সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০১:৪২ অপরাহ্ন


শাহপরাণে নৌকার নির্বাচনী অফিস ভাংচুর ককটেল বিস্ফোরণ : বিএনপি নেতা আটক

শাহপরাণে নৌকার নির্বাচনী অফিস ভাংচুর ককটেল বিস্ফোরণ : বিএনপি নেতা আটক


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট: সিলেট শহরতলির শাহপরাণ গেইট এলাকায় সিলেট-১ আসনে ড. এ কে এ মোমেনের নির্বাচনী অফিস ভাংচুর, ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে দুর্বৃত্তরা।

 

শনিবার গভীর রাতে এ ঘটনাটি ঘটে। প্রতিবাদে রাতেই সড়ক অবরোধ করেন স্থানীয় আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ। বিষয়টি নিশ্চিত করেনে শাহপরাণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আক্তার হোসেন জানান, খবর পেয়ে রাত আড়াইটার দিকে শাহপরাণ থানা পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। তিনি আরো জানান, নির্বাচনী অফিস ভাংচুর, ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় জাহানপুর এলাকা থেকে খোরশেদ নামের বিএনপির এক নেতাকে আটক করা হয়েছে। আর এ ঘটনায় মামলা দায়ের পক্রিয়াধীন রয়েছে।

 

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানয়, শনিবার গভীর রাত পৌণে ২টার দিকে শাহপরাণ গেইটস্থ আওয়ামী লীগের নির্বাচনী কার্যালয়ে এ হামলা-ভাংচুর করে দুর্বৃত্তরা। এসময় তারা অফিসের চেয়ার টেবিল ভাংচুর করে রাস্থায় ফেলে রাখে। অফিসে অগ্নিসংযোগসহ ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। তবে হামলার খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে শত শত ছাত্রলীগ, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জড়ো হয়ে এর প্রতিবাদ করেন। তারা রাস্থা অবরোধ করে রাখেন। হামলার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান সিলেটে অবস্থানরত কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসেইন। এছাড়াও ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আফসর আহমদ, জাহাঙ্গীর আলম, ছাত্রলীগ নেতা নাজমুল ইসলামসহ যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা।

 

এস এম জাকির হোসেইন নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘যারা রাতের আধারে হামলা করে তারা কাপুরুষ। রাতের আধারে হামলা করাই বিএনপি-জামায়াতের কাজ। এখন থেকে তাদের কাজের দাঁতভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে।’ রাত সোয়া তিনটায় শাহপরাণ (রহ.) থানা পুলিশের অনুরোধে রাস্থা অবরোধ প্রত্যাহার করা হয়।

 

এ বিষয়ে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের শাহপরাণ থানার কর্মকর্তা (ওসি) আক্তার হোসেন জানান, নির্বাচনী অফিস ভাংচুরের ঘটনায় সন্দেহভাজনভাবে একজনকে আটক করা হয়েছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin