বৃহস্পতিবার, ১৭ Jun ২০২১, ০৩:০৪ অপরাহ্ন

মৌলভীবাজার-৩ চা শ্রমিকদের ভোট ব্যাংক কার ভাগ্যে?

মৌলভীবাজার-৩ চা শ্রমিকদের ভোট ব্যাংক কার ভাগ্যে?


শেয়ার বোতাম এখানে

আহমদ উর রহমান ইমরান, রাজনগর: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মৌলভীবাজার-৩ (সদর-রাজনগর) আসনে আওয়ামী লীগের নতুন প্রার্থী নেছার আহমদ ও বিএনপির পুরাতন প্রার্থী রয়েছেন সাবেক সংসদ সদস্য এম. নাসের রহমান। এদিকে নির্বাচনকে সামনে রেখে এক দশক পর মৌলভীবাজার জেলা বিএনপি’র বিভক্তির অবসান হয়েছে। এখন মৌলভীবাজার জেলা বিএনপি’র নেতাকর্মীরা ধানের শীষ প্রতিককে বিজয়ী করতে একতাবদ্ধ। কিন্তু এ আসনে চা শ্রমিকদের বৃহত্তর এক ভোট ব্যাংক রয়েছে। কার ভাগ্যে রয়েছে এই ভোট ব্যাংক তা নিয়ে জনমনে চলছে আলোচনা। বিএনপির একাধিক নেতা জানান, ব্যক্তি ফ্যাক্ট নয়। আমাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশে ধানের শীষকে বিজয়ী করার জন্য আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছি। ১০ বছরের সকল ভুল বুঝাবুঝির অবসান হয়েছে। এখন আমরা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে চাই।

 

জানা যায়, এক দশক ধরে জেলা সভাপতি ও সম্পাদক দুটি বলয়ে পরিচালনা করছিলেন দলীয় কার্যক্রম। যার কারণে ভেঙ্গে পড়েছিল পুরো দলের ও অঙ্গ সংগঠনের সাংগঠনিক কাঠামো। এ সময়ের মধ্যে জেলার ৭টি উপজেলা, ৫টি পৌরসভা ও ৬৭টি ইউনিয়নে পাল্টা-পাল্টি কমিটি করছেন তারা। এ নিয়ে তৃণমূল নেতকর্মীদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছিল। যার কারণে অনেক নেতাকর্র্মীরা সরকার বিরোধী আন্দোলনে না গিয়ে নিজেদের গ্রুপিং নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন। দলের এই ক্লান্তিলগ্নে ও সংকটপূর্ণ সময়ে দেশের অন্যান্য জেলার ন্যায় কোন গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করতে পারেননি বিভক্ত মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির নেতাকর্মীরা। দলের অস্তিত্ত্ব রক্ষার লড়াইয়ে অন্যান্য জেলা হরতাল, অবরোধ, মিছিল ও সমাবেশসহ কেন্দ্রের দেয়া সকল কর্মসূচি স্বতস্ফূর্ত ভাবে পালন করলেও ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে ছিল মৌলভীবাজার। কিন্তু বর্তমানে নির্বাচনকে সামনে রেখে সব বিভক্তির অবসান হয়েছে জেলা বিএনপির।

 

অনুসন্ধানে জানা যায়, বিভক্তির কারণে বিগত স্থানীয় নির্বাচন গুলোতেও ভালো ফলাফল করতে পারেনি সাবেক ক্ষমতাশীন দল। ২০১১ সালে পৌর নির্বাচনে জেলার সবকটি পৌরসভায় বিএনপির প্রার্থীরা বিজয়ী হলেও গত পৌর নির্বাচনে একটিতেও বিজয়ের মুখ দেখতে পারেনি তারা। বিগত উপজেলা নির্বাচনে সদর উপজেলায় জেলা সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান ছাড়া আর কেউই এ জেলায় নির্বাচিত হতে পারেননি। ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, কাউন্সিলর ও ওয়ার্ড পর্যায়েও দলটির এমন বেহাল অবস্থা।

 

এদিকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নেছার আহমদ মহাজোট থেকে নতুন প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পেয়ে মাঠে কাজ করে যাচ্ছেন। দলীয় অন্তর দ্বন্দ ও গ্রুপিং অবসান হয়েছে জেলা আওয়ামী লীগের। এ আসনের প্রতিটি ইউনিয়নে ইতি মধ্যে বর্ধিত সভা করছে আওয়ামী লীগ। নির্বাচন নিকটবর্তী হওয়ায় আওয়ামী লীগের দ্বন্দ অবসান হয়ে এক হয়ে সবাই কাজ করছেন মাঠে। ইতিমধ্যে প্রয়াত সমাজকল্যাণ মন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলীর সহধর্মীনি মৌলভীবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দা সায়রা মহসিনের সাথে বৈঠক করেছেন নেছার আহমদ। এখন মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা নৌকা প্রতিককে বিজয়ী করতে একতাবদ্ধ। আওয়ামীলীগের একাধিক নেতা জানান, আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে নৌকাকে বিজয়ী করার জন্য আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছি। অতীতের সকল ভুল বুঝাবুঝির অবসান হয়েছে। এখন আমরা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে নৌকার বিজয়ে কাজ করে যাচ্ছি।

 

জেলা নির্বাচন অফিস থেকে জানা যায়, মৌলভীবাজার-৩ আসনে ৩ লক্ষ ৯৮ হাজার ১৪৭ জন ভোটার। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২ লক্ষ ১ হাজার ২২২ জন এবং মহিলা ভোটার ১ লক্ষ ৯৬ হাজার ৯২৫ জন। এর মধ্যে চা শ্রমিকদের বৃহত্তর একটি ভোট ব্যাংক রয়েছে।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin