রবিবার, ২৫ Jul ২০২১, ০২:৫০ পূর্বাহ্ন

শশুড়ের কুপ্রস্তাবের কারনে কি জীবন দিতে হলো ফাতেমার?

শশুড়ের কুপ্রস্তাবের কারনে কি জীবন দিতে হলো ফাতেমার?


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট:

ভিক্ষুকের মেয়ে ফাতেমা কি সত্যি আত্মহত্যা করলো নাকি এটি হত্যা এমন প্রশ্ন এখন এলাকার জনসাধারনের মুখে মুখে। আবার শশুরের কুপ্রস্তাবের কারনেই কি জীবন দিতে হলো এই গৃহবধুর এমন গুঞ্জনও শোনা যাচ্ছে এলাকায়।

তবে, স্বামীর পরিবারের দাবি আত্মহত্যা। আর ফাতেমার পিতার পরিবারের দাবি তাদের ফাতেমাকে হত্যা করা হয়েছে। এমন একটি অভিযোগও থানায় দিয়েছে নিহতের ভাই রুবেল আহমদ।

ঘটনাটি বিশ্বনাথ উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের শেখেরগাও গ্রামে। নিহত ফাতেমা বেগম (২১) ওই গ্রামের সাইদ আলীর ছেলে জামিল আহমদের (২৪) স্ত্রী। শুক্রবার (৩জুলাই) ময়না তদন্ত শেষে ফাতেমার লাশ স্বামীর বাড়িতে নিয়ে গেলে কোন কবরস্থানে দাফন করতে দেয়নি এলাকাবাসী। পরে নিহতের স্বামী সিলেট মানিক পীর টিলায় দাফনের জন্য নিয়ে যান। এরআগে গত বৃহস্পতিবার (২জুলাই) দুপুরে ঝুলন্ত অবস্থায় গৃহবধু ফাতেমার লাশ উদ্ধার করে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালে জামিল আহমদের সাথে বিয়ে হয় উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের আনরপুর গ্রামের ইলিয়াস আলীর মেয়ে ফাতেমা বেগমের। বিয়ের পর থেকে পারিবারিক কোলহ লেগেই আছে পরিবারে। যৌতুকের জন্য প্রায়ই স্বামী ও শাশুড়ী মিলে ফাতেমাকে শারিরিক নির্য়াতন করতো। এ নিয়ে একাধিকবার সালীশ বৈঠক বসেছিলো।

একবার ফাতেমাকে মারধর করে একটি ড্রামের ভিতর তালাবদ্ধ করে রেখেছিলো স্বামীর পরিবার। পরে ফাতেমার পিতার বাড়ির লোকজন পুলিশ নিয়ে তাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। সর্বশেষ গত ৫মাস আগে দৌলতপুর ইউনিয়ন পরিষদে সালীশ বসে উভয়ের উপস্থিতিতে বিবাহ বিচ্ছেদ হয় এবং সিদ্ধান্ত হয় ফাতেমাকে নগদ ২০ হাজার টাকা ও মালামাল ফেরত দেওয়ার জন্য। পরবর্তিতে টাকা না দিয়ে স্বামী জামিল আহমদ কৌশলে ফাতেমাকে পিত্রালয় থেকে তার বাড়িতে নিয়ে যায়। এরপর থেকে ফাতেমার উপর শারীরিক ও মানষিক নির্যাতন করে জামিলসহ তার পরবিারের লোকজন।

অবশেষে, গত বৃহস্পতিবার ঘরের তীরের সঙ্গে ওড়না পেঁচানো ঝুলন্ত অবস্থায় ফাতেমার লাশ উদ্ধার করে সিলেট এমএ জি ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ।

এদিকে, ফাতেমার মৃত্যু একটি রহস্যজনক দাবি করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি পোষ্ট দিয়েছেন তাদের শালীসের শালিস ব্যক্তিত্ব উপজেলার খাজাঞ্চি ইউনিয়নের শাহ তোফাজ্জল হোসেন ভান্ডারী।

তিনি লিখেন, ফাতেমার মৃত্যু, আত্মহত্যা না হত্যা আমার সন্দেহ। গরীবের পক্ষে একজন শালিসকারী হিসাবে একমাত্র আমিই ছিলাম। বিষয়টি নিস্পত্তি আমার মাধ্যমে হয়েছিলো। কিন্তুু রায় বহাল রাখেনি স্বামী ও তার পিতা। দশপাইকা কৈলানপুর গ্রামের ভিক্ষুকের মেয়ে ফাতেমা স্বামীর সংসারে স্বামী ও শশুর কর্তৃক যন্ত্রনা ছিলো সিমাহীন। একবার থানায় অভিযোগও দেওয়া হয়েছিলো। পুলিশ দিয়ে ফাতেমাকে শেখেরগাও থেকে উদ্ধার করে পিত্রালয়ে আনা হয়েছিলো। তিনবার শালিস বৈঠক করে শেষমেষ স্বামীর সংসার থেকে বিচ্ছেদ করা হয়। দেনমোহর ২০ হাজার টাকা এবং তার বিয়ের মালপত্র ফেরত দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

ফাতেমার নানার বাড়ী আমাদের খাজাঞ্চি কান্দিগ্রামে। আমাকে ফাতেমার মামার বাড়ী কান্দি গ্রামের লোকজন মুরব্বি হিসাবে শালিস বৈঠকে দৌলতপুর ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে গিয়েছিলেন।
আমিই ফাতেমার পকেক্ষ একমাত্র মুরব্বি ছিলাম। গোয়াহরি বর্তমান মেম্বারের মধ্যস্থতায় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

এ বিষয়ে শালিস ব্যক্তিত্ব শাহ তোফাজ্জল হোসেন ভান্ডারীর সাথে আলাপ হলে তিনি জানান, শালিসে ফাতেমা বারবার অভিযোগ করেছিলো তার শশুড় তাকে কুপ্রস্তাব দিয়েছিলো।

অপরদিকে, ফাতেমার মা রংমালা বেগম তার মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে দাবি করে শুভপ্রতিদিনকে বলেন, বারবার নির্যাতন করে আমার মেয়েকে হত্যা করেছে তার স্বামী ও শাশুড়ী। তিনি তার মেয়ের হত্যার বিচার চেয়ে কান্নায় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন।

তবে, এ বিষয়ে জামিল আহমদের সাথে কথা হলে তিনি এটি আত্মহত্যা দাবি করে জানান, বৃহস্পতিবার সকালে স্বামী ঘুম থেকে উঠে স্ত্রীকে খুঁজতে থাকেন। কিন্তু ডাকাডাকি করে ঘরের ভেতরে কোথাও স্ত্রীর কোনো সাড়া-শব্দ পাওয়া যায়নি। পরে সকাল ১০টায় বসতঘরের পেছনের করে ঝুলন্ত অবস্থায় স্ত্রীকে দেখতে পান। কী কারণে গৃহবধূ ‘আত্মহত্যা’ করেছেন তা তিনি জানেন না।

এ ব্যাপারে বিশ্বনাথ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ওসমান আলী বলেন, গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সিলেট এমএ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়।

এবিষয়ে থানার অফিসার্স ইনচার্জ মো. শামীম মুসা বলেন, নিহতের পরিবার একটি অভিযোগ দিয়েছেন। এ নিয়ে তদন্ত চলছে। তদন্তে হত্যার সত্যতা পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin