বৃহস্পতিবার, ০৬ মে ২০২১, ১২:৪৯ অপরাহ্ন

যে যে বিষয়গুলোর উপর ভিত্তি করেই দেশে করোনা জুনের মধ্যে নির্মূল হবে

যে যে বিষয়গুলোর উপর ভিত্তি করেই দেশে করোনা জুনের মধ্যে নির্মূল হবে


শেয়ার বোতাম এখানে

সাত্তার আজাদ:

প্রতিপালকের উপর আস্থা রেখে আজও আত্মবিশ্বাসের সাথে বলছি- বিশ্ব কাঁপানো করোনা এদেশে জুনের আগেই নির্মূল হবে। হতাশায় ভুগবেননা। মনোবল দুর্বল করবেন না। মন শক্ত রাখুন।

বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া করোনা এ দেশে প্রভাব ফেলতে পারবেনা। ইতিহাস বলে যুদ্ধের সময় সৈনিকের মনোবল যত শক্ত রাখা যায় ততই যুদ্ধজয়ের সম্ভাবনা কাছে আসে। আমার এই প্রয়াস শুধু মানুষের মনোবল শক্ত রাখার জন্য। করোনার যুদ্ধে ঠিকে থাকার ও জয়ী হবার জন্য।

এতে অনেকে ভয় দেখিয়েছেন। বলেছেন- আমার হিসাব ভুল হবে। দেশে করোনা তছনছ করবে। কিন্তু আমি সকল কথা পিছনে রেখে আপনাদের মনোবল সতেজ রাখতে কাজ চালিয়ে গেছি।

এখনো বলি প্রতিপালকের উপর বিশ্বাস রাখুন হয়ত দেখবেন মে মাসেই করোনা রোগ কমে গেছে। তবে সকলকে অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।
আপনাদের মনোবল বাড়ানোর পিছনের যুক্তি তুলে ধরছি। সকলে জানি- শিশু হয়েই মানব জন্ম, পরে কৈশোর যৌবন এবং বাধক্য থাকে। এটা সকল প্রাণীর বেলা কিন্তু প্রযোজ্য।

মানুষ বা বনের শক্তিধর প্রাণী বাঘ যৌবনে যা করতে পারে শিশুকালে বা বার্ধক্যে কি তা করতে পারে? অবশ্যই না। সব কিছুর যৌবনকাল বা মধ্যম সময়টা ঘটনাবহুল, ধুড়োমধাড়াক্কা। আর এ উত্থানের মধ্যদিয়ে পতনের দিকে ধাবিত সবকিছু। যেমন ঘূর্ণিঝড় সাগরে তৈরি হয় কম শক্তি নিয়ে।

পরে ধীরে শক্তি সঞ্চয় করে আঘাত হানে। এরপর দুর্বল হয়ে আচড়ে পড়ে। এমন বিষয় সকল আপদের বেলা ঘটে। এটা আমি ইতিহাস পড়ে এবং জীবনের বাস্তব অবিজ্ঞতায় জেনেছি।

করোনা একইভাবে উহানে কম শক্তি নিয়ে তান্ডব শুরু করে। এটা তার শৈশব ধরলে কৈশোরে একটু বেশি তান্ডব চালায় ইরানে। এরপর বেশ শক্তি নিয়ে স্পেন-ইতালিসহ ইউরোপ, আমেরিকার কয়েক দেশে আঘাত হানে। এই আঘাতকে তার যৌবন ধরলে পরেরটা তো বার্ধক্য। এখন সে বার্ধক্যেই আছে।

তাই আমাদের দেশে প্রভাব বেশি ফেলতে পারেনি বার্ধক্যের কারণে। এটা তার জীনবচক্র। এতেই বোঝা যায় সে শেষ সময়ে এসে পৌছেছে করোনা। তাই হতাশা বা ভয়ের কারণে নেই। করোনা নির্মূল হবেই। অটো নিয়মে, তার জীবনচক্রেই নিঃশেষ হয়ে যাবে।

দেখুন আমি জ্যোতিষী নই। তবে আমি মনে করি সকল বুদ্ধিসম্পন্ন মানুষ জ্যোতিষী। জীবনের হিসেব নিকেশ করে চলাও কিন্তু জ্যোতিষবিদ্যা। সেই হিসেব নিকেশ থেকে প্রমাণ তুলে ধরি- করোনাভাইরাসে বিশ্বজুড়ে কমে এসেছে প্রাণহানি, গত ২৪ ঘণ্টায় সাড়ে ৪ হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছে এই মহামারীতে।

নতুনভাবে সংক্রমিত ব্যক্তির সংখ্যাও কমেছে উল্লেখযোগ্য হারে। ২৪ ঘণ্টায় ৬৯ হাজারের মতো মানুষের শরীরে শনাক্ত হয়েছে করোনাভাইরাস। এছাড়া, ইউরোপের দেশগুলোয় একদিনে দু’হাজারের মতো মানুষের মৃত্যু রেকর্ড করা হয়েছে। ধারণার তুলনায় দ্রুতগতিতে কমছে নতুনভাবে আক্রান্তের সংখ্যা।

একারণেই, শিথিল করা হচ্ছে লকডাউন, তুলে দেওয়া হচ্ছে বিধিনিষেধ। এ পরিস্থিতিতে, মহামারীর তৃতীয় স্তরে নামার ঘোষণা দিল নিউজিল্যান্ড। প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডান দাবি করেছেন, বন্ধ করা গেছে কমিউনিটি ট্রান্সমিশন।

করোনা কেন নিঃশেষ হবে তার কারণ হল- এটি সিজন্যাল রোগ। ঋতু সম্পর্কিত। বসন্তের রোগ। তাই ঋতু বদলের সাথে এটি এমনি দুর্বল হয়ে যাবে। যাচ্ছেও। এর আগেও অনেক মহামারী বসন্তকালে এসে বসন্তের পর নির্মূল হয়েছে জেনেছি। তাই এই তথ্য তুলে ধরলাম।

আরেকটা বিষয় তুলে ধরি- পৃথিবীর উপর গ্রহের প্রভাব বিদ্যমান। পৃথিবীর সাথে সকল গ্রহের টান রয়েছে। জোয়ার-ভাটায় এর প্রভাব পরিলক্ষিত হয়। এছাড়া অন্য গ্রহের প্রভাবের ফলে পৃথিবীতে দুর্যোগ আসে।

যদিও এই মুহূর্তে এর প্রমাণ তুলে ধরতে পারছিনা। তবে এটাই ঠিক। এক গ্রহের সাথে অন্য গ্রহের চুম্বকাকর্ষণ থাকায় শূণ্যেও সব গ্রহ ভেসে বেড়াতে পারে। আর অন্য গ্রহের ঋতু পরিবর্তনে প্রভাব পৃথিবীতে পড়ে বলে এ বিশ্ব দুর্যোগের মুখোমুখি হয়।

পৃথিবীর উপরে নক্ষত্রের প্রভাব আছে- এটা হাদিসে ইঙ্গিত পাওয়া যায়। মহামারী নিয়েও এমন একটা হাদিস আছে বলে জেনেছি- তাতে বলা হয়েছে যে, আকাশে সাতটি তারকার উদয় হয় ১২ মে। আর ওই সময়ের পর পৃথিবী থেকে মহামারী দূর হয়ে যায়।

এ কথা আমিও বিশ্বাস করি। তাই তো বলি মে মাসেই করোনা দুর্বল হয়ে যাবে। তবে আমার মতে এটা টাইমিং। কেননা নির্দিষ্ট একটা সময়ে এই সাত তারা উদয় হয়। আর যে সময় উদয় হয় সে সময় গ্রীষ্মের মাঝামাঝি সময়। অর্থাৎ বসন্ত শেষে তার আবহ থাকে মাস ক্ষাণিক।

আর ১২ মে গ্রীষ্মের একমাস হয় এবং বসন্তের আবহ পুরোপুরি শেষ হয় ওই সময়ে। ফলে মে মাসে করোনা রোগ নির্মূল হবে বলে বিশ্বাস করি।

যে চীনে করোনা জন্ম সেখানে এ রোগ নির্মূল হয়ে গেছে। গত প্রায় দেড় সপ্তাহে চীনে করোনায় কেউ মারা যায়নি। তার মূল কারণ হল সে দেশে ঋতুর পরিবর্তন ঘটেছে। বিশ্বের যেসব দেশে ঋতু পরিবর্তন হচ্ছে, সেসব দেশে করোনার প্রভাব কমছে কিন্তু। সে হিসেবে আমরা খুব ভালো অবস্থানে আছি।

ঋতু পরিবর্তনের সময় দেশে করোনা হানা দেয়। আশার কথা হল- লক্ষাধীক মানুষের মৃত্যুর মিছিলে আমাদের দেশে খুব কম মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। আক্রান্তও হয়েছেন কম। যারা অসচেতন ছিলেন, তারাই করোনার থাবায় পড়ে গেছেন। তাই ঘরে থাকুন, অল্পদিন কষ্ট করুন। সুদিন সামনে। আঁধার কেটে আলো জ্বলবেই। প্রতিপালকের প্রতি আমাদের সকল প্রশংসা। আমীন।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin