শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৮:০৮ অপরাহ্ন


শাহেবেরবাজারে বাবার বাড়িতে নববধূ ধর্ষণ : অধরা আসামি

শাহেবেরবাজারে বাবার বাড়িতে নববধূ ধর্ষণ : অধরা আসামি


শেয়ার বোতাম এখানে

শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:

মাত্র এক সপ্তাহ আগে বিয়ে হয়েছিলো সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের এয়ারপোর্ট থানা এলাকার মখরখলা এলাকার তরুণী (১৮) এর। নতুন জীবন নিয়ে ছিলো নতুন স্বপ্ন। কিন্তু সে স্বপ্ন লুণ্ঠিত হলো ধর্ষকদের হাতে। বিয়ের মাত্র ৬ দিন পর বাবার বাড়িতে বেড়াতে আসলে তুলে নিয়ে রাতভর আটকে রেখে পালাক্রমে করা হয় ধর্ষণ। ঘটনাটি ঘটেছে ১৪ সেপ্টেম্বর রাত আনুমানিক ১০ টার দিকে। ধর্ষণে এখন সংসার ভাংচে ওই তরুণীর।

এ ঘটনায় ১৬ সেপ্টেম্বর ওই তরুণী বাদী হয়ে এয়ারপোর্ট থানায় একটি মামলা দিলে পুলিশ এখনো কাউকেই গ্রেপ্তার করতে পারেনি। বরং ধর্ষকদের পক্ষ ভিকটিমের পরিবারকে দেয়া হচ্ছে নানান হুমকি। ফের ঘর থেকে তুলে নেয়ার হুমকিও দেয়া হচ্ছে বলে কান্নাজড়িত কণ্ঠে সিলেট ভয়েসকে জানিয়েছেন ভিক্টিমের মা।

মামলার এজাহার ও ভিক্টিমের মার কাছ থেকে জানা যায়, ধর্ষণের ঘটনার প্রায় ৬ দিন আগে বিয়ে হয় ওই তরুণীর। বিয়ের ৩য় দিনে ফিরাযাত্রায় আসলেও তার বাবার ঘরে থাকা হয়নি। পরে আরও ৩ দিন পর তরুণীর মা মেয়েকে বেড়াতে আনেন। এর পর ১৪ সেপ্টেম্বর রাত আনুমানিক ১০ টায় জালানি কাঠের জন্য বাড়ির উঠানে বের হলে তরুণীকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে পার্শ্ববর্তী কালাগুল চা বাগানে রাতভর আটকে রেখে তাকে ধর্ষণ করে দেলওয়ার হোসেন সাদ্দাম হোসেন প্রকাশ বতাই নামের দুই যুবক। পরদিন ভোর হলে লোকজন আসছেন দেখে তারা পালিয়ে গেলে উপস্থিত লোকজন ওই তরুণীকে উদ্ধার করেন। পরে পুলিশ এসে তরুণীকে সিলেটের এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস (ওসিসি) তে ভর্তি করেন।

এ ঘটনায় ওই তরুণী বাদী হয়ে এয়ারপোর্ট থানায় দেলওয়ার হোসেনকে (৩০) প্রথম ও সাদ্দাম হোসেন প্রকাশ বতাইকে (২৫) ২য় আসামি করে মামলা দায়ের করেন। দেলওয়ার এয়ারপোর্ট থানা এলাকার দেবাইবহর এলাকার মুসলিম মিয়ার পুত্র ও সাদ্দাম ফতেহগড় এলাকার মৃত আব্দুল জলিলের পুত্র। কিন্তু ঘটনার প্রায় ২৪ দিন পার হলেও এখনো কোন আসামি ধরা পড়েনি। এমনকি আসামি ধরার ক্ষেত্রে পুলিশ উদাসীন।

ভুক্তভোগী তরুণীর মা বলেন, আমার স্বামী মারা যাওয়ার পর খুব কষ্টে সন্তানগুলো নিয়ে জীবন কাটাচ্ছি। মেয়েকে বিয়ে দিয়েছিলাম। কিন্তু বেড়াতে আসার পর তারা আমার মেয়ের সর্বনাশ করল। এখন মেয়ের স্বামীর বারি থেকেও তালাক করতে চাইছেন। আসামিও ধরা হচ্ছে না। বরং যারা কাজটি করেছে তারা প্রতিদিন আমাকে ফোন করে হুমকি দিচ্ছে। আমার কাছে রেকর্ড আছে। আমি অসহায় মানুষ। কি করব বুঝতে পারছি না। দয়া করে সকলে আমার সহযোগিতায় এগিয়ে আসুন। আমি চাই আমার মেয়ের এ সর্বনাশের বিচার হোক।

তবে মামলার তদন্তের দায়িত্বে থাকা এয়ারপোর্ট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মামুন হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দিলেন দায় সাড়া উত্তর। তিনি বলেন, ‘এইতো কাজ চলছে। আসামি ধরা পড়লে জানাব।’

আর এয়ারপোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাত হোসেনের সাথে যোগাযোগের জন্য একাধিকবার চেষ্টা করা হলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।

এদিকে সম্প্রতি সময়ে সিলেট নগরিতে একাধিক ধর্ষণের ঘটনা ঘটলেও আসামি গ্রেপ্তারের ক্ষেত্রে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের তাৎক্ষনিক কোন পদক্ষেপ চোখে পড়েনি। বরং ঘটনার ব্যাপারে আন্দোলন কিংবা আলোচনায় আসার পর পর নরেচড়ে বসে প্রশাসন। যার প্রমান মিলেছে সম্প্রতি সিলেটের টুকেরবাজার এলাকায় ৫ম শ্রেণির এক ছাত্রী ধর্ষণ মামলা ও এমসি কলেজ ছাত্রাবাসের গনধর্ষণের ঘটনায়।

উভয় ঘটনায় সিলেত মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে তাৎক্ষনিক কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। ৫ম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় মামলা দায়ের পর কোন আসামিকে গ্রেপ্তার করা না হলে প্রায় ২৭ দিন পর সিলেটে মানববন্ধনে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের জন্য ৭ দিনের সময় দিয়ে পুলিশ কমিশনার অফিস ঘেরাও করার হুঁশিয়ারি দেয়া হলে পরদিনই ২ আসামিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এমনকি এমসি কলেজ ছাত্রাবাসের ঘটনায়ও আসামি গ্রেপ্তারের সফলতা দেখাতে পারেনি সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ।

তবে ব্যার্থতার ব্যাপারটি মানতে নারাজ সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (গণমাধ্যম) জ্যোতির্ময় সরকার। তিনি বলেন, ‘আন্দোলনের পর আসামি ধরা হয় ব্যাপারটিয়া এরকম না। আসামি ধরতে একটি প্রক্রিয়া লাগে। এতে সময় লাগে। আর সম্প্রতি সময়ে যে আসামিগুলো বিভিন্ন ঘটনায় ধরা পরেছে এগুলো আমাদের রিকিউজিশনের ভিত্তিতেই ধরা পড়ছে। আর বর্তমানে যেটি বলছেন এটি অনেক আগের মামলা। তাই আমার আপডেট জানতে হবে।’


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin