রবিবার, ২৫ Jul ২০২১, ০১:৩২ পূর্বাহ্ন

ল্যাম্পি স্কিন রোগে গরু আক্রান্ত হচ্ছে দেশে: কমলগঞ্জে ২ সহস্রাধিক উপরে শনাক্ত

ল্যাম্পি স্কিন রোগে গরু আক্রান্ত হচ্ছে দেশে: কমলগঞ্জে ২ সহস্রাধিক উপরে শনাক্ত


শেয়ার বোতাম এখানে

শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:
দেশে করোনাভাইরাসের আতঙ্ক চলা অবস্থায় এবার গবাদিপশুর নতুন ভাইরাসজনিত রোগ “লাম্পি স্কিন ডিজিস” দেশের বেশ কয়েকটাউপজেলার সর্বত্র মহামারির আকারে ছড়িয়ে পরেছে। নতুন এই ভাইরাজনিত রোগটি  বাতাস, মশা-মাছি, উকুন-আটুলি ইত্যাদির মাধ্যমে গরু থেকে গরুতে দ্রুত ছড়িয়ে পরছে। এতে গরু খামারি ও কৃষকদের মাঝে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে।

রোগটির বৈশিষ্ট্য হল প্রথমে সারা শরীরে গুটি গুটি করে ফুলে উঠে, তারপর আক্রান্ত স্থানে ঘা হয়ে রস ও রক্ত বের হয় পরবর্তীতে নাক-মুখ দিয়ে লালা ও রক্ত ঝরে পড়ে, গরুর খাওয়ার রুচি নষ্ট হয়ে যায়  ফলে গরুর শরীরে প্রচন্ড ব্যথা ও জ্বর হয় ।

আক্রান্ত অংশে মশা-মাছি পড়ে দ্রুত রোগজীবানু ছড়াতে সহায়তা করে। তাই পশু খামারিরা ও কৃষকরা গরুর চিকিৎসা করাতে করাতে অনেকটা নিঃশ্ব হয়ে পড়েছে। দেশের উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসারের কার্যালয়ের সামনে সারাদিন ব্যাপী গরুর মালিক ও খামারিদের অসুস্থ গরু নিয়ে উপস্থিতি লক্ষ করা গেছে এবং গরুর মৃত্যুর খবরও পাওয়া গেছে।

কমলগঞ্জে গায়ে গুটি উঠা নতুন রোগে প্রায় ২ সহস্রাধিক গরু আক্রান্ত হয়েছে। দিন দিন বাড়ছে এ রোগে আক্রান্ত গরুর সংখ্যা। আক্রান্ত এলাকায় পর্যাপ্ত সরকারি চিকিৎসা
সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ গরু মালিকদের।

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ পৌর এলাকাসহ উপজেলার কমলগঞ্জ সদর, মুন্সীবাজার, পতনউষার, শমশেরনগর, আলীনগর, আদমপুর, মাধবপুর, ইসলামপুর ইউনিয়নের অধিকাংশ গ্রামে এ রোগের প্রকোপ দেখা দিয়েছে। বেশি আক্রান্ত হয়েছে শ্রীসূর্য্য, করিমপুর, বাসুদেবপুর, গোপাল নগর, মইদাইল, জালালপুর, উবাহাটা, চন্ডিপুর, পূর্ব জালালপুর, কামদপুর, চিৎলিয়া, নয়াপত্তন, নোয়াগাঁও, ধূপাটিলা সহ কয়েকটি গ্রামে। নতুন রোগে আক্রান্ত গরুর মালিকরা জানান, প্রথমে গরুর গায়ে গুটি গুটি উঠে। তারপর গলা ফুলে গরুর গায়ে অতিরিক্ত জ্বর উঠে। এতে গরু খাবার খেতে চায় না। দেখা দেয় গুটি গুলির জায়গায় ঘাঁ হয়ে পচন ধরে।

ইতিমধ্যে এই রোগে আক্রান্ত হয়ে শ্রীসূর্য্য গ্রামের অশিত শীল ও কামদপুর গ্রামের মনাফ মিয়া নামে দুই জনের দুটি গরুসহ বেশ কটি গরু মারা গেছে। একের পর পর গরু সংক্রমিত হওয়ায় গরুর মালিকরা আতংকে আছেন। আক্রান্ত এলাকায় পর্যাপ্ত সরকারি চিকিৎসা সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ গরু মালিকদের।

তারা বলেন, আক্রান্ত পশুর জন্য সরকারিভাবে ভালো কোন চিকিৎসা সুবিধাও পাওয়া যাচ্ছে না। প্রাইভেট চিকিৎসকদের অধিক ফি দিয়ে চিকিৎসা প্রদান করাতে হচ্ছে। যে কারনে করোনা ভাইরাসের এই সময়কালে গরুর মালিকরা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন।

তবে গরু মালিকদের অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা প্রাণি সম্পদ বিভাগ বলছে, যেখানে গরু আক্রান্তের খবর পাওয়া যাচ্ছে সেখানে গিয়েই তারা চিকিৎসা সেবা দেওয়ার চেষ্টা করছেন। প্রাণি সম্পদ বিভাগের দাবী, গরুরা লামপি স্কিন ডিজিজ রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। কমলগঞ্জে এটি নতুন রোগ।

আলাপকালে কমলগঞ্জ উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. হেদায়েত আলী বলেন, এই এলাকায় এটি নতুন রোগ। এই রোগকে লামপি স্কিন ডিজিজ বলা হয়। পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখলে এ রোগ থেকে নিরাময় সম্ভব। এই রোগ কোন ভাবেই গরু থেকে মানুষের শরীরে ছড়াবে না বলেও জানান প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা।

দিনাজপুরের কাহারোলে উপজেলার ২ নং রসুলপুর ইউনিয়নের  খোশালপুর নিবাসী পিয়াল রায় বলেন গত ১ মাস পূর্বে তার ( পিয়াল) কাকা শ্যামল চন্দ্র রায়ের একটি গরু এ রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। দেখা গেছে অনেক গরু এ রোগে আক্রান্ত হয়ে নাজেহাল হয়ে পড়েছে ও মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ দিদারুল আহসানের সঙ্গে কথা  বললে তিনি বলেন এ রোগটি নতুন হলেও মৃত্যুহার প্রায় নেই বললেই চলে তবে সচেতনতা ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অবলম্বন করলে এবং মশারি ব্যবহারের মাধ্যমে এবং উপযুক্ত চিকিৎসার ফলে ১ থেকে ৪ সপ্তাহের মধ্যেই রোগ নির্মুল করা সম্ভব হচ্ছে।

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার বেশিরভাগ গবাদি পশুই ল্যাম্পি স্কিন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। প্রায় দু সপ্তাহে পুরো উপজেলায় ছড়িয়ে পড়েছে এ রোগটি। এ রোগে আক্রান্ত হলে পশুদের যেসব উপসর্গ দেখা দেয় তা অনেকটা করোনা উপসর্গের মতোই। এতে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন ওই উপজেলার খামারিরা। কিশোরগঞ্জ সদর ইউপির মুন্সিপাড়া গ্রামের খামারি মমতাজ উদ্দিন পালানু জানান, ‘আমার একটি গরু এই রোগে আক্রান্ত হয়েছিল, এখন সুস্থ। তবে গ্রামের গবাদি পশুগলোর মাঝে ছড়িয়ে পড়েছে এই রোগ।

পুটিমারী ইউপির কালিকাপুর গ্রামের আব্দুস ছামাদ জানান, তার তিনটি গরুই এই রোগ হয়েছে।

উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা মফিজুল ইসলাম জানান, ল্যাম্পি স্কিন ভাইরাসটি সাত থেকে ১০ দিন পশুর শরীরে থাকে। এর কোনো প্রতিষেধক বের হয়নি। তবে পক্সের ভ্যাকসিন ‘গোট পক্স ব্যাকলি’ প্রয়োগ করা যায় এবং প্রাথমিক চিকিৎসা হিসাবে প্যারাসিটামল খাওয়ানো যায়। এতে মৃত্যুর হার শতকরা ০.৫ থেকে এক ভাগ।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin