শনিবার, ২০ Jul ২০২৪, ০২:২৬ পূর্বাহ্ন


যে বাড়ীতে দারুল ক্বিরাতের জন্ম সেই বাড়ীটি কেমন আছে ?

যে বাড়ীতে দারুল ক্বিরাতের জন্ম সেই বাড়ীটি কেমন আছে ?


শেয়ার বোতাম এখানে

মোঃ সজীবুর রহমান

১৯৪০ সালে সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার ফুলতলী ছাহেব বাড়ীতে দারুল ক্বিরাত প্রতিষ্টা করেন আল্লামা ছাহেব ক্বিবলাহ ফুলতলী (রহ:)।
প্রতিবছর রামাদ্বান মাসে দারুল ক্বিরাতের শিক্ষা ব্যবস্থা শুরু হয়।
সর্বশেষ শ্রেনি ছাদিছের পাঠদান ও পরিক্ষা কেবলমাত্র ফুলতলীতে অবস্থিত প্রধান কেন্দ্রতেই হয়।
অন্য কোন শাখা কেন্দ্রে হয় না। তাই রামাদ্বান মাস এলে পাল্টে যায় ফুলতলী ছাহেব বাড়ীর দৃশ্য। একসাথে ২৫০০ অধিক ছাত্র ভর্তি হোন সেখানে ছাদিছ পাশ করার জন্য। ফুলতলী মাদ্রাসার সব ক্লাসরুম, ছাত্রাবাস (হোস্টেল), মসজিদ, খানকা ঘর, এমনকি ছাহেব বাড়ীর অনেক ব্যাক্তিগত ঘরগুলোকেও বিশেষ পক্রিয়ায় প্রস্তুত করা হয় ছাত্রদের আবাসন এবং ক্লাসের জন্য।

ফুলতলী ছাহেব ক্বিবলাহর সকল সন্তানরা লেগে যান পবিত্র কুরআন শিক্ষা দেয়ার খেদমতে। দিনরাত এক করে তারা ছাত্রদের শিখিয়ে দেন কুরআনের বিশুদ্ধ তেলাওয়াত।
শুধু তেলাওয়াত ই নয়, নৈতিক ভাবে সচ্চরিত্রবান হয়ে গড়ে উঠার জন্য দেয়া হয় নানা প্রকার বিশেষ শিক্ষা (তা’লিম-তরবিয়ত)।
সকাল ৮টায় শুরু হয় আম মশক, তারপর পৃথক মশক্, সবক গ্রহন, তাজবিদ শিক্ষা,তারপর খতমে কুরআন। জুহরের নামাজের পর খতমে খাজেগান, সিরত বয়ান তথা নৈতিক শিক্ষা, এরপর আবার পৃথক মশক, এরপর শেষ আম মশকের মধ্য দিয়ে দৈনিক পাঠদান রুটিন শেষ হয়।

আছরের পর ইফতার গ্রহনের জন্য ছাহেব বাড়ীর মাঠে দাঁড় করানো হয় লম্বা লাইন।
একদিকে হ্যান্ড মাইকে গাওয়ানো হয় মধুর মধুর গজল অন্যদিকে দ্রুত চলতে থাকে ইফতার বিতরনের কাজ। কত সুন্দর সে দৃশ্য। রাতে ছাত্ররা যাতে তারাবীর নামাজ বা’দ দিয়ে বাজারে দোকানে ঘুরাঘুরি না করে সেজন্য ছাহেব ক্বিবলাহর নাতিরা মোটরসাইকেল দিয়ে কখনো কার দিয়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রতনগঞ্জ বাজার সহ আশপাশ এলাকা টহল দেন। তারপর তারাবী শেষে রাতের খাবার। এরপর কিছুটা বিশ্রাম এবং ঘুম। রাত ৩টায় আবার সেহরীর আয়োজন। সেহরী খেয়ে ফজরের নামাজ পড়ে কিছুটা সময় ঘুম। ঘুম থেকে উঠে গোসল করে আবার ক্নাসে যোগদান। এই ছিল রামাদ্বানের ফুলতলী। কিন্তু আজ সে বাড়ীটি কেমন ?

এবছর বৈশ্বিক করোনা মহামারীর প্রকোপে স্থগিত ঘোষনা করা হয় দারুল ক্বিরাতের সমস্ত কার্যক্রম। যে বাড়ীটি ১ম রামাদ্বান থেকে ছাত্রদের ভীড়ে মুখরিত থাকার কথা ছিল, ছাত্রদের শৃংখল রাখতে সেচ্চাসেবকদের উচ্চ বাশি দূর থেকে শুনা যেত, ছাহেব বাড়ীর মসজিদের মাইক থেকে ঘোষনা করা হতো প্রয়োজনীয় নির্দেশনা। সেই বাড়ীটি আজ নিথর, শূন্য, স্তব্দ। ১৯৯৯/২০০০ সালের ছাদিছ ব্যাচে আমিও সেখানকার একজন ছাত্র ছিলাম।
তাই নিজের চোখে দেখা সত্য সুন্দরের কথাগুলো শূন্যতার এই সময়ে লিখে গেলাম। আমি হৃদয় দিয়ে বিশ্বাস করি আজ ফুলতলীর একজন মানুষও ভালো নেই। সবাই সুপ্ত এক ব্যাথা বুকে নিয়ে নির্বাক হয়ে আছেন। ফুলতলী মসজিদের উচু মিনারের মলিন চাহনি আর প্রতিক্ষার কষ্টটুকু আর কেউ না বুঝলেও আমরা দারুল ক্বিরাতে পড়ুয়া ছাত্ররা ঠিকই বুঝি।
♦লেখক:
মোঃ সজীবুর রহমান
সহকারি শিক্ষক (আরবি)
আমরিয়া ইসলামিয়া আলিম মাদরাসা
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ, সুনামগঞ্জ


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin