শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৪৯ পূর্বাহ্ন

মৌসুমী পর্যটন কেন্দ্র সূর্যমুখি বাগান

মৌসুমী পর্যটন কেন্দ্র সূর্যমুখি বাগান


শেয়ার বোতাম এখানে
  • 22
    Shares

আকরাম উদ্দিন, সুনামগঞ্জ : এবার মৌসুমী পর্যটন কেন্দ্র হয়ে উঠেছে সূর্যমুখী বাগান। কৃষি বিভাগের প্রনোদনায় আবাদকৃত সূর্যমুখি চাষের প্রদর্শনী বাগান প্রকৃতিপ্রেমিদের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। চলতি মাসের প্রথম থেকে ফুল ফোটার শুরুতেই সৌন্দর্য বিলাসীদের এই সূর্যমুখী বাগানে আগমন শুরু হয়েছে।

জেলার ৮ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে এবার পৌঁণে ৩ শত কেয়ার জমিতে সূর্যমুখীর চাষ হয়েছে। সূর্যমুখীর চাষ থেকে ভোজ্য তৈল, খৈল ও জ্বালানী পাওয়া যায়। ধানের বিকল্প লাভজনক চাষ হিসাবে এবার সূর্যমুখী চাষে উদ্বুদ্ধ হয়েছেন কৃষকেরা।

শহরের অদূরে আব্দুজ জহুর সেতুর অপারে লালপুর-চালবন্দ সড়কের ডান পাশে ছালামপুর এলাকায়ও সূর্যমুখী চাষ হয়েছে। সূর্যমুখীর চাষ করেছেন কৃষক আব্দুর রহমান। যাতায়াত সড়কে চলাচলের সময় দেখা যায় হলুদ বর্ণের এই সূর্যমুখীর বাগান।

১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালবাসা দিবস থেকে পর্যটকদের ব্যাপকভাবে আগমন শুরু হয়েছে বাগানে। হলুদবর্ণ প্রদর্শনীর এই বাগান প্রকৃতিপ্রেমিদের কাছে টেনে নেয়। প্রতিদিন সকাল ও বিকালে সূর্যমুখী বাগানে ফুল প্রেমিকদের আগমন ঘটে চলেছে। সরকারী ছুটিতে দিনব্যাপী পর্যটকদের আগমন থাকে। বাগানে সৌন্দর্য উপভোগ করতে জেলার বাইরের পর্যটকদেরও আগমন ঘটছে।

সড়কের পাশে থাকা দোকানীর ব্যবসাও জমে উঠেছে প্রতিদিন। পর্যটকেরা এই দোকানে চা, পান, শুকনা খাবার খেতে পাচ্ছেন। পর্যটকদের সেবা দিতে তরমুজ বিক্রি করছেন চালবন্দ গ্রামের গাজী মিয়া। তিনি গত ১ সপ্তাহ ধরে সড়কের পাশে এই তরমুজ বিক্রি করছেন।

সড়কের এক পাশে দীর্ঘ লাইনে বাস, লাইটেস, সিএনজি, মোটর সাইকেল সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে আছে। এসব যানবাহন সবই পর্যটকদের। পর্যটকেরা বাগানে ঢুকে ফুল জড়িয়ে ধরে চলছে ফটোসেশন, সেলফি, গ্রুফ ছবি ইত্যাদি।
বাগানের মালিক কৃষক আব্দুর রহমান জানান, আগামী ১৫ মার্চের মধ্যে এই সূর্যমুখী ফুলের পাঁপড়ি ঝরে পড়বে। তখন ফুলের গাছ কেটে বীজ সংগ্রহ করা হবে। তাৎক্ষণিক ভারী বৃষ্টি হলে আবার সূর্যমুখীর হলুদ পাঁপড়ি ঝরে পড়বে।

পত্রিকায়, ফেসবুকে সংবাদ প্রকাশের পর সবাই আমার বাগানে চলে আসছেন। ফুল পবিত্র, আমি ফুলের বাগান করেছি। মানুষ আসলে আমার ভাল লাগে।
শনিবারও ভাদেরটেক এলাকা নামে পরিচিত ছালামপুর গ্রামের এই সূর্যমুখী বাগানে পর্যটকদের কোলাহল ছিল। স্থানীয় প্রকৃতিপ্রেমিরাও ছিলেন। ছিলেন জেলার বাইরের কিছু পর্যটক।

ট্যাকেরঘাটে যাওয়ার উদ্দেশ্যে এসেছেন সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফয়সল আহমদ, আবু মুগিরা, আলবি, তিশা রহমান, ইভা রহমান ও মুতাহা। সূর্যমুখী বাগানে কথা হয় এই প্রতিবেদকের সাথে।

তারা জানান, ফসল উৎপাদনের পাশাপাশি প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করা অন্যতম বিনোদন। যাত্রা পথে হলুদবর্ণের ফুল আমাদের কাছে টেনে নিয়েছে। স্মৃতি ধরে রাখতে সূর্যমুখীর সংস্পর্শে গিয়ে কিছু ছবি উঠেছি। বাগানটি খুবই সুন্দর। ভাল লেগেছে আমাদের।

ঢাকা থেকে এসেছেন মাহমুদুল হাসান ও মনিরুল আলম সাজু। তারা জানান, এক সাথে হাজারো ফুলের সমারোহে মুগ্ধ আমরা। ফুলের সৌন্দর্যে কিছু সময় বিনোদনে থাকা যায়।

সিলেট থেকে এসেছেন ব্যাংক কর্মকর্তা মেহেদী কাওসার ও মোহাম্মদ হানিফ। তারা জানান, আমরা পরিবারবর্গ নিয়ে এসেছি বেড়াতে। তাহিরপুর উপজেলার বিভিন্ন পর্যটন এলাকায় ঘুরাফেরা করব। যাত্রা পথে শহরের অদূরে সূর্যমুখী বাগানে ছবি উঠা অন্যতম আনন্দ বিনোদন। তাই কিছুক্ষণ আনন্দে ছিলাম।

শহরের বাসিন্দা পর্যটক আব্দুর রায়হান জানান, আমি আরও দুইবার সূর্যমুখী বাগানে এসেছি। আজও এসেছি। ভাল লাগে ছবি উঠতে।

 



শেয়ার বোতাম এখানে
  • 22
    Shares

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin