সোমবার, ১৭ মে ২০২১, ০৮:৩৮ পূর্বাহ্ন

শায়েস্তাগঞ্জে গ্রামীন রাস্তাঘাটের বেহাল দশা

শায়েস্তাগঞ্জে গ্রামীন রাস্তাঘাটের বেহাল দশা


শেয়ার বোতাম এখানে

শায়েস্তাগঞ্জ প্রতিনিধি:

শায়েস্তাগঞ্জে বিভিন্ন অঞ্চলের রাস্তাঘাটগুলোর বেহাল দশার চিত্র ফুটে উঠেছে। শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার সুতাং বাজার, সুরাবই- লালচান সড়ক, উজান শৈলজুড়ার রাস্তাগুলোর অবস্তা খুব খারাপ।

সরজমিনে ঘুরে দেখা যায় যে, সুতাং বাজারের ভিতরের রাস্তাগুলোতে বৃষ্টি হলেই অনেকেই মাছ ধরা শুরু করেন। বিভিন্ন গর্তে খানাখন্দ হয়ে পানি জমাট বেধে থাকে। হাটবাজার করতে গিয়ে অনেককেই পড়ে গিয়ে আহত হয়েছেন।

উপজেলার নুরপুর ইউনিয়নের সুতাং- লালচাঁন এই সড়কটির বিভিন্ন জায়গায় ছোট বড় গর্ত ও বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধতা দেখা দেয় ও স্থানে পানি জমে থাকে। যার জন্য যাএীবাহী সিএনজি, টমটম, অটোরিক্সা, টেলা গাড়ি,ও ছোট বড় ও দূর্ঘটনার স্বীকার হয়।

উপজেলার ব্রাক্ষণডুরা ইউনিয়নের শৈলজুড়া গ্রামের জামে মসজিদ থেকে মাদ্রাসার গেইট পর্যন্ত অর্ধ কিলোমিটার রাস্তায় সামান্য বৃষ্টি হলেই এক হাঁটু কাদা জমে।
তখন যানবাহন তো দূরের কথা, হেঁটে চলাচলও বিপজ্জনক হয়ে পড়ে। বেহাল দশায় পরিণত হওয়া যাতায়াতের এ রাস্তাটি দুই হাজার মানুষের চলাচলের অনুপযোগী। সামান্য বৃষ্টিতেই এখন জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়।
কাদাযুক্ত এই রাস্তায় সিএনজি, মটরসাইকেল, রিক্সা, ভ্যান, বাইসাইকেল ইত্যাদি কোম্পানির প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ যাতায়াত করেন।

বর্ষাকালের ৩/৪ মাস এই রাস্তা যাতায়াতের একদমই অনুপযোগী হয়ে পড়ে। যার ফলে চিকিৎসা, ব্যবসা, নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ক্রয়-বিক্রয় ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের বিশেষ করে কোমলমতি শিশুদের শিক্ষায় যাতায়াতের জন্য মারাত্মক প্রভাব পড়ছে।

এলাকাবাসী জানান, দীর্ঘদিন কোনো সংস্কার না করায় এই কাঁচা রাস্তাটি বর্ষা মৌসুমে গভীর কাদায় পরিণত হওয়ায় একেবারেই চলাচলের অযোগ্য হয়ে যায়। বর্তমানে এই রাস্তায় স্থানভেদে ২থেকে ৩ ফুট পর্যন্ত কাদার গভীরতা আছে। কোন গাড়ি তো দুরের কথা হেঁটে পার হওয়াই মুশকিল।

তার পরও প্রয়োজনের তাগিদে ওই রাস্তা দিয়েই চলাচল করতে হচ্ছে স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রী এবং কোম্পানির কর্মীসহ গ্রামবাসীকে। এ রাস্তাটিই এ এলাকার ছাত্র-ছাত্রীসহ সকলের যাতায়াতের একমাত্র পথ। গ্রীষ্মকাল এবং বর্ষাকালে শিক্ষার্থীদের কষ্টের সীমা থাকে না। এ রাস্তায় চলাচলের বাধা একটাই- এর বেহাল দশা। রাস্তাটি পাকা হলে এ এলাকার দুই হাজার মানুষের কষ্ট দূর হবে।

এ বিষয়ে কথা হয় নুরপুর ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান আবু বক্কর ছিদ্দিকীর সাথে তিনি বলেন বাজারের ভেতরের রাস্তার অবস্থা খারাপ আমি নতুন দায়িত্ব পেয়েছি। তবে আমি এ ব্যাপারে উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের সাথে আলাপ করেছি। আশা করি খুব তাড়াড়াড়ি রাস্তা গুলোর সংস্কার করা হবে।

ব্রাক্ষণডুরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হোসাইন মোহাম্মদ আদিল হোসেন জজ মিয়া বলেন, শৈলজুড়া গ্রামের রাস্তাটি আমার নজরে আছে, আমি এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের সাথে আলাপ করেছি।

এ বিষয়ে হবিগঞ্জ স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের সহকারী প্রকৌশলী মোঃ মিনারুল ইসলাম বলেন, কিছুদিনের মধ্যেই এলজিইডির নতুন স্কীম শুরু হবে, তখন আমরা যেসব রাস্তাঘাট বেহাল অবস্থায় আছে এইগুলির তালিকা করে ঢাকা পাঠাবো। আশা করছি শীঘ্রই পুনরায় মেরামত করতে পারবো।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin