শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১০:১২ পূর্বাহ্ন



শায়েস্তাগঞ্জে করোনায় আর্থিক সংকটে সাংবাদিকরা নিরাপত্তা নিয়েও চিন্তিত

শায়েস্তাগঞ্জে করোনায় আর্থিক সংকটে সাংবাদিকরা নিরাপত্তা নিয়েও চিন্তিত


কামরুজ্জামান আল রিয়াদ, শায়েস্তাগঞ্জ:

করোনা ভাইরাস ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ায় সারাদেশের ন্যায় শায়েস্তাগঞ্জে ও চলছে লকডাউন। কিন্তু তবুও থেমে নেই জীবন যুদ্ধ। জীবীকার তাগিদে জীবন বাচানোর লড়াইয়ে সামিল হওয়ার চেষ্টায় মানুষের পথচলা।
বিশেষভাবে যাদের কথা বলছি দশ জনের মতো তাদের জীবনের ধরন নয়, তাদের সময়ক্ষণ একটু ভিন্ন। দেশের এই চলমান সংকটে মহৎ পেশায় জীবনের ঝুকি নিয়ে যারা অবিরাম মাঠ পর্যায়ে কাজ করে যাচ্ছে, তারা হল সাংবাদিক।

চলমান লকডাউনে তাদের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে ঘরে বসে করোনাভাইরাসসহ দেশ বিদেশের খবর পাচ্ছেন সাধারণ মানুষ। কিন্তু তাদের সুরক্ষা দিতে গণমাধ্যম কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় অভিভাবক সংগঠনগুলো উদাসীন।

এমনকি অনেক প্রতিষ্ঠান দীর্ঘদিন ধরে সংবাদকর্মীদের বেতন পর্যন্ত দিচ্ছে না। এ অবস্থায় নিজের সুরক্ষা এবং আর্থিক নিরাপত্তা নিয়ে আশঙ্কায় শায়েস্তাগঞ্জের সংবাদকর্মীরা।
সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা মনে করছেন, করোনাভাইরাসের ভয়ঙ্কর থাবা থেকে দেশের সাধারণ মানুষের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন শায়েস্তাগঞ্জে কর্মরত সংবাদকর্মীরা। তাদের লেখনীর মাধ্যমে বেরিয়ে আসে সমাজের অসঙ্গতি। করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে তারা কার্যকর তথ্য পৌঁছে দিচ্ছেন সাধারণ মানুষের কাছে। জনগণের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধিতে রাখছেন অনন্য ভূমিকা।

তাই সংবাদকর্মীদের সুরক্ষা ও আর্থিক সুবিধা, বেতন-ভাতা আদায়ে এগিয়ে আসতে হবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এবং স্থানীয় অভিভাবক সংগঠনগুলোকে। বিশেষ করে প্রেসক্লাবগুলোর নেতৃবৃন্দ সংবাদকর্মীদের দাবি-দাওয়া আদায়ে সোচ্চার হতে হবে। প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্তৃপক্ষ ও সরকারের নীতি নির্ধারকদের টনক নড়াতে রাখতে হবে জোরাল ভূমিকা।

এ বিষয়ে আনন্দ টিভির প্রতিনিধি শেখ শাহাউর রহমান বেলাল বলেন,প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গণমাধ্যমে কাজ করতে হয়। নির্ঘাত মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়েও করোনাকালে দেশ ও দেশের মানুষকে মরণঘাতী করোনাভাইরাসসহ দেশ বিদেশের খবর সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে কাজ করে যাচ্ছি। কিন্তু দুঃখের বিষয় যে স্থানীয় সকল স্টাফদের বেলায় কর্তৃপক্ষ উদাসীন। এখন পর্যন্ত কোনো সুরক্ষা সামগ্রী বা কোনো আর্থিক সহযোগিতা পাই নি। নিজের টাকায় ক্রয় করেছি একটি মাস্ক। এই হলো আমাদের সুরক্ষা ব্যবস্থা। যা অত্যন্ত দুঃখজনক।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মোঃ আব্দুর রকিব বলেন,করোনার জনসাধারনের মতো সাংবাদিকদের ও জীবনে বিরুপ প্রভাব পড়েছে। স্থানীয় পত্রিকাসহ জাতীয় অনেক দৈনিক বন্ধ থাকায় সাংবাদিকরা বেতন ভাতা পাচ্ছেন না। চরম বিপাকে পড়েছেন সাংবাদিকরা পরিবার পরিজন নিয়ে। আমি মানবতার উজ্জল দৃষ্টান্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে সাংবাদিকদের প্রণোদনা দেয়ার জন্য জোড় দাবী জানাচ্ছি ।

এ ব্যাপারে অনলাইন পোর্টাল দৈনিক শায়েস্তাগঞ্জ এর সম্পাদক ও প্রকাশক সাখাওয়াত হোসেন টিটু বলেন, দীর্ঘদিন ধরে হবিগঞ্জের স্থানীয় দৈনিক পত্রিকা বন্ধ থাকায় অনলাইনেই আমরা সাথে সাথে সংবাদ দেয়ার চেষ্টা করছি, এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ এর সাংসদ এডভোকেট মো. আবু জাহিরের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সুমি আক্তার বলেন সাংবাদিকরাও মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে।
সরকারী সহায়তা সেচ্ছায় নিতে আগ্রহী হলে আমার কাছে তালিকা দিলে উনাদেরকে সহযোগীতা করা হবে। উপজেলা প্রশাসনের কাছ থেকে কোন ধরনের সুরক্ষা সরঞ্জামাদি দেয়া যায় কিনা জিঙ্গেস করলে, তিনি বলেন, সরকার থেকে পিপিই পড়তে নিষেধ করা হয়েছে।


সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin