শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১১:০০ পূর্বাহ্ন



লোক দেখানো কর্ম থেকে বেঁচে থাকা উচিত

লোক দেখানো কর্ম থেকে বেঁচে থাকা উচিত


                     মুফতি আবু যর রেজওয়ান

মানুষের সমর্থন, জনপ্রিয়তা, লাইক, কমেন্ট ও ভিউয়ারের লোভ এই উম্মতের দায়ীদেরকেও হয়তো একটা পর্যায়ে বনী-ইসরাঈলের পুরোহিত-ধর্মযাজকদের মতো ধ্বংস করে ছাড়বে।

বনী ইস্রাইল সঠিক পথ থেকে বিচ্যুত হবার পর তাদের অনেকগুলো খারাপ বৈশিষ্ট্যের মধ্যে একটি ছিলো, আল্লাহর আয়াত (অর্থাৎ- শরীয়াহর দলিল) এর পরিবর্তে নিজেদের পুরোহিত, ধর্মযাজকদেরকে দলিল বানিয়ে নেয়া।

আমাদের মধ্যে আজ এই বৈশিষ্ট্য প্রবল। কোনো নির্দিষ্ট ব্যক্তিবর্গ কিংবা গোষ্ঠীর অনুমোদন না থাকলে কোনো বিষয়ে কুরআন-সুন্নাহর কথা এবং সালাফ আস- সালেহিনের অবস্থান তুলে আনলে সেটা গ্রহণ করা আমাদের অনেকের জন্য সম্ভব হয় না।

যখন এসব ব্যক্তিবর্গের কথা ও অবস্থান কুরআন,সুন্নাহ ও সালাফ আস-সালেহিনের অবস্থানের বিপরীতে যায়, তখন যে কোনো ভাবে মনের মাধুরী মিশিয়ে ব্যাখ্যা বানিয়ে বিদ্যমানতাকে জায়েজ করা হয়।

এই উম্মতের এমনিতেই সমস্যার শেষ নেই। তার মাঝে আবার রোজ রোজ হাইব্রিড মুফতীদের ফতোয়ায় কিংবা ইন্টারনেট আল্লামাদের অনাচারে উম্মতের সমস্যা বেড়েই চলেছে।

ফিতনার এই যামানায় সবচেয়ে পরিবর্তনশীল আমাদের ঈমান-আকীদা। যা শুরু হয়েছে, আমরা কেউই নিশ্চিতভাবে বলতে পারি না, আজকের আমি আগামী বছর একই ঈমান-আকীদার ওপর থাকতে পারব কি না?

কোনো নিশ্চয়তা নেই, আমাদের দাড়ি, আমাদের পর্দা-হিজাব, হারাম হালালের প্রতি সচেতনতা,সর্বোপরি আকীদাহ-বিশ্বাস সব এক থাকবে?
আল্লাহর দয়া ব্যতীত কোনো কিছুরই নিরাপত্তা নেই। উপরন্তু নফস সবসময়ই তো বিপরিতমুখী বিষয়ের দিকে টানে।

হারাম, কবিরাহ গুনাহর স্বাদের জন্য বেচাইন হয়ে থাকে। দুনিয়ার দিকে সর্বদা লালসার দৃষ্টি দিয়ে রাখে সে। সত্যিই, ফিতনার এই ঘোড় অন্ধকারে হক-বাতিল আলাদা করে চিনতে পারা আল্লাহর দয়া ছাড়া সম্ভব নয়।

স্রেফ ইলম আর আমলের পাহাড় দিয়ে যদি হকের ওপর থাকা যেতো, তাহলে ইবলিশই সবথেকে উপযুক্ত হতো। এজন্য আমাদের উচিত, দ্বীন বুঝার-শেখার আগে পূর্ণ আত্মসমর্পণ করতে শেখা। আনুগত্যের আগে প্রবৃত্তিকে অনুসরণ ছেড়ে দেয়া।

আর বেশি বেশি আল্লাহর কাছে দুআ করা। তাঁর দয়া ছাড়া যেমন আখিরাতে কেউ জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে না, দুনিয়াতেও তেমনি হিদায়াতের ওপর চলার তাওফীক পাবে না।

সুফিয়ান আস-সাখাফি (রাযি.) বলেন,

قلت: يا رسول الله! قل لي في الإسلام قولاً لا أسأل عنه أحدًا بعدك.

‘আমি জিজ্ঞেস করলাম, “হে আল্লাহর রাসূল, আমাকে ইসলামের এমন একটি কথা বলে দিন, যা আপনার পরে আর কাউকে জিজ্ঞেস করতে হবে না।”
নবীজি (সা.) বললেন,

قل آمنت بالله ثم استقم

“বলো, আমি আল্লাহর প্রতি ঈমান আনলাম। অতঃপর এর ওপর অবিচল থাকো।”‘ [সহীহ ইবনু হিব্বান, ৯৪২]
ইমাম ইবনু তাইমিয়াহ (রহ.) বলেছিলেন,

أعظم الكرامة لزوم الاستقامة

‘সবচেয়ে বড় কারামত হলো, বিরামহীন ইস্তিকামাত (অবিচলতা)।’ [মাদারিজুস সালিকীন]

চতুর্দশ হিজরীর প্রখ্যাত আলিম আবু আলী আজ-জুযজানী (রহ.) বলেন,

كن طالبا للاستقامة لا طالبا للكرامة. فإن نفسك منجبلة على طلب الكرامة وربك يطلب منك الاستقامة

‘দ্বীনের ওপর অবিচলতা তালাশ করো, কারামত নয়। নিশ্চয়ই তোমার নফস কারামতের আকাঙ্ক্ষায় থাকে। কিন্তু তোমার রব তোমার কাছে অবিচলতা চান।’ [মাজমূ আল-ফাতাওয়া]

ইবনু তাইমিয়াহ (রহ.) আরো বলেন,

وأصل ضلال من ضل هو تقديم قياسه على النص المنزل من عند الله، وإختياره الهوى على اتباع أمر الله.

‘সকল ভ্রান্তির মূল হলো, আল্লাহর নাযিলকৃত প্রমাণের বদলে নিজের বুঝকে প্রাধান্য দেয়া এবং আল্লাহর নির্দেশ অনুসরণের বদলে নিজ প্রবৃত্তিকে বেছে নেয়া।’ [রিসালাতুল উবূদিয়্যাহ]

সত্যিই, ইবনু তাইমিয়াহ বাস্তব একটি কথা বলেছেন। যাবতীয় দল, মতের মূলের এটিই ছিল ভ্রান্তির মূল।

ইবনু মাসউদ (রাঃ) বলেনঃ
‘তোমরা এমন এক যুগে আছো যখন হক্ব প্রবৃত্তিকে পরিচালনা করে, অচিরেই এমন এক যুগ আসবে তখন প্রবৃত্তি হক্বকে পরিচালনা করবে। সুতরাং তোমরা সেই যুগ থেকে আশ্রয় প্রার্থনা করো।

(আল-জামে’ লি আহকামীল কুরআন, ৯/২০৭)

যখন কেউ দ্বীনের সুস্পষ্ট বিষয়ে তর্ক করে, অনলাইনে কিংবা বইপত্রে ভুল লেখে, বিষয় তখন এটা নয় যে, তারা দলীল জানে না। হতে পারে আপনার চেয়ে তার অগাধ ইলম মুখস্ত আছে। সার্টিফিকেট আছে।ইযাযাহ আছে। চারিদিকে সুনাম আছে।

তথাপি তাদের প্রধান অন্তরায় তারা দলীলের চেয়ে নিজের বুঝকে প্রাধান্য দেয়। আনুগত্যের চেয়ে নফসের খায়েশকে গুরুত্ব দেয়। এ জন্য সঠিক বুঝ পায় না।

ইবনুল-জাওযী (রহ.) চমৎকার বলেছেন,
‘এমন কতো আলেম ও দুনিয়াবিমুখ জাহেদ রয়েছে, যাদের হয়তো সাধারণ মানুষের মতোও মারেফত (আল্লাহকে চেনার জ্ঞান) অর্জিত হয়নি। বরং একজন সাধারণ মানুষ তাদের চেয়ে বেশি মারেফতের অধিকারী হয়ে পড়ে।’

এখন বড় সমস্যা হচ্ছে, দ্বীনের পথে ডাকেন এমন ব্যক্তিবর্গের সেলিব্রেটি হওয়ার নেশা জগদ্দল পাথরের মতো চেপে বসে। এই সেলিব্রেটি হওয়ার নেশা অনেক দায়ীকে ইস্তেকামাত ও হক্ব থেকে দূরে সরিয়ে ফেলছে।

অথচ আমরা দেখি মানুষের সমর্থন, জনপ্রিয়তার আকাঙ্ক্ষার লোভ যুগে যুগে অনেকে দায়ী-মুজাহিদের সম্মান ও মর্যাদা ক্ষুন্ন করেছে। যারা বেশি বেশি মানুষের মুখাপেক্ষী হয়েছে, মানুষকে সন্তুষ্ট করার চেষ্টা করেছে, তাঁদের স্মৃতিও মানুষের অন্তর থেকে মুছে গেছে। ভবিষ্যতেও যাবে।

আর বাস্তবতাও হলো, এভাবে জনপ্রিয় হওয়ার প্রচেষ্টায় রত থাকা বা নিজেকে প্রদর্শন করার অত্যধিক প্রবণতা মানুষের এখলাসও কমিয়ে দেয়। যখন এখলাস কমে যায়, তখন ক্রমান্বয়ে ঈমান-আকীদার অবিচলতায় দুর্বলতা ঢুকে পড়ে। আর এই সুযোগে বিপুল জনপ্রিয়তা হাসিলের লক্ষ্যে ভ্রান্ত মত-পথকে প্রতিষ্ঠিত করার একটি প্রবণতা নিজের মধ্যে চলে আসে। যার ফলে নিত্যনতুন কুতর্কের ক্ষেত্র তৈরি হয়।

অথচ একটি হাদীসের মধ্যে এমনও রয়েছে- যার ভাবার্থ মোটামুটি এরকম:
“নিজের মত ভুল হওয়ার কারণে যে ব্যক্তি বিতর্ক পরিত্যাগ করবে তার জন্য জান্নাতের পাদদেশে বাড়ি নির্মাণ করা হবে।

আর যে ব্যক্তি নিজের মত সঠিক হওয়া সত্ত্বেও বিতর্ক পরিত্যাগ করবে তার জন্য জান্নাতের মাঝখানে একটি বাড়ি নির্মাণ করা হবে।
আর যার আচরণ সুন্দর ও অমায়িক তার জন্য জান্নাতের সর্বোচ্চ স্থানে বাড়ি নির্মাণ করা হবে।”

আপনি যদি ইস্তেকামাতের উপর থাকতে চাইতেন বা অন্য কথায় সেলিব্রেটি হওয়ার নেশা আপনার না থাকতো, তাহলে আপনি এতো এতো প্রবৃত্তির খেয়াল খুশি মতো কথা বলতেন না। কুতর্কে জড়াতেন না। দ্বীনকে তাহরিফ করার পথে এতো অগ্রসর হতেন না।

এই কুতর্ক, তাহরিফের কারণে বনী ইস্রাইলকে অনেক রকম শাস্তির সম্মুখীন হতে হয়েছে। তার মধ্যে ক্রমাগত চলতে থাকা একটি শাস্তি ছিলো যিল্লতি, লাঞ্ছনা, অপমান।

এ উম্মাহর মধ্যে যারা বনী ইস্রাইলের মানহাজের অনুসরণ করে, তাদের ক্ষেত্রেও একইরকম হবার কথা। হচ্ছেও। আল্লাহ পাক আমাদেরকে হেফাজত করুন।

আসুন এই বিপর্যয় থেকে বাঁচার জন্য আল্লাহর কাছে প্রতিদিন এই দোয়া করি-

يَا مُقَلِّبَ الْقُلُوْبِ ثَبِّتْ قَلْبِيْ عَلَى دِيْنِكَ

‘অন্তর পরিবর্তনকারী মাওলা, আমার অন্তরকে আপনার দ্বীনের ওপর অবিচল রাখুন।’ আমীন।


সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin