক্তি জীবনের চুলচেরা বিশ্লেষণও। সমর্থকরা নিজেদের প্রার্থীকে সবসময় আলোচনায় এগিয়েই রাখেন। এক্ষেত্রেও তাই হচ্ছে। তবে নিরপেক্ষ ভোটারদের বিশ্লেষণ কিন্তু অন্যরকম। বাস্তবতার আলোকে তারা যা কিছু দেখছেন, অনুভব করছেন, তাই নিয়ে তাদের আলোচনা। প্রার্থী এবং ব্যাক্তিগত যোগ্যতার বিচারে ভোটাররা ড. আব্দুল মোমেনকে এগিয়ে রাখলেও তাদের বিচারে, মাঠের রাজনীতিতে এগিয়ে খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির। ড. মোমেন পিএইচডি ডিগ্রিধারী। একসময় সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা হিসাবে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালনে করেছেন। বিশেষ করে জাতিসংঘে স্থায়ী প্রতিনিধি হিসাবে দায়িত্ব পালনকালে তিনি বাংলাদেশকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রনায়কদের সামনে তুলে ধরেছেন অত্যন্ত দক্ষতার সাথে। একারণে তিনি প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ পছন্দের প্রার্থী।

 

বিপরীতে খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির উচ্চ শিক্ষিত একজন মানুষ হলেও তিনি রাজনীতির পাশাপাশি একজন সফল ব্যাবসায়ী। বেশ কয়েকটি ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান নিয়েই তার ব্যাস্ততা। উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা হিসাবে ড. মোমেনের সরকার পরিচালনার নানাদিক সম্পর্কে যথেষ্ট অভিজ্ঞতা রয়েছে। মুক্তাদির এক্ষেত্রে পিছিয়ে তা তার ভক্ত অনুরাগীরাও স্বীকার করেন। কিন্তু তবু তাদের মতে, মানুষ পরিবর্তন চায়। এসব বিবেচনা না করে মানুষ নতুন সরকারের প্রত্যাশায় মুক্তাদির বা ধানের ছড়ার পক্ষেই থাকবেন। আবার ড. মোমেনের চেয়ে রাজনৈতিক তৎপরতার দিক দিয়ে কিন্তু যথেষ্ট এগিয়ে খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির। দীর্ঘদিন থেকে তিনি বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত। বিশেষ করে, গত ১০ বছর ধরে সিলেট সিটি কর্পোরেশন ও সিলেট সদর উপজেলায় তিনি সরব। এ কারণে বিএনপি-জামায়াতের বাইরেও তার ভক্ত অনুরাগীর সংখ্যা কম নয়। তাছাড়া, এই আসনের দরিদ্র ও অসহায় মানুষকে তিনি নানাভাবে সহায়তা করে থাকেন বিভিন্ন উপলক্ষে। এ কারণে রাজনৈতিক বলয়তো বটে, এর বাইরেও তার অনেক ভোটার আছেন। বিপরীতে ড. মোমেন মাঠের রাজনীতিতে একেবারে নতুন। মাত্র কয়েক বছর তার অভিজ্ঞতা। তৃণমূল পর্যায়ে তার যোগাযোগ বা ভিত্তি খুব একটা মজবুত নয় বলেও মনে করেন সচেতন অনেকে। কিন্ত এক্ষেত্রেও অবশ্য মোমেনের পক্ষে অস্ত্র অনেক মজবুত। তাদের মতে, মোমেনের এই ঘাটতিটুকু পুরণ হয়ে যাচ্ছে ভাইয়ের সুবাদে। তার অগ্রজ আবুল মাল আব্দুল মুহিত বাংলাদেশ সরকারের অর্থমন্ত্রী। সিলেট সিটি কর্পোরেশন ও সদর উপজেলায় তার ব্যাক্তিগত অনুরাগীর সংখ্যা কম নয়। মাঠের রাজনীতিতে তিনি অনেক পুরানো খেলোয়াড়। মোমেনের এই ঘাটতিটুকু পুরণ হয়ে যাবে অগ্রজের সুবাদে। তাছাড়া অর্থমন্ত্রী ১০ বছরে সিলেট-১ আসনে প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ করেছেন। এটিও কিন্তু মোমেনের পক্ষে ভোট টানতে গুরুত্বপূণৃ ভূমিকা পালন করবে। দলীয় সামর্থ্যরে ব্যাপারটিও আলোচনায় যথেষ্ট গুরুত্ব পাচ্ছে। সিলেট-১ আসনে আওয়ামী লীগ বিএনপি, উভয় দলই যথেষ্ট শক্তিশালী। তবে বর্তমান সরকারি দলটির শক্তি কিছুটা বেশি বলেও সচেতন ভোটারদের ধারনা। কিন্তু এবার আর অতীত শক্তির বিচার খুব একটা হবেনা বলেও মুক্তাদিরের নেতাকর্মীদের ধারণা। তাদের ধারণা, ১০ বছর আওয়ামী লীগ ক্ষমতাসীন। এবার মানুষ পরিবর্তন চায়। আর এই পরিবর্তন প্রত্যাশার চাপে স্থায়ী শক্তিটক্তির ধারণা ভেসে যাবে। তাছাড়া সদ্যসমাপ্ত সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীর জয় তেমন ইঙ্গিতই কিন্তু দিচ্ছে। সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের মতোই কিন্তু জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও প্রচারণায় এগিয়ে আওয়ামী লীগ বা ড. মোমেন। অন্তত গত ৮/৯ দিনের প্রচারণায় তা স্পষ্ট। বিশেষ করে গণমাধ্যমের ক্ষেত্রে একথা আরও বেশি প্রযোজ্য। পত্রপত্রিকা বা মিডিয়ায় মুক্তাদিরের তুলনায় ড. মোমেন এগিয়ে। তবে মুক্তাদির অনুরাগীদের বক্তব্য পরিস্কার।

 

সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনেও মিডিয়া বলতে গেলে সরকারি দলের দখলে ছিল। বিএনপি প্রার্থীর তুলনায় অনেক বেশি কাভারেজ পেয়েছিলেন সরকারি দলের প্রার্থী। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সাধারণ মানুষ তাদের মতামত দিয়েছিলেন বিএনপির আরিফুল হক চৌধুরীর পক্ষে। এবারও তাই হবে মনে করলেও আওয়ামী লীগ এবং ড. মোমেনের নেতাকর্মীদের মতে, সিটি নির্বাচন আর সংসদ নির্বাচন আলাদা। স্থানীয় সরকার আর জাতীয় সরকারের পার্থক্য সিলেটবাসী ভালোই বুঝেন। তাদের রায়টাও হবে তেমন বিবেচনায়। মন্ত্রীত্বের সম্ভাবনার ক্ষেত্রেও কিন্তু মুক্তাদিরের চেয়ে এগিয়ে ড. মোমেন। আলোচনা-প্রচারণায় আওয়ামী মহল ভোটারদের স্পষ্ট বলছেন, মোমেন জিতলে আর আওয়ামী লীগ সকরার গঠন করলে আপনারা সরকারের একটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয় পাচ্ছেন। বিশেষ করে অর্থমন্ত্রণালয়টি সিলেটের দখলে থাকার যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে। বিপরীতে খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরের তেমন সম্ভাবনা নেই। তবে মুক্তাদির বা বিএনপি নেতৃবৃন্দের যুক্তি, ঐক্যফ্রন্ট জিতলে মুক্তদিরের মন্ত্রী হওয়ার সম্ভাবনাও আছে। তবে সাধারণ মানুষের জন্য কাজ করতে চাইলে মন্ত্রীত্ব ছাড়াও করা সম্ভব। তৃণমূলের সাথে মুক্তাদিরের যে সম্পর্ক, বিএনপি সরকার গঠন করলে তিনি উন্নয়ন কর্মকান্ডে সরাসরি সম্পৃক্ত থেকে তা আরও জোরদার করবেন বলেই তারা ভোটারদের জানিয়ে দিচ্ছেন। মোটামুটি দুই প্রতদ্বন্দ্বীর একজন একদিকে এগিয়ে থাকলেও অপরজন অন্যক্ষেত্রে এগিয়ে। এইসব বিবেচনায় ড. মোমেন আর খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরের মধ্য হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের দৃশ্যই কল্পচোখে দেখছেন সচেতন ভোটার ও রাজনীতিবিদরা।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin