সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১, ১০:৩১ অপরাহ্ন

রাত পোহালেই ভোট


শেয়ার বোতাম এখানে

সালমান ফরিদ/নবীন সোহেল
শীতে প্রায় কাবু হয়ে পড়ছেন দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ। ঘন কুয়াশা পড়েছে। তাপমাত্র প্রায় ১৩ ডিগ্রি। সকাল হলে খড় জ্বালিয়ে আগুনের উত্তাপ নিতে দেখা যায় সেখানকার মানুষদের। কর্মস্থলে যাবার তাড়া কম নয়। রুটি-রুজির আকঙ্খায় প্রতিদিন নেমে পড়তে হচ্ছে জীবনযুদ্ধের মাঠে। কিন্তু ঠিক এই মুহুর্তে সব তাড়াকে পেছনে ফেলে অন্য এক ‘তাড়া’ তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে পুরো বাংলাদেশকে। হাড়া কাঁপানো শীতকে ছাড়িয়ে উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ছে সর্বত্র। সেই উত্তাপ, সেই তাড়না গিয়ে থামবে রোববারে। ৩০ ডিসেম্বর ২০১৮-এ। এ দিন সকালটা শুরু হবে প্রতিদিনকার মতোই। কিন্তু বাংলাদেশের সেই সকাল হবে ভিন্ন মেজাজের। ভিন্ন আমেজের। কারণ আজ রাত পোহালেই কাল ভোট। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন-২০১৮।
এবারই সবচেয়ে বেশি উৎসব-শঙ্কায় মিলে শুরু হবে ভোটের দিন। ভোট কেন্দ্রে যেতে পারবেন কী-না, গেলেও ভোট দিতে পারবেন কী-না- এমন সব আশঙ্কা, সংশয়ও দানা বেঁধেছে ভোটারের মাঝে। দলীয় সরকারের অধিনে অনুষ্ঠেয় বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং জাতীয় এই নির্বাচনে দুই বলয়ে দুই রকম হাওয়া। সরকার দল আওয়ামী লীগের অনুকূলে প্রশাসনের সব সুযোগ-সুবিধা নিয়ে উৎসব ও ফুরফুরে মেজাজে প্রচারণা চালিয়েছেন প্রার্থী ও কর্মীরা। তাদের মধ্যে এই ভোট উৎসবে পরিণত হয়েছে। অন্যদিকে বিএনপির নেতৃত্বাধিন ঐক্যফ্রন্টকে ভোটে আসা, প্রচারণা, ধরপাকড়, মামলা মোকাদ্দমা, হামলা, ভোটের মাঠে টিকে থাকার জন্য সবরকম প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে অংশ নিতে হচ্ছে ভোটে। সঙ্গত কারণেই তাদের মধ্যে বিরাজ করছে শোনশান নীরবতা, ক্ষোভ এবং আতঙ্ক। সারা দেশের মত সিলেটেও একই অবস্থা। তারা নিবির্ঘেœ প্রচরণার সুযোগ পেয়েছে খুব কমই। তারপরও ভোটাররা অপেক্ষা করছেন একটি ভোট উৎসবের। রাজনীতিকরা যাকে বলছেন ভোট বিপ্লব। আগামী ৫ বছরের জন্য ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে পছন্দের দলকে দায়িত্ব দেবেন দেশ পরিচালনার।
ভোট শুরু হবে সকাল ৮টা থেকে। বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোট দিবেন সিলেটের ৬টি আসনের ২২ লাখ ৫২ হাজার ২৯৪ জন ভোটার। প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা শেষ হলেও নির্বাচন নিয়ে উদ্ধেগ আর উৎকণ্ঠার শেষ হয়নি। শুক্রবার সকাল ৭টা ৫৯ মিনিটে প্রচার কাজের সময় শেষ হয়। এর আগে নির্বাচন কমিশনের তফসিল অনুযায়ী গত ১০ ডিসেম্বর থেকে একাদশ সংসদ নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা আরম্ভ হয়। প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দের পর থেকে শুরু হয় প্রচারণা উৎসব। এবারের নির্বাচনে মূলত দুটো জোটের মধ্যে ভোটের লড়াই হচ্ছে। আওয়ামী লীগ সভাপতি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মহাজোট এবং গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। দুই বৃহৎ জোটের প্রার্থীর বাইরে আরও কিছু দল নিজ প্রতীকে নির্বাচন করছেন। এছাড়া নির্বাচনি মাঠে রয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরাও। টানা ১৯ দিন বিরামহীনভাবে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ভোট প্রার্থনা করেছেন প্রার্থীরা। যদিও শুরু থেকে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীরা প্রচারণা চালাতে পারছেন না এবং হামলা গ্রেফতার হয়রানীর শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ করে আসছিলেন। অন্যদিকে মহা ধুমধামে ঢাক, ঢোল পিটিয়ে প্রচারণা চালিয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটের প্রার্থীরা। শহরে গ্রামে-গঞ্জের আনাচে কানাচে চেয়ে গেছে প্রার্থীদের পোস্টারে।
এদিকে, ১ম নির্বাচন থেকে এ পর্যন্ত ৮টি নির্বাচনে যে দলের সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন, সে দলই সরকার গঠন করেছে। তাই সিলেট-১ আসন আলাদা অনন্য মর্যাদার এক আসনের স্থান দখল করে আছে। যার কারণে প্রতিটি সংসদ নির্বাচনে এই আসনের দিকে চেয়ে থাকে পুরু দেশ। কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকে এই আসনের প্রতি জোর দিচ্ছেন দুই দলের শীর্ষ নেতারা।
সিলেটের ৬টি আসনে মোট ভোটার রয়েছেন ২২ লাখ ৫২ হাজার ২৯৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১১ লাখ ৫১ হাজার ৬৪৪ জন ও মহিলা ১১ লাখ ৬৫০ জন। এছাড়া ভোট কেন্দ্র রয়েছে ৯৯২ টি ও ভোট কক্ষ রয়েছে ৪ হাজার ৮৬৩টি। দশম জাতীয় সংসদে ৬ আসনে ভোটার সংখ্যা ছিল ১৯ লাখ ৬২ হাজার ৯৭৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ছিল ৯ লাখ ৯২ হাজার ৫৭৯ জন ও মহিলা ভোটার ছিল ৯ লাখ ৭০ হাজার ৩৯৫ জন। ভোট বাড়ার ফলে ভোট কেন্দ্র ও কক্ষের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। বিগত নির্বাচনে ভোট কেন্দ্র ছিল ৮৪৭ টি ও ভোট কক্ষ ছিল ৩ হাজার ৯২৭টি। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তুলনায় এবার পুরুষ ভোটারের সংখ্যা বেড়েছে ১ লাখ ৫৯ হাজার ৬৫ জন ও নারী ভোটার সংখ্যা বেড়েছে ১ লাখ ৩০ হাজার ২৫৫ জন। সিলেট জেলার ৬টি আসনে ভোটকেন্দ্র আছে ৯৯২টি। তš§ধ্যে ‘গুরুত্বপূর্ণ’ কেন্দ্র ৬০৭টি, বাকি ৩৮৫টি কেন্দ্র সাধারণ।
প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্বাচনের প্রস্তুতি ইতিমধ্যে শেষ করা হয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে ৫ স্তরের নিরাপত্তা গ্রহণ করা হয়েছে। বিগত নির্বাচন গুলোতে ৪ স্তরের নিরাপত্তা থাকলেও এই নির্বাচনেই কেবল ৫ স্তরের নিরাপত্তা থাকছে। সেনাবাহিনী, বিজিবি, পুলিশ, র‌্যাব, আনসার বাহিনীর সাথে যোগ দিচ্ছে গ্রাম পুলিশও। সিলেট মহানগরী এলাকার সাধারণ ভোটকেন্দ্রগুলোতে নিরাপত্তায় পুলিশ ও আনসার বাহিনীর অন্তত ১৬ জন সদস্য নিযুক্ত থাকবেন। তš§ধ্যে অস্ত্রধারী পুলিশ ৩-৪ জন থাকবেন। এ এলাকার ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে অস্ত্রধারী ৪-৬ জনসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অন্তত ১৭ জন সদস্য নিযুক্ত থাকবেন। মহানগরীর বাইরের এলাকার সাধারণ কেন্দ্রে থাকবেন পুলিশ, আনসার ও গ্রাম পুলিশের ১৪ জন সদস্য; তš§ধ্যে অন্তত দুজন অস্ত্রধারী থাকতে পারেন। আর ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে অস্ত্রধারী ৩-৫ জনসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ১৫ জন সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। পুলিশ, আনসার ও গ্রাম পুলিশের সদস্যরা কেন্দ্রে মূল দায়িত্ব পালন করবেন। এর বাইরে মাঠে থাকবেন সেনাবাহিনী, র‌্যাব, বিজিবি ও আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের সদস্যরা। এছাড়া ডিবি পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার বিশেষ বাহিনী মাঠে থাকবে। তাদের এ সংক্রান্ত প্রশিক্ষণও দেওয়া হয়েছে। নির্বাচনী এলাকার সর্বত্র চলছে সেনাবাহিনী, বিজিবি ও র‌্যাবের বিশেষ টহল। রোববার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। যানবাহন চলাচলের ওপর আরোপ করা হয়েছে বিধিনিষেধ। নির্বাচনী সামগ্রী প্রতিটি কেন্দ্রে পৌছার অপেক্ষায়। আজ হবে বিলি-বণ্টন কার্যক্রম।
রাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব স্বাক্ষরিত পরিপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ, ‘১৯৭২ এর অনুচ্ছেদ ৭৮ অনুসারে ভোটগ্রহণ শুরুর পূর্ববর্তী ৪৮ ঘণ্টা ও ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টা সময়ের মধ্যে অর্থাৎ, ২৮ ডিসেম্বর সকাল ৮টা থেকে ১ জানুয়ারি বিকাল ৪টা পর্যন্ত সব নির্বাচনি এলাকায় যেকোনো ধরনের সভা, সমাবেশ ও মিছিল, শোভাযাত্রা করা যাবে না।’ অর্থাৎ, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সব ধরনের প্রচারণার কাজ বন্ধ করতে হবে ২৮ ডিসেম্বর সকাল ৮টার আগেই। আর ২০১৯ সালের ১ জানুয়ারি বিকাল ৪টা পর্যন্ত কোনো প্রচারণা চালানো যাবে না। এছাড়াও পরিপত্রে যান চলাচলের নিষেধাজ্ঞায় উল্লেখ করা হয়েছে, ভোটগ্রহণের আগের দিন রাত ১২টা থেকে ভোটগ্রহণের দিন মধ্যরাত পর্যন্ত নির্বাচনি এলাকায় ট্যাক্সি ক্যাব, বেবিট্যাক্সি/অটোরিকশা, মাইক্রোবাস, জিপ, পিকআপ, কার, বাস, ট্রাক, টেম্পো, লঞ্চ, ইজিবাইক, ইঞ্জিনবোট ও স্পিডবোটগুলোর চলাচলের ওপর ওই নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে। তবে দেশজুড়ে শনিবার ২৯ ডিসেম্বর মধ্যরাত থেকে ২ জানুয়ারি মধ্যরাত পর্যন্ত ক্ষেত্র বিশেষ আরও অধিককাল মোটরসাইকেল বা অনুরূপ যান চলাচল নিষেধ থাকবে।
ইতিমধ্যে প্রতিটি উপজেলায় ভোটার অনুসারে ব্যালট পেপার, স্বচ্ছ ব্যালট বক্সসহ নির্বাচনী সরঞ্জাম প্রতি উপজেলায় পৌছানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেটের সহকারি রিটানিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন অফিসার মো. খুরশেদ আলম। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিরাপত্তা বেষ্টনীতে ব্যালট পেপার ভর্তি বস্তাগুলো প্রতি উপজেলায় নিয়ে যাওয়া হয় বলেন তিনি। এরআগে ৪২ ধরণের নির্বাচনী সরঞ্জাম উপজেলাওয়ারী পৌছানো হয়েছে। এরমধ্যে ব্যালট বক্স, বিভিন্ন নির্বাচনী সরঞ্জাম, সিল, ছবিসহ ভোটার তালিকা, অমোচনীয় কালির কলম, রাবারের অফিসিয়াল সীল, রাবারের মার্কিং সীল, গালা, সীল গালা করার জন্য পিতলের সীল (ব্রাসসীল), স্ট্যাম্প প্যাড, চটের ছোট থলি বা হোসিয়ান ব্যাগ, বল পয়েন্ট কলম, সাদা কাগজ, কার্বন কাগজ, ছুরি, সুঁই সুতা, মোমবাতি, দিয়াশলাই, আলপিন, গামপট, সুপার গম, লোহা/প্লাস্টিক/ বাঁশের পাত এবং প্রিন্ট করা দেয়ালপত্র যাতে প্রবেশ, বাহির, ভোটকক্ষ নং, প্রিসাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসার, পোলিং এজেন্ট ইত্যাদি লেখা থাকবে।
নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, ৪০টি উপজেলা, ১টি সিটি করপোরেশন, ১৯ পৌরসভা ও ৩৩৮টি ইউনিয়ন নিয়ে সিলেট বিভাগের ১৯টি সংসদীয় আসনের কেন্দ্রেগুলোতে ভোটগ্রহণের দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবেন ৪৩ হাজার ২৪২ জন কর্মকর্তা। এরমধ্যে ২ হাজার ৮০৫ জন প্রিজাইডিং অফিসার, ১৩ হাজার ৪৭৯ সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ও ২৬ হাজার ৯৫৮ জন পুলিং অফিসার।
রোববার সিলেটের ৬টি আসনে ভোটের মাঠে লড়াই করছেন, সিলেট-১ আসনে (সদর-সিটি কর্পোরেশন) আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে ড. একে আব্দুল মোমেন (নৌকা), বিএনপির খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির (ধানের শীষ), মাহবুবুর রহমান চৌধুরী (লাঙ্গল), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. রেদওয়ানুল হক চৌধুরী (হাতপাখা), ইসলামী ঐক্যজোটের (আইওজে) মুহ্ম্মদ ফয়জুল হক (মিনার), ন্যাশনাল পিপুলস পার্টির ইউসুফ আলী (আম), বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির উজ্জল রায় (কোদাল), বাংলাদেশ সমাজ তান্ত্রিক দল-বাসদ এর প্রণব জ্যোতি পাল (মই), বাংলাদেশ মুসলীম লীগের মো. আনোয়ার উদ্দিন বুরহানাবাদী (হারিকেন), বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের আলহাজ্ব মাওলানা নাসির উদ্দিন (বটগাছ)। এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৫ লাখ ৪২ হাজার ৯৩৬ জন। পুরুষ ভোটার ২লাখ ৮৬হাজার ২৬৭জন। আর নারী ভোটার ২লাখ ৫৭হাজার ২৬৩জন।
সিলেট-২ (বিশ্বনাথ-ওসমানী নগর) আসনে মহাজোটের ইয়াহ্ইয়া চৌধুরী (লাঙ্গল), খেলাফত মজলিসের মুহাম্মদ মুনতাছির আলী (দেওয়াল ঘড়ি), গণফোরামের মোকাব্বির খান (উদীয়মান সূর্য), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. আমির উদ্দিন (হাতপাখা),ন্যাশনাল পিপুলস পার্টির মো. মনোয়ার হোসাইন (আম), বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট-বিএনএফ এর মো. মোশাহিদ খান (টেলিভিশন), সতন্ত্র প্রার্থী মুহিবুর রহমান (ডাব), ড. এনামুল হক সরদার (সিংহ), আব্দুর রব মল্লিক (মটরগাড়ি)। এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৮৬ হাজার ৪০৩। পুরুষ ভোটার ১লাখ ৪৪হাজার ৮৩৫জন। আর নারী ভোটার ১লাখ ৪১হাজার ৫৪৫জন।
সিলেট-৩ (দক্ষিণসুরমা-ফেঞ্চুগঞ্জ-বালাগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী (নৌকা), বিএনপির শফি আহমদ চৌধুরী (ধানের শীষ), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের এম এ মতিন বাদশা (হাতপাখা), মো. উছমান আলী (লাঙ্গল), খেলাফত মজলিসের মো. দিলওয়ার হোসাইন (দেওয়াল ঘড়ি), বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের হাফিজ মাওলানা আতিকুর রহমান (রিকশা)। এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ২৩ হাজার ৩৯৬। পুরুষ ভোটার ১লাখ ৬২হাজার ৮৬৮জন। আর নারী ভোটার ১লাখ ৫৯হাজার ৪২৫জন।
সিলেট-৪ (জৈন্তাপুর-গোয়াইনঘাট-কোম্পানীগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের ইমরান আহমদ (নৌকা), বিএনপির দিলদার হোসেন সেলিম (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টির আহমেদ তাজ উদ্দিন তাহ রহমান (লাঙ্গল), বাংলাদেশ বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির মনোজ কুমার সেন (কোদাল), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. জিল্লুর রহমান (হাতপাখা)। এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৮২ হাজার ৪১২। পুরুষ ভোটার ১লাখ ৯৬হাজার ৬০০জন। আর নারী ভোটার ১লাখ ৮৫ হাজার ৮০১জন।
সিলেট-৫ (জকিগঞ্জ-কানাইঘাট) আসনে আওয়ামী লীগের হাফিজ আহমদ মজুমদার (নৌকা), ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের উবায়দুল্লাহ ফারুক (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টির সেলিম উদ্দিন (লাঙ্গল), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. নুরুল আমিন (হাতপাখা), গণফোরামের বাহার উদ্দিন আল রাজী (উদীয়মান সূর্য), বাংলাদেশ মুসলীম লীগের মো. শহিদ আহমদ চৌধুরী (হারিকেন), ইসলামী ঐক্যজোটের এমএ মতিন চৌধুরী (মিনার), সতন্ত্র প্রার্থী ফয়জুল মুনীর চৌধুরী (সিংহ)। এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ২৪ হাজার ২৫০। পুরুষ ভোটার ১লাখ ৬৩হাজার ১৯১জন। আর নারী ভোটার ১লাখ ৬১হাজার ১২১জন।
সিলেট-৬ (গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজার) আসনে আওয়ামী লীগের নুরুল ইসলাম নাহিদ (নৌকা), বিএনপির ফয়সল আহমদ চৌধুরী (ধানের শীষ), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. আজমল হোসেন (হাতপাখা), সতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গির হোসেন মিলু (মটরগাড়ি)। এ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৯২ হাজার ৮৯৭। পুরুষ ভোটার ১লাখ ৯৫হাজার ৭১৬জন। আর নারী ভোটার ১লাখ ৯৮হাজার ১৬৯জন।
সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মাহবুবুল আলম দৈনিক শুভ প্রতিদিনকে বলেন, নির্বাচনে ভোটের দিনের সহিংসতা এড়াতে সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। নির্বাচনে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ২হাজার পুলিশ ও সাড়ে ৮হাজার আনসার কাজ করবে। প্রতিটি কেন্দ্রে পুলিশের অস্ত্রধারী ১টিম, ইউনিয়ন পর্যায়ে ১টি করে মোবাইল পেট্রোল টিম, থানা পর্যায়ে ১টি করে স্ট্রাইকিং ফোর্স ও জেলা পর্যায়ে ২টি বিশেষ স্ট্রাইকিং ফোর্স থাকবে। এছাড়াও সাদা পোশাকে অসংখ্য পুলিশের নজরদারী থাকবে।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin