বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ০৭:৫৪ অপরাহ্ন

‘লাকড়ি তোড়া’ ও সিলেট বিজয়োৎসবে শাহজালালের মাজারে ভক্তদের ঢল

‘লাকড়ি তোড়া’ ও সিলেট বিজয়োৎসবে শাহজালালের মাজারে ভক্তদের ঢল


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্টার :
সিলেটের হজরত শাহজালাল (রহ.) এর মাজারের বার্ষিক ওরস উপলক্ষ্যে আজ রোববার ‘লাকড়ি তোড়া’ ও বিজয়োৎসব পালিত হয়েছে।  ৩৬০ আউলিয়ার অন্যতম হজরত শাহজালাল (রহ.) জীবদ্দশা থেকে এভাবে লাকড়ি সংগ্রহ করা হতো। সে চিরায়ত ঐতিহ্য অনুযায়ী প্রায় ৭০০ বছর ধরে আরবি মাস ২৬ শাওয়াল লাকড়ি ভাঙা ও সিলেট বিজয়োৎসব পালিত হয়ে আসছে। ২১দিন পর এই ‘লাকড়ি’ দিয়ে উরুসের শিরণি রান্না করা হবে।

শ্রমের মর্যাদা প্রতিষ্ঠা ও আভিজাত্যের গৌরব ধ্বংসের শিক্ষা নিয়ে প্রায় ৭’শ বছর ধরে সিলেটে এ উৎসব উদযাপন করা হয়। সুফি সাধক হজরত শাহজালাল (রহ)-এর স্মৃতি বিজড়িত এ উৎসব হিজরী বর্ষের ২৬ শাওয়াল পালন করা হয়।

কালের বিবর্তনে এটি এখন উৎসবে রূপ লাভ করেছে। লাকড়ি তোড়া শাহজালালের অগণিত ভক্তরা অংশ নেন।
প্রতি বছরে ন্যায় আজ জোহর নামাজ শেষ হতেই বেজে ওঠে ঐতিহ্যবাহী ‘নাকাড়া’। ‘শাহজালাল বাবা কী জয়’, ‘৩৬০ আউলিয়া কী জয়,’ ‘লালে লাল শাহজালাল’ স্লোগানে স্লোগানে প্রকম্পিত হয়ে ওঠে সিলেট নগর। নাঙ্গা তলোয়ার, দা-কুড়াল ও লাল-ঝাণ্ডা হাতে হাজার হাজার শাহজালাল ভক্ত সকাল থেকেই খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে শহরের বিভিন্ন প্রান্ত দিয়ে শাহজালাল দরগা প্রাঙ্গণে জমায়েত হতে থাকেন। কেউ একা আসেন, কেউ আসেন প্রতিবেশী আশেকানদের সাথে। বিভিন্ন মাজার-খানকা ও গঞ্জ-গ্রাম থেকে দুপুরের নামাজ পর্যন্ত চলে ভক্তদের জমায়েত পর্ব। জোহরের নামাজ শেষ হতেই শত বছরের প্রাচীন ঐতিয্যবাহী ‘নাকাড়া’ বেজে ওঠে। বেজে ওঠে ভক্ত-আশেকানদের শত শত ঢোল-ডঙ্কা ।

বিভিন্ন কাফেলার সাথে আসা অসংখ্য ব্যন্ড-পার্টির ডাক ঢুল বাদ্যের তালে তালে চলে হাজারো মানুষের স্লোগানে স্লোগানে নগ্ন পায়ে ছুটে চলা বেশির ভাগ মানুষের পরণে ছিল লাল কাপড়। অনেকেই মাথায় লালপট্টি বেঁধে এই মিছিল ছুটে চলে হজরত শাহজালাল(রহ.) এর ঐতিহ্যবাহী লাকড়ি তোড়া বা লাকড়ি ভাঙার টিলায়। প্রায় পাঁচ কিলোমিটার পথ পাড়ি দেয়া এ মিছিল শহরতলির লাক্কাতোড়া ও মালনিছড়া চা বাগানের টিলা থেকে লাকড়ি সংগ্রহ করে তা নিয়ে মাজারে ফিরে আসেন।

এ উপলক্ষে সকাল থেকে ‘লালে লাল- শাহজালাল’ ‘শাহজালাল বাবা কি- জয়’ ‘৩৬০ আউলিয়া কি- জয়’ ওলি আউলিয়া কি- জয়’-এ রকম নানা স্লোগানে লাল গামছা বা চাদর গায়ে হাজার হাজার ভক্তরা মিছিলে নামেন সিলেটের সড়কে। হজরত শাহজালালের (রহ.) দরগাহ থেকে শুরু করে নগরের আম্বরখানা পয়েন্ট, চৌকিদেখি হয়ে সোজা লাক্কাতোড়া চা-বাগান পর্যন্ত মিছিল করেন তারা। ফেরার পথে লাল গালিচার মিছিলে যুক্ত হয় গাছের সবুজ ডাল ও লাকড়ির অংশ বিশেষ। এগুলো মাজার পুকুরে এনে ধুয়ে নির্দিষ্ট স্থানে লাকড়ি ও গাছের ডাল রেখে দেন। ওরসের শিরনিতে ব্যবহৃত কাঠ সংগ্রহের ওই উৎসবকে লাকড়ি তোড়ার উৎসব বলা হয়ে থাকে।

হজরত শাহজালাল (র.) কর্তৃক সিলেট বিজয় হয় ৭০৩ হিজরি ১৩০৩ সালে। হজরতের জীবদ্দশায় তার মুর্শিদ হযরত সৈয়দ আহমদ কবীর সোহরাওয়ার্দ্দী (র.) ৭২৫ হিজরির ২৬ শাওয়াল ইন্তেকাল করেন। পরবর্তী বছর হতে সিলেট বিজয়োৎসব এবং হজরত সৈয়দ আহমদ কবীর সোহরাওয়ার্দ্দী (র.) এর উরুস উৎসব একই দিনে একই সঙ্গে একই টিলায় উদযাপিত হয়ে আসছে। এই টিলাটি লাক্কাতুরা ও মালনি ছড়া চা-বাগানের মধ্যখানে অবস্থিত। চিরাচরিত প্রথা অনুযায়ী প্রতি বছরের ২৬ শাওয়াল ‘লাকড়ি তোড়া’ উরুস শরীফ এবং সিলেট বিজয়োৎসব উদযাপি হয়ে আসছে।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin