রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১০:৩৭ অপরাহ্ন

রক্ষা করুন-পোল্ট্রি শিল্পকে

রক্ষা করুন-পোল্ট্রি শিল্পকে


শেয়ার বোতাম এখানে

দেবাশীষ রায় 
নব্বই এর দশকে জনপ্রিয়তা লাভ করে অনেক চড়াই-উতরাই পেরিয়ে বর্তমান জায়গায় এসেছে বাংলাদেশের  পোলট্রি শিল্প। জিডিপিতে রয়েছে এই শিল্পের উল্লেখ যোগ্য অবদান। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় দেড় লক্ষ করে পোল্ট্রি ফার্ম রয়েছে।ব্রয়লার ও লেয়ার মুরগির পাশাপাশি ডিম, কোয়েল পাখি, কবুতর, টার্কি ইত্যাদি সরবরাহ করে যাচ্ছে পোল্ট্রি ইন্ডাস্ট্রিজ গুলো।খাদ্যাভাসের পরিবর্তন, জনসংখ্যার বৃদ্ধি, মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি, নগরায়ন ইত্যাদি কারণে বাংলাদেশে মাংস, ডিম এবং মাংস-ডিম ব্যবহৃত পণ্যের ব্যাপক চাহিদা দেখা দিয়েছে। শুধু তাই নয়, বাংলাদেশে সকল শ্রেনী-পেশার মানুষের প্রোটিনের চাহিদা মেটাচ্ছে পোলট্রি মাংস এবং ডিম। দামে কম এবং সহজলভ্য হওয়ার দেশের বাজারে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে পোলট্রি পণ্যের। তবে সাম্প্রতিক সময়ে পোলট্রি মুরগী ও ডিম নিয়ে ক্রেতা সাধারণের মনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। তার নেপথ্যে কারণ হিসেবে অনুমান করা যায় পোল্ট্রি উৎপাদন প্রক্রিয়া।
বর্তমানে পত্র-পত্রিকায় পোল্ট্রি মুরগি ও ডিম সম্পর্কে বিভিন্ন ধরনের নেতিবাচক খবরে অনেকেই মুখ ফিরিয়ে নিতে চাচ্ছেন এইসব পণ্য থেকে। খবরগুলো যে অমূলক তা কিন্তু নয়।বিভিন্ন সময়ে সরকারি ও বেসরকারি পরীক্ষায় পোল্ট্রি মুরগি ও ডিমে পাওয়া গেছে বিভিন্ন ধরনের ক্ষতিকর উপাদান।যা মানব স্বাস্থ্য কে ধীরে ধীরে ঠেলে দিচ্ছে ঝুঁকির দিকে।জার্নাল অফ আমেরিকান কেমিক্যাল সোসাইটির এক গবেষণায় বলা হয় বাংলাদেশের পোল্ট্রি মুরগির ডিমে পাওয়া ক্যাডমিয়াম ও নিকেলের পরিমাণ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দেয়া মান থেকে অনেক বেশি। পোল্ট্রি মুরগির খাদ্য থেকেই মূলত এইসব ভারী ধাতু গুলো পৌঁছে যাচ্ছে মুরগির মাংস, হাড়, লিভার ও ডিমে। খাদ্য শৃংখল এর মাধ্যমে এই সব ভয়ানক রাসায়নিক পদার্থগুলো পৌঁছে যাচ্ছে আমাদের শরীরে। শুধু তাই নয়,ধারণা করা হয় পোল্ট্রি উৎপাদন প্রক্রিয়ায় ব্যবহার করা হয় প্রচুর পরিমাণ এন্টিবায়োটিক।এই অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের প্রক্রিয়া টি সম্পূর্ণ অনিরাপদ।বেশিরভাগ উৎপাদনকারীরাই এন্টিবায়োটিক ব্যবহারের সঠিক মাত্রা জানেন না অথবা জানার জন্য কোন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে চান না। দিন দিন ব্যাকটেরিয়া গুলা হয়ে উঠছে এন্টিবায়োটিক সহনশীল আর আমরা হয়ে পড়ছি দুর্বল। এমন ভাবে চলতে থাকলে ভবিষ্যতে যখন এন্টিবায়োটিক সহনশীল সুপার বাগ আসবে তখন আমাদের আর কিছু করার থাকবে না।
মূলত এইসব কারনেই স্বাস্থ্যসচেতন মানুষরা দিন দিন পোল্ট্রি পণ্য বর্জন করা শুরু করেছেন।বিষয়টি আমাদের অর্থনীতির জন্য মোটেই মঙ্গল জনক নয়।বর্তমানে পোল্ট্রি ইন্ডাস্ট্রিতে প্রায় ১৫০০০ কোটি টাকার উপরে বিনিয়োগ রয়েছে।ধারণা করা হচ্ছিল ২০২৪ সালের মধ্যে বাংলাদেশ পোল্ট্রি পণ্য ব্যাপক হারে রপ্তানি শুরু করবে।বাংলাদেশের পোল্ট্রি শিল্প যেভাবে বাংলাদেশের আপামর জনসাধারণের প্রোটিনের চাহিদা পূরণ করছিল এবং একটা বিশ্বাস তৈরি করতে পেরেছিল তা আজ হুমকির মুখে।জনগণ যদি দেশীয় পোল্ট্রি পণ্য থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয় তখন প্রোটিনের চাহিদা পূরণের জন্য হয়তো বিদেশ থেকে আমদানি করতে হবে। যার প্রভাব আমাদের অর্থনীতিতে পড়বে বৈকি। তাই এখনই সময় বাংলাদেশের পোল্ট্রি শিল্প খাদের নিচে পড়ে যাওয়ার আগেই তাকে রক্ষা করার। এখনই আমাদেরকে ক্রেতা সাধারণের চাহিদার দিকে নজর দিতে হবে।শুধু অধিক মুনাফার কথা চিন্তা না করে দৃষ্টি দিতে হবে ভোক্তার নিরাপত্তা দিকেও।বিশ্বব্যাপী নিরাপদ খাদ্য এখন ভোক্তাদের প্রাথমিক অধিকার।সেই ভোক্তা অধিকার নিশ্চিত না করে আমাদের পোল্ট্রি শিল্প কোনভাবেই দীর্ঘমেয়াদে টিকে থাকতে পারবে না।তাই এখনই সরকার এবং সংশ্লিষ্ট সকলকে সচেতন হতে হবে যাতে বাংলাদেশের প্রতিটি পোল্ট্রি ফার্মে উৎপাদিত অন্য ভোক্তাদের জন্য নিরাপদ হয়।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin