বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:৫৬ পূর্বাহ্ন

রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা থাকলেও নেই প্রবাসী বিনিয়োগ

রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা থাকলেও নেই প্রবাসী বিনিয়োগ


শেয়ার বোতাম এখানে

শেখ আব্দুল মজিদ : 
প্রাকৃতিক সম্পদে পরিপূর্ণ একটি অঞ্চল সিলেট। রয়েছে শিল্পায়নের বিপুল সম্ভাবনা। অথচ সিলেট অঞ্চলে প্রাপ্ত মোট ব্যাংক আমানতের নামমাত্র একটি অংশ এখানে বিনিয়োগ হচ্ছে। মিল-কারখানাও তেমন গড়ে উঠছে না। সিলেটে নতুন প্রজন্মের উদ্যোক্তা হওয়ার চেয়ে বিদেশে যাওয়ার প্রবণতাই বেশি।

এ অবস্থায় যুক্তরাজ্যসহ বিভিন্ন দেশে বসবাসরত সিলেট অঞ্চলের সম্পদশালী ব্যক্তিদের যথাযথভাবে বিনিয়োগে উৎসাহিত করে এ অঞ্চলের সাথে সম্পৃক্ত করা গেলে দেশের অর্থনীতি আরও শক্তিশালী হবে বলে মনে করছেন উন্নয়নকর্মীরা। ফলে প্রবাসীদের বিনিয়োগে সিলেটে সম্ভাবনার দুয়ার খুলবে।

সম্প্রতি সিলেটের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত ‘সিলেট অঞ্চলে বিনিয়োগ: সমস্যা ও সম্ভাবনা’ শীর্ষক সেমিনারের সিলেটে বিনোয়োগের একটি ধারণাপত্রে বিষয়টি তুলে ধরা হয়।

সেখানে সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ফজলে এলাহী মোহাম্মদ ফয়সাল লিখিত ধারণাপত্র উপস্থাপন করেন। ধারণাপত্রে বলা হয়, সিলেট বিভাগের প্রায় ১৬ শতাংশ পরিবার প্রবাসীদের মাধ্যমে অর্থ পেয়ে থাকে।

সিলেট অঞ্চলের অধিবাসীরা পাঠানো অর্থ মূলত পারিবারিক ব্যয় নির্বাহ, জমি কেনা, বিলাসবহুল বাড়ি নির্মাণ ও ফ্ল্যাট কিনতে ব্যয় করেন। এছাড়া বিভিন্ন পবিত্র স্থান এবং প্রতিষ্ঠানেও প্রবাসী-আয় ব্যয় হয়। ব্যাংক আমানতের একটি বিরাট অংশ আসে প্রবাসীদের কাছ থেকে। গরিব আত্মীয়স্বজনেরাও প্রবাসী-আয় পান। কিন্তু এ থেকে বিনিয়োগের রিটার্ন আসছে না।

ইকোনমিক রিসার্চ গ্রুপ প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে বলা হয়, বাংলাদেশের মোট প্রবাসী-আয়ের প্রায় ৯ শতাংশ সিলেট অঞ্চলের প্রবাসীদের মাধ্যমে এসে থাকে। সিলেট অঞ্চলের অধিবাসীরা উৎপাদনশীল খাতে (মিল-কারখানা প্রতিষ্ঠা) বিনিয়োগ না করে অনুৎপাদনমুখী খাতে (যেমন কমিউনিটি সেন্টার প্রতিষ্ঠা, ভূমি ব্যবসা, দোকান তৈরি, বাড়ি নির্মাণ) বিনিয়োগে বেশি আগ্রহী।

এ অঞ্চলের মানুষের মধ্যে ঝুঁকি গ্রহণ করে সফল উদ্যোক্তা হওয়ার প্রবণতা তেমন নেই। তবে এ অবস্থা কাটাতে সিলেট অঞ্চলের উদ্যোক্তারা কৃষিজাত পণ্য, চা, কুটিরশিল্প, মৎস্য ও গবাদিপশু পালন, টেক্সটাইল ও রাবারশিল্প, খনিজ শিল্প, পাথর ও ইটশিল্প, আগর-আঁতরশিল্প এবং বেতশিল্প হতে পারে সম্ভাব্য উৎপাদনমুখী খাত।

এ ছাড়া প্রবাসী বিনিয়োগের খাত হতে পারে সিলেটের পর্যটনশিল্প। সিলেট অঞ্চলে বেশ কিছু আকর্ষণীয় স্থান রয়েছে। এসব স্থান খুঁজে বের করে যথাযথ প্রচারের মাধ্যমে পর্যটনশিল্পের বিকাশ ঘটানো সম্ভব। বিগত কয়েক বছর ধরে রাজনৈতিক অস্থিতিশীল পরিস্থিতিতে সিলেটে থমকে গিয়েছিল বিনিয়োগ। কিন্তু প্রায় দুই বছর থেকে দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা থাকলেও নেই প্রবাসী বিনিয়োগ।

সিলেট পর্যাপ্ত অনাবাদি জমি থাকলেও বিনিয়োগে আগ্রহ দেখাচ্ছেন না কোনো উদ্যোক্তাই। যার ফলে সিলেটে গড়ে উঠছে না বড় কোন প্রকল্প। এমনকি সিলেট নেই কোন গার্মেন্স ইন্ড্রাস্ট্রি। সিলেটের দিন দিন প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স অন্য যে কোন সময়ের তুলনায় কমে আসছে। যার প্রভাব পড়ছে সিলেটের অর্থনীতির উপর। ব্যবসায়ী নেতারা বলছেন, ব্যবসা-বাণিজ্য, আবাসন খাত, পর্যটন থেকে শুরু করে সর্বত্র এর প্রভাব পড়ছে। মুখ থুবড়ে পড়েছে সিলেটের বিনিয়োগ ব্যবস্থায়।


সিলেটে তরুণ প্রজন্মরা এখন রেস্টুরেন্ট ব্যবসার প্রতি ঝুঁকছেন। শুধু রেস্টুরেন্ট ব্যবসায় সিলেটকে এগিয়ে নেওয়া সম্ভব নয়। সিলেটের শতকরা ৭৫ ভাগ ব্যবসা-বাণিজ্য প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স এবং প্রবাসীদের উপর নির্ভরশীল। বিগত কয়েক বছর দেশে প্রবাসীরা দেশে আশা প্রায় বন্ধ করে দিয়েছেন। এমনকি নতুন প্রজন্মের বাংলাদেশী ব্রিটিশ বশো™ভুতরা দেশে আসতে চায় না। যার কারণে অনেক প্রবাসীরা বাপদাদার ভিটামাটি বিক্রি করে যাচ্ছেন।

২০১৬ সালের ২১ জানুয়ারি সিলেটে হাই-টেক পার্ক স্থাপন করার পরিকল্পনা করে বাংলাদেশ সরকার। সিলেটবাসীর স্বপ্ন পূরণ করতে সিলেটকে একটি প্রযুক্তির নগরী হিসেবে গড়ে তোলার সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছেন প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সিলেটের কোম্পানিগঞ্জে ১৬২ দশমিক ৮৩ একর জমির উপর সিলেট হাইটেক পার্ক (সিলেট ইলেকট্রনিকসিটি। এটা সিলেটের উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে। যেখানে প্রায় ৫০হাজার লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে। কিন্তু এই হাইকেট পার্কে সিলেটের স্থানীয় ব্যবসায়ী ও সিলেটের প্রবাসী ব্যবাসীদের কোন বিনিয়োগ নেই।

বিনিয়োগ বিষয়ে কয়লা আমদানীকারক গ্রুপের সভাপতি চন্দন শাহ বলেন, দীর্ঘদিন ধরে ভারতের মেঘালয় থেকে কয়লা ও পাথর আমদানি নিয়ে জটিলতা চলছে। এতে আমাদের ১২ থেকে ১৩ হাজার শ্রমিকের কাজ নাই।
প্রতিবছর যেখানে সিলেটে ১৭ থেকে ১৮ লাখ টন আমদানি ও রপ্তানি হতো সেখানে তা শূন্যের কোটায়। তিনি মনে করেন, সিলেটে কয়লা দিয়ে বিনিয়োগ বাড়াতে হলে ভারত সরকারে সাথে সীমান্তের সমস্যা সমাধান করতে হবে।

এব্যাপারে যুক্তরাজ্যের ইমিগ্রিশন এডভাইজার ড.সামছুল হক চৌধুরী জানান, প্রবাসীরা সিলেটিরা ব্যক্তিগত ও পারিবারিক অবস্থার বুনিয়াদকে সেই অর্থ-ই মজবুত করে রেখেছে। অবস্থার এ ধারাকে পরিবর্তন ঘটাতে পারলে বদলে যেত গোটা সিলেট। আধুনিক মালেশিয়া, সিঙ্গাপুরের মতো হত সিলেটের।

সিলেট চেম্বার অব কর্মাস এন্ড ইন্ড্রাস্ট্রিজ এর সভাপতি আবু তাহের মোহাম্মদ সুয়েব বলেন, সিলেটের প্রবাসীরা দেশে বিনিয়োগ নিয়ে প্রবাসীরা যে আসছেন না সেটি ঠিক নয়। অনেক প্রবাসী বিনিয়োগের জন্য টাকা নিয়ে এসেও দেশে আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় বিমুখ হচ্ছেন। বিশেষ করে অনাবাদি জমি নিয়ে কিছু জটিলতা রয়েছে। এ কারণে অনেকে নিরুৎসাহিত হয়েছেন বলে মনে করেন এ নেতা।

হাইটেক পার্ক সংশ্লিষ্টরা জানান, বর্তমান সরকারের যুগান্তরকারী পদক্ষেপের ফলে সিলেটে বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পেও বিনিয়োগের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। চীনা প্রতিষ্ঠানগুলো এখানে বিনিয়োগ করলে সব ধরনের সহযোগিতা করতে বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ প্রস্তুত। চীন এখন বিশ্বের বড় অর্থনৈতিক শক্তি। বাংলাদেশের উন্নয়নের সহযাত্রী হতে তারা আন্তরিকভাবে কাজ করতে ইচ্ছুক।

এদিকে সিলেট চেম্বারের বিভিন্ন সদস্যদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, কিছুদিন আগে যুক্তরাজ্য থেকে আগত ইউকে বাংলাদেশ ক্যাটালিস্ট্স অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (ইউকেবিসিসিআই) এর ২৩ সদস্য বিশিষ্ট প্রতিনিধিদলের সাথে সিলেট চেম্বারের এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সিলেট চেম্বার অব কমার্সের সাথে ইউকেবিসিসিআই এর ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। ব্যবসায়ী নেতারা জানান, ইতোপূর্বেও আমরা একাধিক মতবিনিময় সভায় মিলিত হয়েছি এবং দুই দেশের বিনিয়োগকারীদের উদ্বু


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin