বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:৪৭ অপরাহ্ন


রপ্তানী শিল্পে জায়গা করে নিয়েছে সিলেটের কুচিয়া

রপ্তানী শিল্পে জায়গা করে নিয়েছে সিলেটের কুচিয়া


শেয়ার বোতাম এখানে

নবীন সোহেল: কুচিয়া দেখতে সাপের মতো হলেও এটি এক প্রকার মাছ। যা সিলেটে কুইচ্চা নামে পরিচিত। কুচিয়া হাওর, খাল-বিল, পঁচা পুকুর ও ধানক্ষেতে পাওয়া যায়। এটি সুস্বাদু, পুষ্টিকর এবং ঔষধি গুণাগুণ সম্পন্ন মাছ। বাংলায় কুচিয়া, ইংরেজিতে Sybranchidae একটি ইল-প্রজাতির মাছ। ঝুনৎধহপযরফধব পরিবারের অর্ন্তগত এই মাছটির বৈজ্ঞানিক নাম Monopterus cuchia. সিলেটে অনেকে শারীরিক দুর্বলতা, রক্তশূন্যতা, অ্যাজমা রোগ, ডায়াবেটিস, বাতজ্বরসহ অনেক রোগ সারাতে কুচিয়া খেয়ে থাকেন।
সিলেটে অনেকে কুচিয়াকে মাছ হিসেবে না চিনলেও বিদেশে ক্রমেই বাড়ছে এর চাহিদা। বাংলাদেশ থেকে ১৯৭৭ সালে প্রথম কুচিয়া রফতানি শুরু হয়। বর্তমানে চীন, জাপান, হংকং, মঙ্গোলিয়া, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়াসহ প্রায় ১৫টি দেশে রপ্তানি হচ্ছে। সিলেট থেকে প্রায় দেড় একযুগ ধরে কুচিয়া বিক্রি হচ্ছে। এর ফলে সিলেটে বাণিজ্যিকভাবে গড়ে উঠেছে ২/৩টি কুচিয়া আড়ৎ। আদিবাসী জনগোষ্ঠীর পাশাপাশি হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন এই ব্যবসার সাথে জড়িত। সিলেটের রশিদপুরের মসজিদ কলোনীতে সেভেন স্টার আড়ৎ নামের ও নগরীর কদমতলীতে সমিরন পালের একটি আড়ৎ রয়েছে। ব্যবসাটি লাভজনক হওয়ায় অনেক মৎস্যজীবীরা এ ব্যবসার দিকে ঝুঁকছেন। কুচিয়া রফতানি করে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের পাশাপাশি কমছে দেশের বেকারত্বের হার। এদিকে প্রকৃতিকভাবে বেড়ে ওঠা কুইচা নিধনও পরিবেশের হুমকি স্বরূপ বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।
রশীদপুরের সেভেন স্টার কুচিয়া আড়তের এক মালিক হবিগঞ্জের চরহামওয়া গ্রামের সুভাস সরকার জানান, তারা ৭জন মিলে ঢাকা-সিলেটের মহাসড়কের রশিদপুরের মসজিদ কলোনীতে আড়ৎ করেছেন প্রায় দশ বছর আগে। স্থানীয় অনেক মৎস্যজীবি ও বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা প্রায় অর্ধশত শিকারীর কাছ থেকে তারা ক্রয় করে সংগ্রহে রাখেন। প্রতি সপ্তাহে ৪শ থেকে ৫শ কেজি কুচিয়া ঢাকার উত্তরা নলভোগের হাসেম গাজীর আড়ৎ-এ বিক্রি করেন। হাসেম গাজীর মাধ্যমেই কুচিয়া বিদেশে রপ্তানী হয়।
কুচিয়া শিকারী নবীগঞ্জের শংকরপুর গ্রামের জগদীশ পাল, নেপাল পাল, গোপাল পাল ও সুদেপ পাল জানান, বাঁশের তৈরি চাঁই (এক ধরনের ফাঁদ) দিয়ে কুচিয়া শিকার করা হয়। এছাড়াও জাল, বড়শি ও বাঁশের তৈরি এক ধরনের হাতিয়ার দিয়েও কুচিয়া ধরা হয়। একটি কুচিয়া ওজন সাধারণত ৩শ গ্রাম থেকে ২ কেজি পর্যন্ত। এগুলো জীবিত বিক্রি করা হয়। আড়তের ম্যানেজার রতিরাজ দাশ বলেন, আকার ভেদে প্রতি কেজির কুচিয়ার দাম ১৫০ টাকা থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত। একজন চাষি দিনে তিন থেকে পাঁচ কেজি পর্যন্ত কুচিয়া ধরতে পারেন। যা থেকে দিনে ৫শ থেকে ৭শ টাকা পর্যন্ত আয় করা যায়।
জেলা মৎস্য কর্মকর্তা সুলতান আহমেদ দৈনিক শুভ প্রতিদিনকে বলেন, দেশের রপ্তানী শিল্পে কুইচা অনেকদূর এগিয়ে গেছে। সিলেটে কুইচা বাণিজ্যিকভাবে চাষের জন্য প্রশিক্ষণসহ বিভিন্ন ব্যবস্থা শীগ্রই গ্রহণ করা হবে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin