সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০১:২৯ অপরাহ্ন



শায়েস্তাগঞ্জে অলৌকিক ক্ষমতায় ঘেরা শাহজালালের বিশ্রামাগারটির স্মৃতি হারিয়ে যাওয়ার উপক্রম

শায়েস্তাগঞ্জে অলৌকিক ক্ষমতায় ঘেরা শাহজালালের বিশ্রামাগারটির স্মৃতি হারিয়ে যাওয়ার উপক্রম


কামরুজ্জামান আল রিয়াদ, শায়েস্তাগঞ্জ:

৩৬০ আউলিয়ার পূণ্যভূমি সিলেট। সিলেটের বিভিন্ন স্থানে শায়িত আছেন ওলি আউলিয়াগণ। তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, উপমহাদেশের শ্রেষ্ঠ আধাত্মিক পুরুষ হযরত শাহজালাল ১৩০৩ খ্রিস্টাব্দে সিলেটে আগমন করেন।

তিনি ৭০৩ হিজরী মোতাবেক ১৩০৩ ইংরেজী সালে ৩২ বছর বয়সে ইসলাম ধর্ম প্রচারের লক্ষ্যে অধুনা বাংলাদেশের সিলেট অঞ্চলে এসেছিলেন বলে ধারনা করা হয়। সিলেট বিজয়ের পরে শাহ জালালের সঙ্গী অনুসারীদের মধ্য হতে অনেক পীর দরবেশ এবং তাদের পরে তাদের বংশধরগণ সিলেট সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে গিয়ে বসবাস করেন।

জানা যায়, হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নুরপুর ইউনিয়নের সুরাবই ফকির বাড়ির পাশে জিতু মিয়া ফকিরের জায়গাতে হযরত শাহজালাল ও উনার সফর সঙ্গীদেরকে সাথে নিয়ে নৌকায় করে এসে যাত্রা বিরতী করে বিশ্রাম নিয়েছিলেন। কথিত আছে ,হযরত শাহজালাল রহ: একটি গাছের গোড়ায় বসেছিলেন, সেই গাছের গোড়া থেকে একটি গাছ বড় হয়ে উঠে। এবং কোন একজন একটি ইটের উপর বসেছিলেন, প্রতিবছর গায়েবীভাবে একটি ইট করে বাড়তে বাড়তে অনেকগুলো ইট জমাট হয়ে আছে। এবং উনার সঙ্গীরা কেউ কেউ চুল কেটেছিলেন যার চিহ্ন কয়েকশ বছর রয়েছিল। এই বিশ্রামগারটিই বর্তমানে সুরাবই খানকা বাড়ি বা দরগা বাড়ি হিসেবে পরিচিত।

সুরাবই গ্রামের বৃদ্ধা আলেয়া বেগম জানান, উনাদের স্মৃতি ধরে রাখার জন্য প্রতি বছর পৌষ মাসের ১৩ তারিখে এখানে ওরসের আয়োজন করা হয়, অনেক শুভাকাঙ্কিরা ওরসে এসে সামিল হন। তিনি স্বাধীনতার পর থেকেই এ প্রথা দেখে বড় হয়েছেন।

কথিত আছে এই দরগাতে ভিজা কাপড়ে এসে ইট উল্টে দিলে মনের নেক বাসনা পূর্ণ হয়। এখানে দুরদুরান্ত থেকে মানুষ বিভিন্ন মানত করার জন্য আসেন, অনেকেই গাছের গোড়ায় মোমবাতি ধরিয়ে দোয়া চেয়ে যান।

বেশ কয়েকবছর ধরে ওরসের আয়োজন করা ফকির বাড়ির বাবুল মিয়া জানান,প্রতিদিন সন্ধ্যায় তারা এইখানে মোমবাতি জ্বালান। এই দরগা অনেক গরম জায়গা এখানে এসে কেউ বেয়াদবি করলে তার ফল ভাল হয়না, একবার সুরাবই গ্রামের ধনাই মিয়া দরগার গাছ কেটে ফেলছিল, সেই থেকে ধনাই আজো পাগল হয়ে আছে।

বাবুল মিয়া আরো একব্যক্তি জানান, এই দরগায় এক লোক গুপ্তধন পেয়েছিল, সে স্বপ্নে দেখে এই গুপ্তধন জায়গা মত রেখে আসতে হবে, ওইলোক যথাসময়ে রেখে আসেনি বলে পরে সে মারা গেছিল। ওলি আউলিয়াদের কেরামতি বুঝা বড় দ্বায়, তাদের অলোকিক ক্ষমতা মহান আল্লাহতালাই দান করেছেন। কিন্তু শাহজালালের স্মৃতিবিজরিত এই খানে বাড়ির দরগাটির প্রবেশের কোন গেইট নেই, বিশ্রামাগারটি ও মাটি দিয়েই চিন্হিত করে রাখা হয়েছে।

এলাকাবাসীর দাবি এই বিশ্রামাগারটি কোন সরকারী সহায়তায় পাকাকরণ করে রাখলে ভক্ত আশেকানদের ওরস তথা ভাল করে ইবাদত বন্দেগী করার সুযোগ হত।

এ বিষয়ে নুরপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান প্রবীণ আওয়ামীলীগ নেতা সৈয়দ গাজিউর রহমান বলেন, আমরা ছোট বেলায় শুনেছি এই দরগা বাড়ির কথা, তবে এই স্থানটি ধরে রাখার জন্য সরকারী পৃষ্ঠপোষকতার প্রয়োজন, আমি এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

এ বিষয়ে নুরপুর ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আবু বক্কর ছিদ্দিক বলেন, এইটা অনেক আগের ইতিহাস, এ বিষয়ে আমি জানি, যদি সরকারীভাবে কোন সুযোগ থাকে এই বিশ্রামাগারটি পাকাকরণ করে দিব।

এ ব্যাপারে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রশীদ তালুকদার ইকবাল বলেন, আমি এ বিষয়ে অবগত নই, স্থানীয়দের সাথে কথা বলে খোজ নিয়ে দেখব।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin